টুঙ্গিপাড়ায় আওয়ামীলীগ নেতার জিম্মিতে অসহায় পরিবার!

আওয়ামীলীগ নেতা শুকুর আলী শেখের ছেলে রাজীব ।


নিজস্ব প্রতিবেদক: গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় ক্ষমতাসীন দলের প্রভাব কাটিয়ে এক অসহায় পরিবারকে ছরছাড়া করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে আওয়ামীলীগ নেতা শুকুর আলী। এনিয়ে পরিবারটি সমাজ ও প্রশাসনের আন্তরিক হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
জানাগেছে, টুঙ্গিপাড়ার শ্রীরামকান্দি গ্রামের মো. সওকত সরদারের ছেলে সোহাগ স্ত্রী-সন্তান বাড়িতে রেখে ঢাকায় একটি বেসকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করে। পাশের বাড়ির শুকুর আলী শেখের কলেজে পড়ুয়া ছেলে রাজীব সোহাগের স্ত্রীর সঙ্গে অবৈধভাবে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। বিষয়টি সোহাগের পরিবারের লোকজন জানতে পারে। পরে খবর পেয়ে সোহাগ বাড়ি গেলে তার চোখেও বিষয়টি ফের ধরা পড়ে। ঘটনাটি জানাজানি হলে সোহাগ তার স্ত্রীকে বাবার বাড়ি পাঠিয়ে দেয়। পরে সোহাগের পরিবার ঘটনাটি সমাজিকভাবে সমাধান করার জন্য স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা শুকুর আলী শেখকে একাধিকবার অবগত করেন। কিন্তু তিনি ক্ষমতার দার্পটে অন্ধ হয়ে বিষয়টি সমাধানে গুরুত্ব না দিয়ে উল্টো সোহাগের পরিবারের উপর নানা হুমকি দিয়ে আসছিলো।
তারই ধারাবাহিকাতায় ৬ মে দুপুরে সোহাগের সাথে রাজীবের কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে সংঘর্ষে রাজীব আহত হন। এ ঘটনায় রাজীবের বাবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শুকুর আলী বাদী হয়ে সোহাগসহ অপর ৩ জনের বিরুদ্ধে টুঙ্গিপাড়া থানায় একখানায় মামলা দায়ের করেন। এদিকে সোহাগের বাড়ির লোকজন জানিয়েছেন, এ ঘটনার পর রাজীবের লোকজন তাদের বাড়িতে দফায় দফায় হামলা চালিয়ে বসতবাড়িতে ব্যাপক ভাংচুর গাছপালা কর্তনসহ টাকা পয়সা ও বিভিন্ন মালামাল লুটপাট করছে। শুধু তাই নয় বসতবাড়ীতে কাউকে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না। এ ঘটনায় সোহাগের পরিবারের লোকজন অভিযোগ দায়ের করতে গেলে থানা অভিযোগ গ্রহণ করেননি।
ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার জানিয়েছেন, এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শুকুর আলী শেখ ক্ষমতার অপব্যহার করে তাদের বসতবাড়ী দখলে নিতে অপচেষ্টা চালিয়ে আসছেন। বর্তমানে তাদের পরিবার নিয়ে তারা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। প্রতিনিয়ত রাজীবের ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের হুমকির মুখে তাদের পড়তে হচ্ছে। বঙ্গবন্ধু’র এলাকায় এ ধরণের ঘটনা কোনোভাবেই কাম্য নয়। এব্যাপারে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারটি সমাজপতিসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের প্রতি জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*