উপকূলে বেড়েছে ইয়াবা কারবার


নিজস্ব প্রতিবেদক: সড়কপথে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কড়াকড়ির কারণে সাগরপথে পাচার হচ্ছে ইয়াবা’র বড় বড় চালান। প্রতিনিয়ত আটকও হচ্ছে ইয়াবার চালান। সাগর উপকূলীয় এলাকা হওয়ায় কক্সবাজার সদর উপজেলার খুরুশকুল ও চৌফলদ-ী হয়ে উঠেছে বিশাক্ত মাদক ইয়াবা পাচারের নতুন ঘাট। আর এর নেতৃত্বে রয়েছে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রভাবশালীরা। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শুধু কক্সবাজার সদরের চৌফলদ-ী নয়, খুরুশকুল, পিএমখালী, বাংলাবাজার, মহেশখালী উপজেলার বড়মহেশখালী, কালারমারছড়া, হোয়ানক, পেকুয়ার মগনামাসহ বিভিন্ন উপকূলীয় এলাকার কোনো না কোনো পয়েন্ট দিয়ে ইয়াবার বড় বড় চালান প্রবেশ করে। পরে সেগুলো লবণ ও মাছের ট্রাকে করে চলে যায় চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষীপুর, কুমিল্লা, ঢাকা, নারায়গঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায়। আর এসব পাচার চক্রে রয়েছে একঝাঁক প্রভাবশালী ও ব্যবসায়ী। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর দেয়া তথ্য অনুযায়ী, এসব চক্রে নেতৃত্বে রয়েছে চৌফলদ-ীর রাসেল মেম্বার, গিয়াস উদ্দিন ও জিয়াবুল হক, খুরুশকুলের চিহ্নিত কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি। তাদের নেতৃত্বে পুরো উপকুলজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে ইয়াবা। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, লবণ ব্যবসায়ী থেকে ইয়াবার হাত ধরে কোটিপতি হয়ে উঠে গিয়াস উদ্দিন। লবণের ট্রাকে করে দেশের বিভিন্ন স্থানে যায় তার ইয়াবার চালান। তার সাথে রয়েছে দিদার, হোসেন ও মইনু। আর গিয়াসকে টেকনাফ থেকে ইয়াবার চালান পাঠায় জনৈক ইনু আক্তার। রাসেল মেম্বার নিয়ন্ত্রণে কাজ করে সিকদার পাড়ার ইমরান, উত্তর পশ্চিম পাড়ার জিয়াবুল হক। আর কিউবা রাখাইনের রয়েছে বড় একটি সিন্ডিকেট। এছাড়াও তিনি তালিক্তাভুক্ত মাদক কারবারি। এসব অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে রয়েছে কক্সবাজারের বিভিন্ন থানায় মানবপাচার, ইয়াবা পাচারসহ আরও একাধিক মামলা। এলাকাবাসী বলছে, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কিছু অসাধু সদস্যদের ম্যানেজ করে চলছে এসব ইয়াবা পাচার। তাদের সহযোগিতায় সাগরপথে চালান এনে চৌফলদ-ী ব্রিজ হয়ে খামার পাড়ার পূর্বে ঝাম মিয়ার ঘোনায় আস্তানা স্থাপন করে। সেখানে ইয়াবা ব্যবসায়ী ও সেবনকারীদের জন্য আলাদা ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। অভিযুক্ত রাসেল মেম্বার বলেন, আমি ইয়াবা ব্যবসা করি না। মানব পাচার, ইয়াবা পাচারের বিরুদ্ধে কাজ করি। প্রশাসনকে বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করে আসছি। কিন্তু কিউবা রাখাইনের একটি চালানের খবর প্রশাসনকে জানিয়ে দেয়ায় আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। তিনি বলেন, চৌফলদ-ীর মাদক কারবারিদের বিরুদ্ধে আমি সোচ্চার বলে আমাকে ফাঁসানো হচ্ছে। সম্প্রতি একটি ইয়াবার চালান প্রবেশের খবর কক্সবাজার সদর থানায় জানাই। ঐ সময় পুলিশ আসলে মাদক পাচারকারিরা পালিয়ে যায়। এরপর থেকে ঐসব মাদক ব্যবসায়ীরা আমার বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লেগেছে। এদিকে খুরুশকুল ইউনিয়নের কোনার পাড়ার আবছার উদ্দিন, টাইমবাজারের জসিম উদ্দিন, আইয়েস মিয়া, তেতৈয়ার নুরু ইসলাম, আদর্শগ্রামের ময়না বাসিসহ একটি সিন্ডিকেট প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে বেপরোয়াভাবে ইয়াবা কারবার চালিয়ে আসছে বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। এনিয়ে কক্সবাজারে র‌্যাব-১৫ এর সিপিএসসি কমান্ডার মেজর মেহেদী হাসান বলেন, র‌্যাব কক্সবাজার শহরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান জোরদার করেছে। প্রতিনিয়ত বড় বড় চালান আটক হচ্ছে। তবে সাগর উপকূলীয় এলাকাগুলোতেও বাড়তি নজর রাখছে র‌্যাব। কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন বলেন, শুধু একটি এলাকা নয়, জেলার প্রত্যেক এলাকায় পুলিশের অভিযান চলছে। এ অভিযান অব্যাহত থাকবে। তিনি আরও বলেন, টেকনাফে যে অভিযান চলমান রয়েছে, সে ধরনের অভিযান উপকুলীয় এলাকাগুলোতেও চালানো হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*