রোহিঙ্গাদের ত্রাণ বেপরোয়া পাচার! ফের ডাল চালসহ ২ ট্রাক জব্ধ


কক্সবাজার: কক্সবাজারের ৩৪ বিজিবি সদস্যরা পৃথক দুইটি অভিযান চালিয়ে রোহিঙ্গাদের জন্য আনা বিপুল পরিমাণ এ্যাংকর ডাল বিদেশী চালসহ দু’টি ট্রাক জব্ধ করেছে। ৯ মে বিকালে কক্সবাজার টেকনাফ মহাসড়কের মরিচ্যা যৌথ চেক পোষ্টে এ মালামাল ও ট্রাক জব্ধ করা হয়। বিজিবি ৩৪ ব্যাটেলিয়ানের অধিনায়ক লে. কর্ণেল আলী হায়দার আজাদ আহেমদ জানিয়েছেন গতকাল বিকাল ৫টার দিকে উখিয়া কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে চট্টগ্রামগামী মালবাহি ট্রাক ঢাকা মেট্রো-ড-১১-৭৫৪৩ ট্রাক আটক করে । ট্রাকটির বিজিবির সদস্যরা তল্লাশি চালানোর সময় গাড়িতে থাকা ড্রাইভার পালিয়ে যায়। পরে বিজিবি সদস্যরা ট্রাক সদস্যরা ৩ লক্ষ টাকা মূল্যের ৬ হাজার কেজি এ্যাংকর ডাল জব্ধ করে। এসব ডাল বিশ্ব খাদ্য সংস্থ্যা কর্তৃক রোহিঙ্গাদের জন্য ত্রাণ সামগ্রী হিসেবে দেয়া হয়েছিল।
অপর দিকে সন্ধ্যা ৭টার দিকে একই চেক পোস্টে উখিয়া কুতুপালং থেকে কক্সবাজারগামী একটি মালবাহি পিক-আপ চট্ট মেট্রো অ ১১-০২৪২ আটক করে। এসময় কৌশলে ড্রাইভার পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে উক্ত পিক-আপ তল্লাশি চালিয়ে ২ লক্ষ টাকার মূল্যে ৫ হাজার কেজি ত্রাণের চাউল জব্ধ করে। এসব চাল রোহিঙ্গাদের জন্য কাজাকাস্থান সরকারের পক্ষ থেকে ত্রাণ সামগ্রী হিসেবে অনুদান দেয়া হয়েছিল। বিজিবি আরও জানান জব্ধ মালামালসহ ট্রাকের মূল্য ৬০ লক্ষ টাকা। এইব্যাপারে সংশ্লিষ্ট থানায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।
এদিকে রোহিঙ্গাদের জন্য আনা খাদ্য সরবরাহে চরম দুর্নীতি হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত কয়েকদিন ধরে দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমগুলো এসব দুর্নীতিকারীদের খবর প্রচার হয়েছে। আরও জানাযায়, দশ লাখ রোহিঙ্গার খাদ্যদ্রব্য সরবরাহকৃত কক্সবাজার শহরের খুরুশকূল রোডের সাগর এন্টারপ্রাইজের মালিক শ্রীমন্ত পাল সাগর এবং চাল বাজারের এসবি এন্টারপ্রাইজের মালিক বুলবুল তালুকদার এসব দুর্নীতির হোতা। কক্সবাজারের এই প্রতিষ্ঠান মিলে বানিয়েছেন সাগর-বুলবুল সিন্ডিকেট। এরা ডব্লিএফপির খাদ্য সরবরাহ নিয়ে এতোটাই সুক্ষ্ম ও পেশাদারী কায়দায় দুর্নীতি করেছে তা অকল্পনীয়। প্রকাশিত খবরে জানা যায়, ডব্লিউএফপির আওতায় নিযুক্ত এক সরবরাহকারী ঢাকার রাজারবাগের জহুরা কামাল ট্রেডিংয়ের মালিক জনৈক টিপু। ঠিকাদার জহুরা কামাল ট্রেডিং অবৈধভাবে তার সাব-কন্ট্রাক্ট দেয় কক্সবাজারের কথিত সাগর-বুলবুল সিন্ডিকেট এই বিশাল দুর্নীতির মূল কারিগর। শহরের খুরুশকূল রোডের সাগর এন্টারপ্রাইজের মালিক শ্রীমন্ত পাল সাগর এবং চাল বাজারের এসবি এন্টারপ্রাইজের মালিক বুলবুল তালুকদার মিলে বানিয়েছেন সাগর-বুলবুল সিন্ডিকেট। এই সাগর-বুলবুল সিন্ডিকেট ঢাকার জহুরা-কামাল ট্রেডিংয়ের মালিক টিপুর কাছ থেকে বিরাট অংকের টাকা দিয়ে ডব্লিউএফপিকে চাল-ডাল সরবরাহের দায়িত্ব নিয়েছে। চাল এবং ডালই হলো রোহিঙ্গাদের প্রধান খাদ্য উপকরণ। সাগর-বুলবুল সিন্ডিকেট বহুমুখী খাদ্য দুর্নীতিতে জড়িত। যা ইতিমধ্যে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে। গোপন সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি কয়েকদিনে বিজিবি কর্তৃক ডব্লিউএফপির ৪৫ হাজার ডালসহ কাভার্ডভ্যান উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত এসব ডাল সাগর-বুলবুল সিন্ডিকেটের বলে দাবি করেছেন অনেক ব্যবসায়ী। এরা এতোটায় দুর্নীতিগ্রস্থ হয়েছে যে, রাতারাতি এরা আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ। এরা সরকারি খাদ্য গুদামের অসাধু কর্তাদের সহযোগী হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে সরকার কর্তৃক কেনা ভালো মানের চাল বাইরে বিক্রি করে দেয়। তার বদলে নিম্নমানের এবং অনেক সময় পঁচা চাল সরকারি গুদামে জমা করে দেয়।
এদিকে রোহিঙ্গাদের চাল-ডাল সরবরাহের দুর্নীতি গোপনে সম্পাদনের জন্য এই সাগর-বুলবুল বিসিক এলাকার একটি পরিত্যক্ত গুদামকে বেছে নেয়। যেটি বর্তমানে ব্যাংকের মালিকানাধীন রয়েছে।
এদিকে সাগর-বুলবুল সিন্ডিকেট উখিয়া-টেকনাফের প্রতিটি রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে রোহিঙ্গাদের বিক্রি করে দেয়া চাল-ডাল নামমাত্র দামে সংগ্রহ করে। রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে সস্তায় চাল ডাল কেনার জন্য প্রতিটি ক্যাম্পে নিযুক্ত আছে সাগর-বুলবুলের লোকজন। এসব চাল-ডাল জমা করা হয় বিসিকের সেই পরিত্যক্ত গুদামে। এছাড়া খাদ্য গুদামের জালিয়াতির চাল এবং নানানভাবে সংগ্রহ করা নিম্নমানের চাল-ডাল সংগ্রহ করেও গুদামজাত করে তারা। সেখানে ইউএস এইড এর ছাপানো বস্তায় এইসব চাল ডাল প্যাকেটজাত করে। জানাগেছে, সাগর-বুলবুল সিন্ডিকেটের দুর্নীতির সহযোগী উপকারভোগী। তারা খাদ্য দুর্নীতির ভাগবাটোয়ারার অংশীদার হিসেবে সাগর-বুলবুল সিন্ডিকেটের অপকর্ম চেপে যান। এ ব্যাপারে সাগর এন্টারপ্রাইজের মালিক শ্রীমন্ত পাল সাগর গণমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাতকারে তিনি নিজেকে ডব্লিউএফপির তালিকাভুক্ত ঠিকাদার বলে দাবী করেন। তবে তিনি তার অপকর্ম স্বীকার করে বলেন, দুই টাকা বেশী লাভ করতে হলে এদিক-সেদিক করতে হয়।
দাবি উঠেছে, সাম্প্রতিক সময়ের ঘটনা নিয়ে দুর্নীতির মুল হোতা কক্সবাজার শহরের খুরুশকূল রোডের সাগর এন্টারপ্রাইজের মালিক শ্রীমন্ত পাল সাগর এবং চাল বাজারের এসবি এন্টারপ্রাইজের মালিক বুলবুল তালুকদারকে আইনের আওতায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হোক। অন্যথায় এরা আরও বেপরোয়া হয়ে উঠবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*