কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভ সড়কের গাড়ি চলছে সমুদ্রে


শফিউল্লাহ শফি, কক্সবাজার: কক্সবাজারের পাথুরে বীচ ইনানী ও পাহাড়ী ঝর্ণা হিমছড়িসহ পর্যটন স্পট দরিয়ানগর ভ্রমনে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে পর্যটকসহ স্থানীয়রা। মূলত কলাতলীর-মেরিন ড্রাইভ সংযোগ সড়কের সংস্কার কাজ কচ্ছপ গতিতে চলার কারনে এই ভোগান্তির সৃষ্টি হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠেছে। সড়কটির সংস্কার কাজের জন্য কক্সবাজার পৌরসভা তিন বার সময় বেঁধে দিলেও বর্তমানে চার মাস পেরিয়ে গেছে। যেকারনে ভোগান্তি কাটছেনা এই রুট দিয়ে যাতায়তকারি স্থানীয় লোকজন, দেশী বিদেশী পর্যটকসহ হরেক রকম যানবাহন ও পরিবহনের। তবে ভোগান্তির মাত্র দিন দিন বাড়লেও সেদিকে নজর নেই সংশ্লিষ্টদের। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কলাতলীর-মেরিন ড্রাইভ সংযোগ সড়কের সংস্কার কাজের জন্য বন্ধ থাকায় বিকল্প সড়ক হিসেবে হরেক রকম যানবাহন ও পরিবহন চলছে সমুদ্র সৈকতের বালিয়াড়ি দিয়ে। এই বালিয়াড়ির উপর গাড়ির অতিরিক্ত চাপ বেড়ে যাওয়ায় সেদিকেও ঘটছে হরদম দুর্ঘটনা। এছাড়া সাগরের জোয়ার ভাটার উপর নির্ভর করে চলছে মানুষ ও যানবাহন এবং পরিবহনের চলাচল। কারন জোয়ারের সময় বালিয়াড়ি সাগরে ডুবে যাওয়ার কারনে কোন প্রকার যানবাহন চলাচল করতে পারেনা। ওই সময় ভাটার জন্য দীর্ঘ ৫ থেকে ৬ ঘন্টা রাস্তার উপর সময় কাটাতে হয় যানবাহন চালকদের। এই সব ভোগান্তি থাকলেও বালিয়াড়ি দিয়ে প্রতিনিয়ত যানবাহন, পরিবহন চলাচল অব্যাহত থাকায় নষ্ট হচ্ছে জীববৈচিত্র ও সামুদ্রিক পরিবেশ। কক্সবাজার পৌরসভার সূত্রমতে, সড়কটির সংস্কার কাজ করতে গত ২ ফেব্রুয়ারি তিনমাসের জন্য এ সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখতে একটি গণবিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। এসময় ভ্রমণে আসা পর্যটক, রোহিঙ্গা শিবিরে কর্মরত এনজিও সংস্থার যানবাহন শহরের লিংক রোড থেকে কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কের কোর্টবাজার হয়ে মেরিন ড্রাইভ সড়ক ব্যবহারের অনুরোধ জানানো হয়। কিন্তু সেই অনুরোধ যেমন বাস্তবায়ন হয়নি। ঠিক তেমনি তিনমাস সময় পেরিয়ে চার মাস পার করলেও এখনো ৫০ শতাংশ কাজও সম্পন্ন করতে পারেনি পৌর কর্তৃপক্ষ। ফলে ভ্রমণে আসা পর্যটক ও স্থানীয়দের ভোগান্তির শেষ নেই। প্রকল্প সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলী ও কক্সবাজার পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী টিটন দাশ বলেন, ড্রেনের জন্য জমি নিয়ে জটিলতা ও বারবার ডিজাইন পরিবর্তনের কারণে সঠিক সময়ে কাজটি সম্পন্ন করা যাচ্ছে না। প্রকৌশলী টিটন দাশ আরও বলেন, এখন পর্যন্ত প্রকল্পের প্রায় ৫০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। আশা করছি, আগামী এক মাসের মধ্যে পুরোপুরি কাজ সম্পন্ন হবে। স্থানীয় ইঞ্জিনিয়ার মো. জালাল উদ্দিন প্রমি বলেন, এই সড়কটির সংস্কার কাজ যদি জরুরি ভিত্তির আওতায় নিয়ে করা হত তাহলে সর্বোচ্ছ দেড় মাসের বেশি সময় লাগত না। মূলত কাজে অবহেলা ও সড়কটির গুরুত্ব বিবেচনা না করায় এই বেহাল পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় সাংবাদিক আহমদ গিয়াস বলেন, আমার বসতি এই পর্যটন এলাকার দরিয়া নগরে। তাই এখান থেকে শহরের দিকে যেতে আগে সাগরের জোয়ার ভাটা দেখতে হয়। অন্যথায় পাড়ে হেঁটে দেড় কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে হয়। তিনি বলেন, মূলত পর্যটন বিকাশের জন্য মেরিন ড্রাইভ সড়কটি তৈরি করা হলেও এখন রোহিঙ্গা ক্যাম্পের কারণে এ সড়কের গুরুত্ব হাজার গুণ বেড়ে গেছে। ক্যাম্পে কর্মরত দেশি-বিদেশি সংস্থার প্রতিদিন প্রায় ১২শ প্রাইভেটকারসহ শত শত যানবাহন এখন সাগরের বালুচর দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। তাই প্রায় ঘটছে দুর্ঘটনা। কিছুদিন আগে দেখা গেছে একটি পাথর বোঝাই ট্রাক সাগরের পানিতে রীতিমতো ভাসছে। বালুচরে আটকে পড়ার পরে একপর্যায়ে জোয়ার চলে আসায় ট্রাকটি সাগরের পানিতে ভেসে যায়। পরে ভাটা হলে ট্রাকের ভাঙা বডি উদ্ধার করা হয়। এর আগে আটকা পড়ে একটি মাছের পোনা বোঝাই ট্রাক। এমন দৃশ্য প্রায় প্রতিদিনের। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান আসাদ এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী আসাদুজ্জামান সাংবাদিকদের বলেন, দু’টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কলাতলী সড়কের সংস্কার কাজ করছে। আমার আওতাভুক্ত ২শ মিটার আরসিসি ঢালাইয়ের কাজ ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। পৌরসভার মেয়র মুজিবুর রহমান সড়কের কাজ পরিদর্শনে দিয়ে বলেন, অধিক যান চলাচল ও দীর্ঘদিন সংস্কার না হওয়ায় পর্যটন নগরের অতি গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কের বেহালদশা হয়েছে। ছোটখাটো দুর্ঘটনা ঘটছে প্রতিদিন। তাই সড়কটি জরুরিভিত্তিতে সংস্কারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল। কাজ দ্রুত শেষ করতে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*