উখিয়ায় ৭ মামলার পরও বন্ধ হয়নি পাহাড় কাটা - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০২৪-০১-২১ ১১:৫০:৪৯

উখিয়ায় ৭ মামলার পরও বন্ধ হয়নি পাহাড় কাটা

উখিয়ায় ৭ মামলার পরও বন্ধ হয়নি পাহাড় কাটা

নিজস্ব প্রতিবেদক : কক্সবাজারের উখিয়ার জালিয়াপালং ইউনিয়নের বায়তুশ শরফ সংলগ্ন এলাকায় একাধিক পাহাড় কেটে সাবাড় করার ভয়াবহ ঘটনা জানতো না বনবিভাগ।

অথচ পাহাড় কাটার স্থানের আধা কিলোমিটার এলাকায় অবস্থিত বনবিভাগের বিট কার্যালয়টি। আর এই ভয়াবহ পাহাড় কাটার দৃশ্যটি দেখা মিলেছে। গেল শনিবার ভোরে পাহাড় কাটতে গিয়ে এক শ্রমিক নিহত হওয়ার পর এমন দৃশ্য মিলে।

বনবিভাগ বলছে, মাত্র এক মাসের ব্যবধানে বন বিভাগ ও পরিবেশ অধিদপ্তরের ৭ টি মামলা দায়ের করার পরও এই পাহাড় কর্তন করা সম্ভব হয়নি। এ ঘটনায় স্থানীয় হেলাল ও সরওয়ার নামের ২ যুবক জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন বনবিভাগ।

উখিয়া থানার ওসি শামীম হোসেন জানিয়েছেন, গেল শনিবার ভোরে জালিয়াপালং ইউনিয়নের বায়তুশ শরফ সংলগ্ন কাসিম মাকেটের দক্ষিণ পাশের পাহাড় কাটতে গিয়ে মুসলেম উদ্দিন (২০) নামের এক যুবক নিহত হয়েছে।

নিহত মুসলেম উদ্দিন উখিয়ার পাইন্যাশিয়া চাককাটা এলাকার নুরুল ইসলামের ছেলে।

ওসি জানান, ভোর সাড়ে ৫ টায় মুসলেম উদ্দিন স্থানীয় হেলাল কোম্পানীর ডাম্পার ট্রাকে পাহাড়ের মাটি কাটতে গেলে হঠাৎ করে বড় একটি মাটির চাক ও গাছের ধারালো শিকড় এসে যুবকের অন্ডকোষের ঢুকে যায়। এতে অন্যান্য শ্রমিকরা তাকে উদ্ধার করে কুতুপালং এমএসএফ হাসপাতালে নিয়ে গেলে ডাক্তার পরীক্ষা নিরীক্ষা করে তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

পুলিশ খবর পেয়ে মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। এব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানান ওসি।

এ ঘটনার পর উখিয়া উপজেলার সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. সালেহ আহমদ, বনবিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা ফিরোজ আল আমিনসহ পুলিশ ঘটনাস্থলে যান।

সেখানে গিয়ে দেখা মিলেছে ভয়াবহ পাহাড় কাটার দৃশ্য। এক একরের বেশি পাহাড় কেটে ইতিমধ্যে সমতল ভূমিতে পরিনত করেছে চক্রটি। যেখানে পাহাড় কাটার মাটিও নেই। যা ডাম্পার করে বিক্রি করে সরিয়ে ফেলা হয়েছে বলে জানান বনবিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা ফিরোজ আল আমিন। এব্যাপারে আবারও মামলা দায়ের করার জন্য প্রস্তুতি চলছে বলে জানান এ কর্মকর্তা।

তিনি জানান, ওই এলাকার মৃত কাসেমের ছেলে হেলাল উদ্দিন ও সরওয়ার নামের অপর এক যুবকের নেতৃত্বে গত এক মাসে এই পাহাড় কাটা হয়েছে। বিষয়টি তাদের জানা ছিল না। এই দুই জনের বিরুদ্ধে আগে বন বিভাগ, পরিবেশ অধিদপ্তর পাহাড় কাটার দায়ে ৭ টি মামলা দায়ের করেছিল। যা আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। এছাড়াও কয়েক মাস আগে পাহাড়ের মাটিসহ হেলালের ডাম্পারও জব্দ করেছিল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

এ বিষয়টি স্বীকার করে কক্সবাজার দক্ষিণ বিভাগীয় বন কর্মকর্তা সারওয়ার আলম জানান, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে এবং শীঘ্রই পাহাড় কাটা বন্ধে জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে।

আরো সংবাদ