ঈদের টানা ছুটিতে সৈকতে পর্যটকদের ভীড় - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪ ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৩-০৪-২৩ ১৩:১৮:১৩

ঈদের টানা ছুটিতে সৈকতে পর্যটকদের ভীড়

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার : ঈদের টানা ছুটিতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ছুটে আসা পর্যটকদের সমুদ্রে ঊম্মাদনা। অতীতের মতোই সৈকতে পর্যটকদের ঢল নেমেছে। বিশে^র দীর্ঘতম সৈকতে যেনো পর্যটকদের তিল ঠাঁই নাই। কেউ সমুদ্রে অবস্থান করছে, কেউবা আবার সমুদ্রের বালিয়াড়িতে দৌঁড় ঝাপ দিচ্ছে।

অনেকেই সৈকতে বেঞ্চিতে বসে সমুদ্রের বিশালতায় নিজেদেরকে প্রকৃতি সাথে বিলীন করে দিচ্ছে। এমন দৃশ্য নিজেদের বহনকৃত স্মার্ট ফোনে ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করছেন অনেকেই।

ঈদের ছুটিতে পর্যটকে মুখরিত হয়ে উঠেছে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত। হোটেল-মোটেলেও বেড়েছে পর্যটকদের ভীড়। এমনিতে পর্যটকরা ছুটি পেলেই ছুটে আসেন কক্সবাজারে। এদিকে, পর্যটকদের নিরাপত্তায় সতর্ক রয়েছে পুলিশ ও জেলা প্রশাসন।

কলাতলী মেরিন ড্রাইভ হোটেল গেষ্ট হাউজ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মুকিম খান জানান, ঈদের ছুটি থাকায় পর্যটকদের চাপ থাকবে। আবাসিক হোটেলগুলোতে ইতোমধ্যে ৮০ থেকে ৯০% কক্ষ বুকিং রয়েছে বলে তিনি জানান। রবিবার (২৩ এপ্রিল) সকাল থেকে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের কলাতলী, সুগন্ধা ও লাবনী পয়েন্টে পর্যটকদের ব্যস্ত সময় পার করতে দেখা গেছে।

সৈকত ছাড়াও ভীড় বেড়েছে ইনানী, হিমছড়ি, রামু, মহেশখালী, টেকনাফের বিভিন্ন পর্যটন স্পটসহ সেন্টমার্টিন দ্বীপে। ঈদের ছুটিকে কেন্দ্র করে সাগরের নীল জলরাশি ও প্রকৃতির সৌন্দর্য উপভোগ করার জন্য কক্সবাজারে বেড়াতে এসেছেন প্রায় ২ লক্ষাধিক পর্যটক।

যশোর থেকে আসা মনির হোসেন বলেন, ঈদের ছুটিতে আমরা প্রায় ৩৫ জনের একটি গ্রæপ বাস ভাড়া নিয়ে কক্সবাজার আসছি। আসার সময়ও রাস্তায় দীর্ঘ যানজটের কবলে পড়েছি। আবার এখানে এসে দেখি হোটেল রুমে চড়া দাম। তাই আমরা বাধ্য হয়ে কয়েক ঘণ্টা সৈকতের চেয়ার আর রাত ১২টার পরে আমাদের বাসে বসে রাত কাটিয়েছি।

ঢাকা থেকে আগত পর্যটক শাহীন ইসলাম বলেন, সকাল ৮টার দিকে বাস থেকে কক্সবাজার কলাতলী ডলফিন মোড়ে নেমেছি। এরপর কলাতলী নামক একটি রেস্তোরাঁতে সকালের নাস্তা করতে যাই। গিয়ে দেখি সেখানে পা রাখার জায়গা নেই। পরে পাশে রাঁধুনী নামক একটি রেস্তোরাঁয় এক ঘণ্টার মতো অপেক্ষা করে নাস্তা করি।

ঢাকার ধানমন্ডি থেকে ঈদের ছুটিতে পরিবার পরিজন নিয়ে এসেছেন মোহাম্মদ ইবরাহীম নামের এক ব্যবসায়ী। তিনি জানান, সৈকত আগের থেকে পরিচ্ছন্ন, নিরাপত্তা বেশ ভালো। রাতভর সমুদ্রে মানুষের আনাগোনায় কোনো সমস্যা হয় না। আর সাগরের কাছে এলেই মনটা ভালো হয়ে যায়।

শালিক রেস্তোরাঁর মালিক নাছির উদ্দিন বলেন, সকাল থেকে পর্যটকের চাপ বেশি। খাবার দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

পর্যটকদের দায়িত্বে নিয়োজিত লাইফগার্ড কর্মী ইউছুফ বলেন, কাল থেকে সমুদ্র সৈকতে পর্যটকের চাপ বেশি। যা সামলাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। তারপরও চেষ্টা করে যাচ্ছি।

কক্সবাজার হোটেল মোটেল মালিক সমিতির সভাপতি আবুল কাশেম সিকদার জানিয়েছেন, তাদের সংগঠনের কোন হোটেলে মাত্রাতিরিক্ত ভাড়া নেয় না। তবে, কিছু বে-নামি হোটেলে বেশি ভাড়া নিচ্ছে এমন অভিযোগের কথা তিনিও শুনেছেন।

ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজার জোনের এসপি জিল্লুর রহমান বলেন, কক্সবাজার জেলায় যতো পর্যটক স্পট রয়েছে সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পর্যটকরা যেনো কোনো প্রকার হয়রানি না হয় সেজন্য হেল্প ডেস্ক স্থাপন করা হয়েছে।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসেনর পর্যটন সেলের ম্যাজিস্ট্রেট মাসুম বিল্লাহ বলেন, যেখানে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে সেখানে অভিযান চলমান রয়েছে। সব মিলিয়ে পর্যটকদের নিরাপত্তায় সর্বদা প্রস্তুত কক্সবাজার জেলা প্রশাসন।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু সুফিয়ান জানান, জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পর্যটকের সহযোগীতা ও হয়রানী বন্ধে ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে থাকছে সার্বক্ষণিক ভিজিলেন্স টিম। তার পাশপাশি তথ্য ও অভিযোগ কেন্দ্র থেকেও পর্যটেকরা পাবেন সব ধরনের সেবা।

আরো সংবাদ