বিলাসবহুল জাহাজে সরাসরি ইনানী থেকে সেন্টমার্টিন - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৩-১২-৩০ ১৬:৩০:২৭

বিলাসবহুল জাহাজে সরাসরি ইনানী থেকে সেন্টমার্টিন

অতিরিক্ত যাত্রীবহন, সেন্টমার্টিনগামী ২ জাহাজে জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রথমবারের মতো কক্সবাজারের ইনানী সৈকত থেকে সেন্টমার্টিনে সাগরপথে জাহাজ চলাচল শুরু হয়েছে। আগে কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিন যেতে ৬ ঘণ্টা সময় লেগে যেতো। কিন্তু এখন সময় লাগবে মাত্র ৩ ঘণ্টা। এতে সময়-খরচ দুটোই কমেছে। এ ছাড়া জাহাজ চলায় জেলার পর্যটন শিল্পে নতুন একটি দ্বারও উন্মোচন হয়েছে।

রোববার (৩১ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় ওই রুটে জাহাজ চলাচল শুরু হয়েছে। ওই সময় নৌবাহিনীর এই জেটিতে ভ্রমণ পিপাসুদের ভিড় দেখা গেছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পাথুরে সৈকত ইনানী, উপকূলে আছড় পড়ছে নীল জলরাশি। সাগরের চারদিকে নীল আর নীল। এই নীল জলে ভাসছে পর্যটকবাহী জাহাজ। যা প্রথমবারের মতো এসেছে ইনানী সৈকতে। ইনানী সৈকতের নীল জলরাশিতে নির্মিত হয়েছে দৃষ্টিনন্দন জেটি। যার দৈর্ঘ্য ১ কিলোমিটারের কাছাকাছি।

শাহেদা রহমান নামে এক পর্যটক বলেন, এই প্রথম ইনানী থেকে বিলাস বহুল জাহাজে করে সেন্টমার্টিন ভ্রমণে যাচ্ছি। ইংরেজি ২০২৩ সালের শেষ সূর্যাস্ত দেখবো এবং ২০২৪ সালের প্রথম দিন সেন্টমার্টিনে কাটাবো। যার কারনে খুবই ভালো লাগছে। এতে সেন্টমার্টিন যেতে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে না। বাসে করে কলাতলীর মোড় নামলাম তারপর গাড়ি করে মাত্র ৪৫ মিনিটের মধ্যে ইনানী জেটি পৌঁছালাম। খরচ ও সময় দুটোই বাঁচলো আর মেরিন ড্রাইভও দেখা হলো।
আরেক পর্যটক আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ইনানী টু সেন্টমার্টিন জাহাজে প্রথম যাত্রা খুবই ভালো লাগছে। আরও বেশি ভালো লাগছে প্রথম যাত্রী হতে পেরে।

সাজু নামে এক পর্যটক বলেন, কক্সবাজার থেকে টেকনাফ থেকে ২ থেকে আড়াই ঘণ্টা সময় লেগে যেতো। কিন্তু এখন ইনানীতে আসতে সময় লাগছে মাত্র ৪৫ মিনিট। আর কক্সবাজার শহর থেকে জাহাজে করে সেন্টমার্টিন যেতে সময় লাগতো ৬ ঘণ্টা। কিন্তু এখন সময় লাগে মাত্র ৩ ঘণ্টা। সেই হিসেবে ইনানী থেকে সেন্টমার্টিন যাত্রাটা অনেক আরামদায়ক।

জাহাজটি কক্সবাজার ইনচার্জ হোসাইন ইসলাম বাহাদুর জানান, প্রতিবছরই টেকনাফ-সেন্টমার্টিন, চট্টগ্রাম-সেন্টমার্টিন ও কক্সবাজার শহর-সেন্টমার্টিনে জাহাজ চলাচল করে আসছে। এর মধ্যে ‘এমভি কর্ণফুলি এক্সপ্রেস’ শহরের বাঁকখালী নদীর ঘাট থেকে চলাচল করলেও এ বছর তা শুরু করা যায়নি। ইতিমধ্যে সব ধরনের অনুমতি গ্রহণ করে ওই জাহাজ ইনানীর নৌ-বাহিনীর জেটি থেকে সাগর পথে সেন্টমার্টিনে চলাচল শুরু করেছে।

তিনি বলেন, সকাল সাড়ে ৯টায় জাহাজটি প্রথমবারের মতো ইনানী থেকে সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে রওনা হয়। প্রথম দিন জাহাজটি ১৩৯ জন পর্যটক যাত্রী ছিলেন। এছাড়াও জাহাজ সংশ্লিষ্ট, প্রশাসনিক লোকজন যারা জাহাজটি প্রথম যাত্রা নিরাপদ কিনা দেখেন এমন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, গণমাধ্যমকর্মী এবং পর্যটন সংশ্লিষ্টরা ছিলেন।

এদিকে দুপুর সাড়ে ১২টায় জাহাজটি সেন্টমার্টিনে গিয়ে পৌঁছায়। দ্বীপ থেকে এটি বিকাল ৩টায় রওনা হয়েছে এবং সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় ইনানী জেটিতে পৌঁছাবে।

তিনি আরও বলেন, এই জাহাজটি ৭৫০ জন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন। জাহাজটিতে দ্বীপে আসা ও যাওয়ার ক্ষেত্রে টিকিট মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১৮০০ টাকা থেকে ৩২০০ টাকা। পর্যটকরা মেরিন ড্রাইভ হয়ে সমুদ্র উপভোগ করে সকালেই সমুদ্র পথে যাত্রা দেবেন প্রবাল এ দ্বীপে। সাগরের সৌন্দর্য উপভোগ করবেন। ফেরার সময় উপভোগ করতে পারবেন সূর্যাস্তের দৃশ্য। যা পর্যটকদের আলাদা আনন্দ দেবে।

কর্ণফুলী শীপ বিল্ডার্সের স্বত্ত্বাধিকারী ইঞ্জিনিয়ার এম এ রশিদ বলেন, শুধু সেন্টমার্টিন নয় এখন থেকে জাহাজ কুয়াকাটা, হিরণ পয়েন্ট, মোংলা বন্দর, পায়রা বন্দর যাবে। এ ছাড়াও বঙ্গোপসাগরের পুরো এলাকা জাহাজে করে ভ্রমণ করা যাবে। অনেকগুলো দ্বীপ রয়েছে এগুলোতেও ভ্রমণ করতে পারবেন পর্যটকরা। এভাবে সব ধরণের সুযোগ-সুবিধা গড়ে উঠছে। যা পর্যটন শিল্পের জন্য নতুন দ্বার উন্মোচন বলে মনে করছি।

আরো সংবাদ