অনিয়ম-দুর্নীতির আখড়া আরএইচস্টেপ - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২ ১২ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বুধবার

প্রকাশ :  ২০২১-১২-১২ ০৯:২৫:২১

অনিয়ম-দুর্নীতির আখড়া আরএইচস্টেপ

অনিয়ম-দুর্নীতির আখড়া আরএইচস্টেপ
Spread the love
নিউজ  ডেস্ক  : দেড় বছরের বেশি সময় ধরে একজন ভুঁয়া ডাক্তার দিয়েই আলট্রাসনোগ্রাফি করে সেবা দিয়েছে আরএইচস্টেপ নামের এক এনজিও। কোন প্রকার ডিগ্রি বা সার্টিফিকেট ছাড়াই চাকরী দিয়ে সেই এনজিওর ডাক্তার হিসাবেই কাজ করে শহরের বিভিন্ন জায়গায় চেম্বার খোলার সুযোগ পেয়েছে ভুঁয়া ডাক্তার ডি বি শর্মা।
এতে উক্ত ভুয়া ডাক্তারের হাতে প্রতারিত হওয়া অসংখ্য গাইনী রোগি এখন বিচলিত হয়ে পড়েছে একই সাথে আরএইচস্টেপ নামের সেই এনজিওর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী জানিয়েছে তারা। এদিকে ভুঁয়া ডাক্তারকে কিভাবে নিয়োগ দেওয়া হলো সেই তথ্য অনুসন্ধান করতে গিয়ে বেরিয়ে আসছে আরো অনেক বড় অনিয়ম দূর্নীতির তথ্য। যা রীতিমত অবাক করছে সবাইকে। ৯ ডিসেম্বর কক্সবাজার শহরের খানাকাহ রোড়স্থ চেম্বার থেকে র‌্যাবের হাতে আটক হন ভুঁয়া এমবিবিএস ডাক্তার দিপংকর বিনোদ
শর্মা প্রকাশ ডি বি শর্মা নামের একজন।
তিনি মহেশখালী উপজেলার বড় মহেশখালী ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের জগদিশ চন্দ্র শর্মার ছেলে। ভুঁয়া এমবিবিএস ডাক্তার আটক হওয়ার খবর গণমাধ্যমে প্রকাশ হলে বিচলিত হয়ে উঠে সাধারণ মানুষ। কক্সবাজার র‌্যাব-১৫ এর বরাতে জানা গেছে, উক্ত ভুঁয়া ডাক্তারের কাছে কোন প্রকাশ ডিগ্রি বা সার্টিফিকেট নেই। তিনি মূলত দীর্ঘদিন ধরে প্রতারণা করে আসছিলেন।
এদিকে আটক ডি বি শর্মার ভিজিটিং কার্ডে দেখা গেছে তিনি কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের চিকিৎসক এবং সনোলজিষ্ট।
পরে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে তিনি দীর্ঘ দিন ধরে জেলা সদর হাসপাতালে নীচ তলায় অবস্থিত আরএইচস্টেপ নামের একটি এনজিওতে চাকরী করেন। সেখানে ডাক্তার পরিচয়ে আলট্রাসনোগ্রাফি করতেন। সেখানে আসা মহিলা রোগিদের তিনি নানান ভাবে বুঝিয়ে আর প্রাইভেট চেম্বারে এনে চিকিৎসার নামে প্রতরণা সহ বিপুল টাকা আত্মসাৎ করতেন। আর এই কাজের সাথে সরাসরি জড়িত ছিলেন আরএইচস্টেপের বেশ কয়েকজন কর্মচারী। এ ব্যাপারে আরএইচস্টেপ কক্সবাজার শাখার অফিস প্রধান কাজী ছানাউল ইসলাম বলেন, মূলত ২০২০ সালে করোনার সময় কোন আলট্রাসনোগ্রাফি করার ডাক্তার পাচ্ছিলাম না। তখন প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র দেখে উনাকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল কিন্তু উনার কাগজ পত্র যে ভুঁয়া সেটা আমরা প্রথমে বুঝতে পারিনি,পরে ধারনা করতে পারলে আমরা উনাকে বাদ দেওয়ার চিন্তায় ছিলাম।

 

আরএইচস্টেপে কর্মরত ডাঃ তাহসিন তাহা বলেন, আমি এখানে নিয়মিত রোগী দেখি। ডি বি শর্মা শুধু আলট্রাসনোগ্রাফি করতেন। কিন্তু উনার রিপোর্ট প্রায় সময় আমার সন্দেহ হতো, সেটা আমি কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছিলাম, আর বেশি সমস্যা হলে আমি ঔষধ লেখার আগে আবারো জেলা সদর হাসপাতালের অভিজ্ঞ ডাক্তার দিয়ে আলট্রাসনোগ্রাফি করাতাম। সে হিসাবে বুঝা যায় আরএইচস্টেপ কর্তৃপক্ষ অনেকটা জেনেই না জানার ভান করেছিল। এদিকে আরএইচস্টেপ এনজিওর কর্মকান্ড নিয়ে জানাতে গিয়ে উঠে আসে আরো অনেক বড় দূর্নীতি।
শহরের কুতুবদিয়া পাড়া এলাকার এক মহিলা জানান, কিছুদিন আগে আমি সদর হাসপাতালে এমআর করাতে গেলে সেখানে সেই এনজিওতে নিয়ে যাওয়া হয় সেখানে আমার কাছ থেকে ৩ হাজার টাকা নেওয়া হয়েছে। টাকা নিয়েছি ফরিদা ইয়াছমিন (মুন্নী) নামের কর্মচারী। কিন্তু আমি পরে জানতে পেরেছি সেখানে এমআর করতে ৩২০ টাকা খরচ হয়। পরে আমি সেই মুন্নীর কাছে জানতে চাইলে তিনি আমার সাথে খারাপ ব্যবহার করেন। তার কাছ থেকে মোবাইল নাম্বার নিয়ে খুরুশকুলের নাছিমা আক্তার নামের এক মহিলার সাথে কথা বলে জানা গেছে সদর হাসপাতালের আরএইচস্টেপ কেন্দ্রে সব ধরনের বৈধ অবৈধ সেবা পাওয়া যায়, সুভা বড়ুয়া, নুরুল আলম, আর বাহিরের স্টাফ চিনু, অঞ্জলী, মিনতী সহ অনেকে আছে যারা বিভিন্ন জায়গায় নিয়ে গিয়ে আলট্রাসনোগ্রাফি, ডাক্তার দেখানো, অনিয়মিত বাচ্চা প্রসব সহ সব কাজ করে। বড় বাজার এলাকায় নুরুন্নাহার আপা নামের একজন আছে সেখানে গেলে অবৈধ গর্ভপাত থেকে শুরু করে তারা সবকিছু করিয়ে আনে। বিনিময়ে টাকা দিলেই হয়।
এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন জানান, এখানে কাগজে কলমে দৈনিক ২০/২৫ জন রোগি দেখালেও বাস্তবে অনেক বেশি রোগি আসে, যা এখানকার কর্মকর্তা সহ সবাই মিলেমিশে আত্মসাৎ করে, এছাড়া এনজিওর নির্ধারিত টাকার চেয়ে প্রতিটি পরীক্ষার ফিতে বাড়তি টাকা নেওয়া হয়, তাছাড়া ঔষধ সহ যন্ত্রপাতী সহ অনেক প্রকার অনিয়ম দূর্নীতি হয়ে থাকে। যেখানে সরাসরি কক্সবাজারের অফিস প্রধান সহ ঢাকার এক সাহেব জড়িত আছেন।
এ ব্যাপারে আরএইচস্টেপ এনজিওর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের উপ নির্বাহী পরিচালক আশিকুল ইসলাম জানান, আমাদের কক্সবাজার কেন্দ্রের ডাক্তারকে র‌্যাব আটক করেছে সেটা আমি জানিনা। এখন শুনলাম আর অন্যান্য অনিয়ম দূর্নীতির বিষয়ে আমি খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।
এ ব্যাপারে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডাঃ মুমিনুর রহমান বলেন, আমি নতুন এসেছি। কিন্তু বিষয়টি জেনে আমি নিজেই অবাক হয়েছি। আরএইচেস্টেপ এনজিওকে বলে দিয়েছি এ ধরনের কাজ যাতে আর না হয়। তারা ভুল করে ভুঁয়া ডাক্তার নিয়োগ দিয়েছিল এটা সত্য। সূত্র- দৈনিক কক্সবাজার।

আরো সংবাদ