আবারও সাগরপথে মানব পাচার : বেপরোয়া দালাল চক্র - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪ ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সোমবার

প্রকাশ :  ২০২২-০৩-২৫ ১৪:০৯:১৯

আবারও সাগরপথে মানব পাচার : বেপরোয়া দালাল চক্র

বিশেষ প্রতিবেদক : কক্সবাজারে মানব পাচার চক্রের বিষয়টি বহুল আলোচিত। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা কিছু পাচারকারিকে আইনের আওতায় আনতে সক্ষম হলেও এসব চক্রের বহু সদস্য থেকে যায় ধরাছোঁয়ার বাইরে। কক্সবাজারে বর্তমানে স্থানীয় বাসিন্দারা সাগরপথে ঝুঁকি নিয়ে আর মালয়েশিয়া যেতে চায় না। তাই মানব পাচারে জড়িত দালালরা এবার টার্গেট করেছে রোহিঙ্গাদের। পাশাপাশি সাগরপথে মানব পাচারের পুরানো ঘাট ও দালালরা নানা কৌশলে আবারও সক্রিয় হয়ে উঠেছে।

ইতোমধ্যে আটক দালাল চক্রের সদস্যদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে অবশিষ্ট দালালদের আইনের আওতায় আনতে কাজ করছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

শুক্রবার (২৫ মার্চ) ভোরে কক্সবাজারের টেকনাফ উপকূলে বঙ্গোপসাগরের গভীর থেকে মালয়েশিয়াগামী একটি ট্রলার থেকে নারী ও শিশুসহ ৫৮ রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের সঙ্গে পাচারকারী চক্রের ২ সদস্যকে আটক করে র‌্যাব। এ সময় পাচারকাজে ব্যবহৃত একটি ট্রলার জব্দ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে র‌্যাব-১৫ কক্সবাজার অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল খাইরুল ইসলাম সরকার বলেন, শুক্রবার ভোর সাড়ে ৪টায় টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর উপকূলের গভীর সাগরে অভিযান চালানো হয়। উদ্ধার হওয়াদের মধ্যে ৫৮ জন রোহিঙ্গা এবং দুজন পাচারকারী রয়েছে। এদের মধ্যে ১১ জন শিশু, ২৪ জন নারী ও ২৩ জন পুরুষ। উদ্ধার হওয়া রোহিঙ্গারা উখিয়া ও টেকনাফের বিভিন্ন রোহিঙ্গা ক্যাম্পের আশ্রিত বাসিন্দা।

তিনি আরও বলেন, শুক্রবার ভোরে টেকনাফের শামলাপুর সমুদ্র উপকূল দিয়ে ট্রলারে করে সাগরপথে কিছু সংখ্যক লোকজনকে মালয়েশিয়া পাচার করা হবে এমন খবর পেয়ে র‌্যাবের একটি দল অভিযান চালায়। এক পর্যায়ে গভীর সাগরে সন্দেহজনক একটি ট্রলার দেখতে পেয়ে তাতে অভিযান চালানো হয়।

র‌্যাবের এ কর্মকর্তার বলেন, মানব পাচারকারী দালাল চক্রটি ফাঁদে ফেলে এসব রোহিঙ্গাদের সাগরপথে মালয়েশিয়া পাচার করছিল। উদ্ধার হওয়াদের ছোট ট্রলার থেকে বড় ট্রলারে তুলে দিয়ে মালয়েশিয়া পাচারের উদ্দেশ্য ছিল পাচারকারীদের। আটক দালালরা মানব পাচারকারী চক্রের সক্রিয় সদস্য। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

গেল সোমবার (২১ মার্চ) কক্সবাজারের মহেশখালী সোনাদিয়া দ্বীপ থেকে মালয়েশিয়াগামী ১৩৫ রোহিঙ্গাকে স্থানীয় জনগণের সহযোগিতায় তাদের উদ্ধার করে পুলিশ। রোহিঙ্গাদের নিয়ে মালয়েশিয়াগামী দালাল চক্র সোমবার (২১ মার্চ) ভোরে ট্রলার থেকে সোনাদিয়া সমুদ্র চরে মালয়েশিয়া নিয়ে যাওয়ার জন্য দ্বীপে নিয়ে আসছিল। পরে খবর পেয়ে সকাল থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত মহেশখালী সোনাদিয়া চ্যানেলে তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে তাদের উদ্ধার করা হয়। সেদিন ভোরে তাদেরকে সাগরের তীরে নামিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায় দালাল চক্র।

মহেশখালী থানার ওসি আব্দুল হাই জানিয়েছেন, দালালচক্র সাগর পথে অবৈধভাবে মালয়েশিয়া পাচারের জন্য এসব রোহিঙ্গাকে সোনাদিয়া দ্বীপে নিয়ে আসছিল।

এদিকে শুক্রবার (১১ ফেব্রুয়ারি) ভোরে র‌্যাবের গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়কে তল্লাশি চালিয়ে অন্যতম মানব পাচারকারি ইদ্রিসকে আটকসহ ৭ রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করা হয়। এর মধ্যে ৬ জন নারী ও একজন পুরুষ ছিল। আটক ইদ্রিস চট্টগ্রামের লোহাগাড়া এলাকার আহমদ কবিরের ছেলে।

এ বিষয়ে র‌্যাব-১৫ এর অধিনায়ক খায়রুল ইসলাম সরকার বলেন, পাচারকারীরা প্রলোভনে ফেলে রোহিঙ্গাদের পার্শ্ববর্তী দেশে পাচারের জন্য নিয়ে যাচ্ছিল। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মো. বশর ও সৈয়দ হোসেন আরও দুইজনের নাম জানিয়েছে ইদ্রিস। যারা ইদ্রিসের মানবপাচার চক্রের সদস্য। এই চক্রে কারা কারা জড়িত তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

অনুসন্ধানে জানা যায়, কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের অতি আগ্রহে টার্গেট করেছে পাচারকারী দালাল চক্রের সদস্যরা। তারা প্রতিটি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সক্রিয় রয়েছে। এর আগেও একাধিক সময় টেকনাফ উপকূল দিয়ে মালয়েশিয়ায় মানব পাচার চলেছে। তবে সে সময় রোহিঙ্গাদের পাশাপাশি স্থানীয় বাংলাদেশির সংখ্যাও ছিল চোখে পড়ার মতো।

উদ্ধার হওয়া রোহিঙ্গা নারী সানজিদা বেগম বলেন, মালয়েশিয়ায় আমার বিয়ে ঠিক হয়েছিল। দুই পরিবার মিলে আমাকে স্বামীর কাছে পাঠানোর জন্য ট্রলারে তুলে দিয়েছে। আমাকে বলা হয়েছিল জাহাজে করে নেয়া হবে, কিন্তু এখানে এসে দেখি ঝুঁকিপূর্ণ কাঠের ট্রলারে করে পাঠানো হচ্ছে।
তথ্যসূত্রে দেখা যায়, গত কয়েক মাসের মধ্যে সাগরপথে ট্রলারে চেপে মালয়েশিয়া যাওয়ার সময় এ পর্যন্ত হাজারো রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করেছে বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। তারা সবাই রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা। রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে তথ্য নিয়ে জানা যায়, সাগরপথে মালয়েশিয়াগামী রোহিঙ্গাদের মধ্যে সুন্দরী নারীর সংখ্যা বেশি। মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত রোহিঙ্গা যুবকদের সঙ্গে বিয়ে দিতে দালালরা সুন্দরী নারীদের টার্গেট করে বিভিন্ন প্রলোভনের মাধ্যমে সেদেশে পাচার করছে।

এছাড়া অনেক বিবাহিত নারীও তাদের শিশু সন্তানসহ সেখানে স্বামীর কাছে যাওয়ার জন্য দালালদের কাছে ধর্না দিচ্ছে। উখিয়ার তাজনিমার খোলা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা আবদুল নবী বলেন, আগে স্থানীয় দালালদের সহযোগিতায় অনেক রোহিঙ্গা পাসপোর্ট তৈরি করে বাংলাদেশি সেজে আকাশপথে মালয়েশিয়াসহ মধ্যপাচ্যের বিভিন্ন দেশে পাড়ি দিয়েছিল। কিন্তু স¤প্রতি রোহিঙ্গারা যেনো কোনো পাসপোর্ট করতে না পারে সে বিষয়ে সরকারের কঠোর নজরদারি রয়েছে। ফলে অবৈধ ভাবে সাগরপথে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মালয়েশিয়া যেতে রাজি হচ্ছে তারা।

তিনি আরও বলেন, প্রতিটি ক্যাম্পে মালয়েশিয়া পাচারকারী দালাল চক্রের সদস্যরা ফের সক্রিয় হয়ে উঠেছে। দালালরা প্রথমে কম টাকার বিনিময়ে মালয়েশিয়া পৌঁছে দেয়ার কথা বললেও পরে মাঝপথে গিয়ে স্বজনদের কাছে পৌঁছানোর আগে হাতিয়ে নেয় মোটা অংকের টাকা। এই টাকা দিতে ব্যর্থ হলে দালালরা বিভিন্ন ধরনের নির্যাতনের পথ বেছে নেয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক টেকনাফ লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বসবাসরত বেশ কয়েকজন রোহিঙ্গা জানান, সাগরপথে মালয়েশিয়ায় মানবপাচারে সক্রিয়ভাবে জড়িত রোহিঙ্গা দালাল চক্র। তাদের সঙ্গে এই অপকর্মে স্থানীয় কিছু অর্থলোভী অসাধু ব্যক্তিও রয়েছে।

টেকনাফ উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল আলম বলেন, বাংলাদেশ থেকে সাগরপথে মানব পাচার কমে এসেছিল। কিন্তু বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গা নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে যে যেভাবে পারছে মালয়েশিয়ার উদ্দেশে পাড়ি দিচ্ছে।

উখিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান হামিদুল হক চৌধুরী বলেন, রোহিঙ্গাদের কারণে মানব পাচারের বদনাম থেকে বাংলাদেশ বের হতে পারছে না। তিনি বলেন, জাতিসংঘের অভিবাসন সংস্থা আইওএমসহ অন্তত ডজনের বেশি দেশি-বিদেশি সেবা ও সাহায্য সংস্থা রোহিঙ্গাদের পাচার প্রতিরোধে কাজ করছে। কিন্তু অভিযোগ রয়েছে রোহিঙ্গা নারী ও শিশুদের পাচারে অনেক এনজিও কর্মী জড়িয়ে পড়ছে। মানব পাচার প্রতিরোধে গত দুই বছরে কয়েক কোটি টাকা ব্যয় করা হয়েছে। এসব কর্মকান্ড নিয়ে লোকজন সন্দিহান।

 

আরো সংবাদ