মানবপাচারের নতুন পয়েন্টে উজানটিয়া চ্যানেল

জিয়াবুল হক,চকরিয়া: মানবপাচারের নতুন পয়েন্টে কক্সবাজারের পেকুয়ার উজানটিয়া চ্যানেল হয়ে সাগরপথে মালয়েশিয়া যাওয়ার পথে পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে অন্তত ৬৭ রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশুকে আটক করেছে। গতকাল শনিবার ভোররাতে পেকুয়া উপজেলার উজানটিয়া ইউনিয়নের করিমদাদ মিয়াঁর ঘাট থেকে তাদের আটক করা হয়। আটকদের মধ্যে ২৩ জন পুরুষ, ২৯ জন নারী ও ১৫ জন শিশু রয়েছে। আটককৃত এসব রোহিঙ্গা নাগরিক সকলেই কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের বিভিন্ন ক্যাম্পের বাসিন্দা বলে জানিয়েছেন পুলিশ।
এদিকে পুলিশ সূত্র জানা যায়, পেকুয়া উপজেলার উজানটিয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা আব্দুল গণি, টিপু ও মো. মনছুর নামের তিনজন দালালের মাধ্যমে তারা সাগর পথে অবৈধ ভাবে মালয়েশিয়া যাচ্ছিলেন। বাসযোগে শুক্রবার মধ্য রাতে তারা উজানটিয়াস্থ করিমদাদ মিয়াঁর ঘাটে পৌঁছায়। শনিবার ভোররাতে ট্রলারযোগে সাগরপথে রওনা হওয়ার আগমুহূর্তে পেকুয়া থানার এসআই সুমন সরকার নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তাদের আটক করে।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে পেকুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.জাকির হোসেন ভূঁইয়া বলেন, মাছ ধরার ট্রলার যোগে সাগর পথে বিপুল পরিমাণ নারী-পুরুষ ও শিশু মালয়েশিয়া যাওয়া জন্য উজানটিয়া ইউনিয়নের করিমদাদ মিয়ার ঘাটে প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। খবর পেয়ে শুক্রবার রাতে সেখানে অভিযান চালিয়ে ঘটনাস্থল থেকে ২৩ জন পুরুষ, ২৯জন নারী ও ১৫জন শিশুকে উদ্ধার করা হয়েছে। তবে টলারটি জব্দ সম্ভব হয়নি। আটকের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা কুতুপালং শরনার্থী ক্যাম্প থেকে পালিয়ে এসেছে বলে স্বীকার করেছে।
ওসি বলেন, এ ঘটনায় গতকাল শনিবার থানার এসআই সুমন সরকার বাদি মানবপাচার আইনে থানায় ১১জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা রের্কট করা হয়েছে। অভিযুক্তদের মধ্যে ছয়জন পেকুয়া উপজেলার উজানটিয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা এবং অপর পাঁচজন রোহিঙ্গা নাগরিক। উদ্ধার করা রোহিঙ্গাদের আইনী প্রক্রিয়া শেষে গতকাল দুপুরে রোহিঙ্গা শরনার্থী ক্যাম্পে প্রেরণ করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*