আজ বিমানবন্দরের রানওয়ে উদ্ধোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৮-২৮ ১৫:২৩:৪৫

আজ বিমানবন্দরের রানওয়ে উদ্ধোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

কক্সবাজার হবে বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ সৈকত ও পর্যটনকেন্দ্র আজ বিমানবন্দরের রানওয়ে উদ্ধোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
Spread the love

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার :  কক্সবাজার বিমানবন্দরে বর্তমানে ৯ হাজার ফুট দীর্ঘ একটি রানওয়ে রয়েছে। এটি ১০ হাজার ৭০০ ফুটে উন্নীত করার কাজ চলছে। এর মধ্যে এক হাজার ৩০০ ফুট থাকবে সমুদ্রের মধ্যে। কক্সবাজার বিমানবন্দরের মহেশখালী চ্যানেলের দিকে জমি অধিগ্রহণের মাধ্যমে স¤প্রসারিত হচ্ছে এই রানওয়ে। এছাড়াও দেশি-বিদশি থেকে আগত পর্যটকরা সরাসরি ফ্লাইটে আসতে পারবেন কক্সবাজার বিমানবন্দরে। ইতোমধ্যে বিমানবন্দরটি আন্তর্জাতিক মানে রূপান্তরিত হচ্ছে। এ জন্য বিমানবন্দরে নতুন টার্মিনাল ভবন নির্মাণ, রানওয়ে স¤প্রসারণ ও শক্তি বৃদ্ধি, এয়ারফিল্ড গ্রাউন্ড লাইটিং সিস্টেম স্থাপনসহ অন্যান্য কাজ শুরু হতে যাচ্ছে। আজ ২৯ আগস্ট ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ স¤প্রসারণ কাজের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শুক্রবার (২৭ আগস্ট) বিকেলে কক্সবাজার বিমানবন্দরে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি দেখতে কক্সবাজারে আসেন বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান।

এ সময় তিনি বলেন, প্রথমে ৯ হাজার ফুট থেকে আরও তিন হাজার ফুট সমুদ্র কূলে রানওয়ে স¤প্রসারণের কথা ছিল। কিন্তু অনেক গবেষণা ও কক্সবাজারের পরিবেশের কথা চিন্তা করে রানওয়ে ১ হাজার ৭০০ ফুট স¤প্রসারণের সিদ্ধান্ত হয়।

তিনি আরও বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এটি স¤প্রসারণ করা হচ্ছে। রানওয়ে স¤প্রসারিত হলে দেশের পর্যটনসহ অর্থখাতে ব্যাপক পরিবর্তন আসবে। এটি কক্সবাজারবাসীর জন্য আনন্দের। এছাড়াও এ বিমানবন্দরকে ঘিরে একটি এভিয়েশন হাব তৈরি হবে।

এদিকে রানওয়ে স¤প্রসারণকে ঘিরে নানা রঙে সেজেছে পর্যটন শহর কক্সবাজার। শহরের মোড়ে মোড়ে বসানো হয়েছে এলইডি স্ক্রিন। এতে দেখানো হবে উদ্ধোধনী অনুষ্ঠান। ব্যানার-পোস্টারে ছেয়ে গেছে পুরো কক্সবাজার শহর।

জানাগেছে, কক্সবাজার বিমানবন্দরকে বিশ্বমানের বিমানবন্দরে পরিণত করতে নিজের পরিকল্পনার কথা বিভিন্ন সময়ে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রী দেশি-বিদেশি পর্যটকদের যাতায়াতকে সহজ ও আরামদায়ক করতে বিমানবন্দরটি আধুনিকায়নের নির্দেশ দেন।
সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রীর আগ্রহে কক্সবাজার বিমানবন্দরের রানওয়ে স¤প্রসারণ করা হয়। ইতোমধ্যে রানওয়ের দৈর্ঘ্য ৬৭৭৫ ফুট থেকে ৯ হাজার ফিট এবং প্রস্থ ১২০ ফিট থেকে ২০০ ফিটে উন্নীতকরণ করা হয়েছে। ২০১৭ সালে স¤প্রসারিত রানওয়েতে বিমানের বোয়িং ৭৩৭ উড়োজাহাজ উড্ডয়ন ও অবতরণে উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সে সময় এই বিমানবন্দরের রানওয়ে ৯ হাজার ফিট থেকে ১২ হাজার ফিটে উন্নীতকরণের নির্দেশ দেন শেখ হাসিনা। সেই নির্দেশনা মোতাবেক ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২১ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে কক্সবাজার বিমানবন্দরের রানওয়ে স¤প্রসারণ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। এ জন্য প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয় ৩৭০৯৬০ দশমিক ৮৪ লাখ টাকা। এই প্রকল্পের আওতায় বিমানবন্দরের রানওয়ে ৯ হাজার ফিট থেকে ১০৭০০ ফিটে উন্নীত হবে। এ ছাড়া প্রিসিশন এপ্রোচ ক্যাট-১ লাইটিং সিস্টেম স্থাপন করা হবে। ফলে উড়োজাহাজ পূর্ণ লোডে উড্ডয়ন ও অবতরণ করতে পারবে। যার কারণে বিমানবন্দরের ফ্লাইট সংখ্যার পাশাপাশি যাত্রী পরিবহনের সক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে।

বেবিচক জানিয়েছে, কক্সবাজার বিমানবন্দরের রানওয়ে স¤প্রসারণে কাজ দেওয়া হয়েছে চীনা প্রতিষ্ঠানকে। চলতি বছরের ৯ ফেব্রæয়ারি চীনা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে কক্সবাজার বিমানবন্দর স¤প্রসারণ প্রকল্পের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) সদর দফতরে বেবিচক কর্তৃপক্ষ ও চাংজিয়াং ইচাং ওয়াটারওয়ে ইঞ্জিনিয়ারিং ব্যুরো (সিওয়াইডবিøউইবি)-চায়না সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন কর্পোরেশন (সিসিইসিসি)-জেভি’র মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। কক্সবাজার বিমানবন্দর রানওয়ে স¤প্রসারণ প্রকল্পটি গত ৬ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভায় অনুমোদন প্রদান করেন। ৫ হাজার ১ শ’ ৭৯ কোটি টাকা ব্যয়ে কক্সবাজার বিমানবন্দরে নতুন টার্মিনাল ভবন নির্মাণ, রানওয়ে স¤প্রসারণ ও শক্তি বৃদ্ধি, এয়ারফিল্ড গ্রাউন্ড লাইটিং সিস্টেম স্থাপনের কাজ চলমান রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ ২৯ আগস্ট গুরুত্বপূর্ণ এই বিমানবন্দরের রানওয়ে স¤প্রসারণ প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন। গণভবন থেকে সকাল সাড়ে ১০টায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তিনি যুক্ত হবেন। প্রকল্প কাজের উদ্বোধন সংক্রান্ত সারসংক্ষেপ এরই মধ্যে অনুমোদন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।
এ বিষয়ে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী বলেন, কক্সবাজার সমুদ্র সংলগ্ন বাঁকখালী নদীর অংশে রানওয়েটি স¤প্রসারণ করা হচ্ছে। এ বিমানবন্দরের মাধ্যমে রিজিওনাল হাব গড়ে তুলতে চান প্রধানমন্ত্রী।

প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানান, দেশের পর্যটন শিল্প বিকাশে এবং সমুদ্র উপকূলীয় এলাকায় প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় আকাশ পথে দ্রæত যোগাযোগ স্থাপনের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কক্সবাজার বিমানবন্দর। ২০১৭ সালের ৬ মে এই বিমানবন্দরে বোয়িং ই-৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজ উড্ডয়ন-অবতরণ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। তখন আন্তর্জাতিক ফ্লাইট পরিচালনার জন্য বিমানবন্দরটির রানওয়েকে তিনি ১২ হাজার ফুটে সম্প্রসারণের নির্দেশ দেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত অগ্রাধিকার প্রকল্প হিসেবেই কক্সবাজার বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর করা হচ্ছে। বিদ্যমান রানওয়ের দৈর্ঘ্য ৬ হাজার ৭৭৫ ফুট থেকে ৯ হাজার ফুটে এবং প্রস্থ ১২০ ফুট থেকে ২০০ ফুট করা হবে। সেই সঙ্গে রানওয়ের সক্ষমতা বাড়ানো, এয়ারফিল্ড লাইটিং সিস্টেম স্থাপনসহ আনুষঙ্গিক কাজ করছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)।

জানা যায়, আগামী ৫০ বছরের চাহিদা ও চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় হাতে নেওয়া হয়েছে এই প্রকল্প। ৩ হাজার ৭০৯ কোটি ৬০ লাখ ৮৪ হাজার টাকা ব্যয়ে কক্সবাজার বিমানবন্দর রানওয়ে সম্প্রসারণ প্রকল্পটি ২০১৮ সালের ৪ নভেম্বর অনুমোদন পায়। চীনা দুই প্রতিষ্ঠান যৌথভাবে এ কাজ পেয়েছে। পাশাপাশি বেচিকের নিজস্ব অর্থায়নে সেখানে স্থাপন করা হবে প্রিসিশন অ্যাপ্রোচ ক্যাটাগরি-১ লাইটিং সিস্টেম। তখন সুপরিসর বিমানগুলো পূর্ণ লোডে উড্ডয়ন-অবতরণ করতে পারবে। অর্থাৎ নতুন প্রজন্মের উড়োজাহাজ বোয়িং-৭৭৭-৩০০ ইআর, ৭৪৭-৪০০ ও এয়ারবাসের মতো উড়োজাহাজ সহজেই ওঠানামা করতে পারবে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে। এতে বিমানবন্দরে যাত্রী পরিবহনক্ষমতাও বাড়বে। বৃদ্ধি পাবে ফ্লাইট অপারেশনের সংখ্যা। ভবিষ্যতে কক্সবাজারসংলগ্ন মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়ার মতো দেশের বড় বড় এয়ারলাইন্সের এয়ারক্রাফটও অবতরণ করতে পারবে কক্সবাজারে।

আরো সংবাদ