কক্সবাজারে পাহাড় ধসের আশঙ্কা


শফিউল্লাহ শফি: এক সপ্তাহের টানা বৃষ্টি ও জোয়ারের পানিতে কক্সবাজার জেলার বিভিন্ন উপকূলীয় এলাকায় প্লাবনের সৃষ্টি হয়েছে। এতে হরেক রকম ক্ষেত ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ডুবে গেছে চলাচলের রাস্তা। পাশাপাশি হুমকির মুখে পড়েছে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সিংহভাগ ঝুপড়ি ঘর এবং জেলার বিভিন্ন স্থানের পাহাড়ের পাদদেশে বসবাসকারিরা। যেকোন মুর্হতে পাহাড় ধসের আশংকা করছেন স্থানীয়রা। ফলে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিচু এলাকার লোকজনও পাহাড়ের পাদদেশে বসবাসকারিদের নিরাপদে সরে যেতে মাইকিং করা হচ্ছে। সূত্রমতে, গত এক সপ্তাহ ধরে ভারী বর্ষণ ও ঝড়ো বাতাসে জেলা শহরসহ বিভিন্ন উপজেলায় পাহাড় ধসের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। যেকোনো মুহূর্তে ঘটতে পারে পাহাড় ধস ও প্রাণহানির ঘটনা। এ আশঙ্কায় পাহাড়ের পাদদেশ বা চুঁড়ায় ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারিদের নিরাপদ আশ্রয়স্থলে সরে যেতে নির্দেশ দিয়ে মাইকিং শুরু হয়েছে। স্বেচ্ছায় না সরলে অভিযানের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে হুঁশিয়ারিও দেয়া হচ্ছে প্রশাসনের পক্ষ থেকে। এদিকে টানা বৃষ্টি ও জোয়ারের পানিতে প্লাবনের শিকার হয়েছেন দ্বীপ উপজেলা কুতুবদিয়া, মহেশখালীর ধলঘাটা ও কক্সবাজার সদরসহ চকরিয়া এবং পেকুয়া উপজেলার অন্তত ২০টির অধিক গ্রাম। এদিকে জেলা প্রশাসনের সূত্র মতে, সোমবার (৮ জুলাই) সকাল থেকে পাহাড়ের পাদদেশে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসরত জনসাধারণকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরে যেতে মাইকিং করা হয়। বিশেষ করে শহরে পাহাড় বেষ্টিত লাইট হাউস পাড়া, ঘোনার পাড়া, বাদশা ঘোনা, কবরস্থান পাড়া, পাহাড়তলী, সাহিত্যিকা পল্লী, সার্কিট হাউস পাড় এলাকাসহ পাশবর্তী এলাকায় ঝুঁকিতে থাকা লোকজনদের নিরাপদে সরে যেতে বলা হয়। নিজেরা সরে না গেলে আইন প্রয়োগের মাধ্যমে সরিয়ে নেয়ারও হুশিয়ারি দেন। কক্সবাজার সদর ভূমি কর্মকর্তা (্এসিল্যান্ড) শাহরিয়ার মোকতার সাংবাদিকদের জানান, জেলা প্রশাসকের নির্দেশে জেলার ঝুঁকিপূর্ণ সব এলাকায় মাইকিং করে মানুষকে নিরাপদ স্থানে যেতে বলা হয়েছে। কক্সবাজার আবহাওয়া অধিদফপ্তরের সহকারি আবহাওয়াবিদ আবদুর রহমান বলেন, বঙ্গোপসাগরে বর্তমানে ৩ নম্বর সতর্কতা সংকেত চলছে। গত মঙ্গলবার থেকে শুরু হওয়া ভারী বৃষ্টিপাত জেলায় আরও কয়েকদিন স্থায়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকলে পাহাড় ধসের আশংকা রয়েছে। কক্সবাজার বন বিভাগের টেকনাফ রেঞ্জ কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন জানান, উখিয়া-টেকনাফে পাহাড় কেটে রোহিঙ্গাদের জন্য আবাস গড়া হয়েছে। নির্বিচারে পাহাড় ন্যাডা করে বাসা করায় এখানেই পাহাড় ধসের আশঙ্কা বিরাজ করছে। এদিকে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, পাহাড় ধসে প্রাণহানি ঠেকাতে কক্সবাজার পৌরসভার অধীনে ৬টি ওয়ার্ডে ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাসকারী হাজারো পরিবারকে চিহ্নিত করা হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে মাইকিং করে তাদেরকে সরে যেতে বলা হয়েছে। এরপরেও যদি সরে না যায় তাহলে বৃষ্টিপাতের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করে ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাসকারীদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*