পাহাড়ের পাদদেশে বর্ষা মৌসুমে ফের প্রাণহানির আশংকা

নিজস্ব প্রতিবেদক: নাম আবদু সালাম। বয়স ৭০ এর কাছাকাছি। দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পরিবারের সকলকে নিয়ে বসবাস করছে কক্সবাজার শহরের বৈদ্যঘোনাস্থ জাদি পাহাড়ে। বর্ষা মৌসুমে ভারী বর্ষণের ফলে একাধিকবার পাহাড় ধ্বসের ঘটনা ঘটলেও এখনো যাবার কোন জায়গা না পেয়ে অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় পরিবার পরিজন নিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় পাহাড়ী এলাকায় বসবাস করে আসছেন আবদু সালাম।
শুধু আবদু সালাম নয় তার মত হাজার হাজার মানুষ রয়েছে যারা শহরের বিভিন্ন পাহাড়ী এলাকায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছে। অথচ প্রতিবছরই পাহাড়ী এলাকাগুলোতে ভারী বর্ষণের ফলে পাহাড় ধ্বসের ঘটনা ঘটে প্রাণ যাচ্ছে অনেকের। পাশাপাশি লক্ষ লক্ষ টাকার সম্পদও ক্ষতি সাধন হচ্ছে। সর্বশেষ গত বছর শহরের লাইট হাউজ, ঘোনারপাড়া, কলাতলীসহ একাধিক স্থানে পাহাড় ধ্বসের ঘটনায় একাধিক লোক মারা যায়। বছরের পর বছর পাহাড় ধ্বসের ঘটনায় প্রাণহানির সংখ্যা বাড়লেও ঘুম ভাঙ্গছে না ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারীদের।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসন, বন বিভাগ, পৌর কর্তৃপক্ষসহ সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরের পক্ষ থেকে পাহাড়ে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারী নিরাপদে সরিয়ে আনার উদ্যোগ নেয়া হলেও তাতে রাজী হয় না বেশীর ভাগ ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারীরা।২ জুলাই সরেজমিনে শহরের ঘোনারপাড়া, বৈদ্যঘোনা, পাহাড়তলী, ইসলামপুর, জাদিপাহাড়, দক্ষিণ ঘোনারপাড়া, বাদশা ঘোনা, মোহাজের পাড়া, লাইট হাউসসহ বিভিন্ন স্থান গিয়ে দেখা গেছে এর বাস্তব চিত্র। ফলে চলতি বর্ষা মৌসুমের অঝড় ধারার বৃষ্টিতে ফের প্রাণহানির সম্ভাবনা রয়েছে শত ভাগ। কিন্তু প্রচন্ড বৃষ্টি দিলে যে, পাহাড় ধ্বসে প্রাণহানি হবে, তা না পাহাড় কাটার ফলে অল্প বৃষ্টিতেও অনেক সময় তার প্রতিফলন পেতে পারে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারীরা। তা তারা জানে, কিন্তু তবুও ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ী এলাকায় বছরের পর বছর বসবাস করে আসছে হাজার হাজার মানুষ। প্রতিবছর বর্ষা মৌসুমে শহরের বিভিন্ন জায়গায় জেলা প্রশাসন ও পৌর কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলোতে মাইকিংসহ বিভিন্নভাবে জনসচেতনতা বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়া হলেও এ বছর তেমন কোন উদ্যোগ চোখে না পড়লেও শীঘ্রই উদ্যোগের কথা জানালেন সংশ্লিষ্টরা।
কক্সবাজার সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহরিয়ার মোক্তার বলেন, সমসময় প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় নানা পদক্ষেপ নেয়া হয়। বর্ষা মৌসুমেও পাহাড়ী এলাকা থেকে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারীদের নিরাপদে সরিয়ে আনতে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এএইচএম মাহফুজুর রহমান বলেন, যেকোন প্রাকৃতিক দুর্যোগের বিষয়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা নেয়া হয়। যদি বৃষ্টি বৃদ্ধি পায় তাহলে পাহাড়ী এলাকায় ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারীদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
অন্যদিকে বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (দক্ষিণ) মো. হুমায়ুন কবির বলেন, পাহাড়ী এলাকায় ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারীদের সরিয়ে নিতে প্রশাসনের সাথে সমন্বয় করে কাজ করে থাকে বনবিভাগ। কিন্তু ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারীদের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি না হওয়ায় তারা সরে আসে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*