আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘মোচা’ ১৫ মে উপকূলে আঘাতের আশঙ্কা - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪ ১৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শনিবার

প্রকাশ :  ২০২৩-০৫-০৩ ১৩:৫৯:২০

আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘মোচা’ ১৫ মে উপকূলে আঘাতের আশঙ্কা

আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘মোচা’ ১৫ মে উপকূলে আঘাতের আশঙ্কা

নিউজ ডেস্ক :  প্রকৃতিতে দাবদাহের রেশ এখনো যায়নি। এরই মাঝে সাগরে ঘূর্ণিঝড়ের আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অফিস। তারা জানায়, আগামী ৭ অথবা ৮ মে সাগরে একটি লঘুচাপ সৃষ্টি হতে পারে। এটি আরো ঘনীভূত হয়ে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নেয়ার আশঙ্কা আছে। তবে কবে নাগাদ লঘুচাপ থেকে ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি হতে পারে, এর গতিপথ কোনদিকে হবে, সে বিষয়ে এখনো বিস্তারিত বলার সময় এখনো হয়নি।

আবহাওয়া অফিসের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ আব্দুল মান্নান ভোরের আকাশকে বলেন, সাগরে একটি ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। আগামী ৮ মে নাগাদ একটি লঘুচাপ সৃষ্টি হতে পারে। এটি ঘনীভূত হয়ে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নেবে- তা প্রায় নিশ্চিত। তবে কবে নাগাদ ঝড়ের সৃষ্টি হতে পারে, তা কতটা শক্তিশালী হবে, তা আবহাওয়া অফিস পর্যবেক্ষণ করছে। পরে এ বিষয়ে বিস্তারিত বলা যাবে। ঘূর্ণিঝড় তৈরি হলে তার অভিমুখ কোনদিকে হবে কিংবা কোথায় আঘাত হানবে, তা এখনই জানা যায়নি। দেশের ওপর কতটা প্রভাব পড়বে, সে বিষয়ে এখনো স্পষ্ট নয়। এদিকে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, ঘূর্ণিঝড়টি তৈরি হলে তার নাম হবে মোচা।

আবহাওয়া অফিসের হিসাব অনুযায়ী, গত কয়েক বছরে মে মাসে একের পর এক ঘূর্ণিঝড় তৈরি হয়েছে বঙ্গোপসাগরে। ২০২০ সালে ধেয়ে এসেছিল ঘূর্ণিঝড় আম্ফান। যার তাণ্ডবে দেশে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল। পুরো সাতক্ষীরা এলাকায় ব্যাপক তাণ্ডব চালিয়েছিল। পরের বছর ২০২১ সালে আছড়ে পড়ে ঘূর্ণিঝড় ইয়াস। ২০২২ সালের মে মাসে তৈরি হয়েছিল ঘূর্ণিঝড় ‘অশনি’। ওই বছরের অক্টোবরে আছড়ে পড়ে ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’। আশঙ্কা সত্যি বলে, আবার মে মাসে আরো একটি ঘূর্ণিঝড় ধেয়ে আসতে পারে। এদিকে আবহাওয়া অফিস জানায়, এপ্রিল মাসে দেশে স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক কম বৃষ্টি হয়েছে। তবে চলতি মে মাসে স্বাভাবিক বৃষ্টি হবে। তারা বলেছে, এ মাসে এক থেকে দুটি লঘুচাপ হতে পারে। আর মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে এ লঘুচাপের মধ্যে একটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। মে মাসের দীর্ঘমেয়াদি আবহাওয়ার পূর্বাভাসে এসব কথা বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

মঙ্গলবার এ পূর্বাভাস দেয়া হয়। দীর্ঘমেয়াদি পূর্বাভাসে এপ্রিল মাসের অবস্থা তুলে ধরে বলা হয়, ওই মাসে ৪ থেকে ১২ তারিখ মৃদু থেকে মাঝারি, ১৩ থেকে ২২ তারিখ মাঝারি থেকে তীব্র এবং ২৪ থেকে ৩০ পর্যন্ত মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যায়। ১৭ এপ্রিল পাবনার ঈশ্বরদীতে দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়। এ মাসে ঢাকা বিভাগে স্বাভাবিকের চেয়ে সবচেয়ে কম বৃষ্টি হয়।

এপ্রিল মাস অনেক তপ্ত থাকলেও মে মাসে স্বাভাবিক বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে বলে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে। এ মাসে এক থেকে তিন দিন বজ্র, শিলাবৃষ্টিসহ মাঝারি থেকে প্রচণ্ড কালবৈশাখী এবং তিন থেকে পাঁচ দিন হালকা থেকে মাঝারি কালবৈশাখী হতে পারে। আবহাওয়ার মাসব্যাপী পূর্বাভাসে বলা হয়, এ মাসে দেশের পশ্চিমাঞ্চলে একটি প্রচণ্ড তাপপ্রবাহ হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যত্র এক থেকে দুটি মৃদু বা মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। এ মাসে দিন ও রাতের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে সামান্য বেশি থাকতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরিচালক মো. আজিজুর রহমান বলেন, ৮ থেকে ৯ মে একটি লঘুচাপ সৃষ্টি হতে পারে। এ থেকে একটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। ১২ অথবা ১৩ তারিখে লঘুচাপটির ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নেয়ার আশঙ্কা আছে। তিনি বলেন, এপ্রিল মাসে সাধারণত ঘূর্ণিঝড় হয়ে থাকে। তবে এবারের এপ্রিল অনেক বেশি উত্তপ্ত ছিল। সাগরে ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি হওয়ার মতো অবস্থার সৃষ্টি হয়নি। পূর্বাভাসে আরো বলা হয়েছে, উজানে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে দেশের উত্তরাঞ্চল ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলে স্বল্পমেয়াদি আকস্মিক বন্যা হতে পারে।

আরো সংবাদ