চাঞ্চল্যকর ইমন হত্যা মামলার আসামীদের রিমান্ডে নেয়ার দাবী

শফিউল্লাহ শফি, কক্সবাজার:

কক্সবাজারের উখিয়ার ভালুকিয়া ও নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার নিকটস্থ ঘুমধুমের যুবলীগ নেতা চাঞ্চল্যকর ইমন হত্যা মামলার এজাহারভূক্ত পাঁচ আসামীকে জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণ করেছেন বান্দরবান জেলা দায়রা জজ আদালত-১। পাশাপাশি পলাতক ২ আসামী সমিরন বড়ুয়া ও শাহাজান ড্রাইভারের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে এ আদালত। এদিকে জেল হাজতে যাওয়া আসামীদের রিমান্ডে নিয়ে এই চাঞ্চল্যকর ও বর্বর হত্যাকান্ডের মূল রহস্য বের করার দাবী জানিয়েছেন যুবলীগ নেতা নিহত ইমনের মুক্তিযোদ্ধা পরিবার। ৯জুন এই হত্যা মামলার ৭ আসামী আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে জেলা জজ মো. ইসমাইল জামিন আবেদন নাকচ করে এই আদেশ দেন। কারাগারে প্রেরণ করা আসামীরা হল ইমন হত্যার মূল হোতা ও মামলার প্রধান আসামী সাবেক চেয়ারম্যান দীপক বড়ুয়া দিপু (৪০), বাবুল বড়ুয়া (৪৮), প্রদ্বীপ বড়ুয়া শিবু (৫২), রুপন বড়ুয়া ( ৪৪) ও মোঃ করিম (৪০)। মামলার এজাহারে প্রকাশ বিগত ২৪ এপ্রিল বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুমে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও বর্তমান যুবলীগ নেতা মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান ইমন বড়ুয়া (৩৫) গাছ চিরাই করতে ঘুমধুম ইউনিয়নের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান দীপক বড়ুয়ার মালিকানাধীন স’মিলে গেলে জমির বিরোধের জেরে আসামীরা দলবল নিয়ে ইমনের উপর হামলায় চালায়। এক পর্যায়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে এবং লাঠি দিয়ে পিঠিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। পরে স্থানীয় লোকজন মূর্মর্ষূ অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে উখিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। এই সময় দায়িত্বরত চিকিৎসক তার শারীরিক অবস্থার অবণতি দেখে চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে রেফার করলে নেয়ার পথে ইমন বড়ুয়া মারা যায়। এই ঘটনায় ইমন বড়ুয়ার বড় বোন তান্নি বড়ুয়া বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।
এই চাঞ্চল্যকর ইমন হত্যা মামলার এজাহার ভূক্ত আসামীরা আদালতে আত্মসর্মপন করে জামিনের আবেদন জানালে আদালত ৭ জনের মধ্যে পাঁচ জনকে কারাগারে পাঠান। হত্যাকান্ডের আসামীদের কারাগারে পাঠানোর খবরে এলাকার সাধারণ জনগন আনন্দ মিছিল বের করেন ও হত্যাকারিদের সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসি দাবি করেন। পাশাপাশি নিহত ইমনের মা পুতুল রাণী বড়ুয়া এবং মামলার বাদী বড় বোন তান্নি বড়ুয়া হত্যাকারিদের রিমান্ডে নিয়ে হত্যার মূল রহস্য বের করার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি জোর দাবী জানান। মামলার ব্যাপারে বাদী পক্ষের আইনজীবি মুহাম্মদ আবু তালেব বলেন, এই হত্যাকান্ড বর্বরতার শেষ দৃষ্টান্ত। ইমনকে অমানবিকভাবে কুপিয়ে এবং পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। বিষয়টি মাননীয় আদালত ভালভাবে আমলে নিয়ে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের কারাগারে পাঠিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*