উখিয়া-টেকনাফে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ১৯ জুন ২০২১ ৫ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শনিবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৬-০৭ ১৩:২২:২৭

উখিয়া-টেকনাফে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ

উখিয়া-টেকনাফে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ
Spread the love

বিশেষ প্রতিবেদক : রোহিঙ্গা ক্যাম্পসহ কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলায় লকডাউন প্রত্যাহার করে আগামী ১৩ জুন পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। এর আগে উখিয়ার রাজাপালং ইউনিয়নের ২, ৫, ৬ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডকে রেডজোন হিসেবে চিহ্নিত করে এ দুই উপজেলায় ৬ জুন পর্যন্ত লকডাউন বাড়ানো হয়। অন্যদিকে কক্সবাজারে ৩৪টি রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পের মধ্যে আটটিতে এখন পরিপূর্ণ লকডাউন চলছে৷ বাকি ক্যাম্পগুলোতে আরোপ করা হয়েছে কড়াকড়ি৷

উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিজাম উদ্দিন আহমেদ ও টেকনাফের ইউএনও পারভেজ চৌধুরী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

উখিয়ার ইউএনও নিজাম উদ্দিন আহমেদ ও টেকনাফের ইউএনও পারভেজ চৌধুরী জানান, স¤প্রতি রোহিঙ্গা ক্যাম্প ও উখিয়ায় করোনার সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে যাওয়ায় জেলা করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধ কমিটির সিদ্ধান্তের আলোকে বিধিনিষেধ বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

সরকারি নির্দেশনায় বলা হয়েছে, বিধিনিষেধ চলাকালে দূরপাল্লার বাসগুলো স্বাস্থ্যবিধি মেনে ধারণ ক্ষমতার ৫০ শতাংশ যাত্রী নিয়ে সোমবার (৭ জুন) থেকে চলাচল করছে। অন্যান্য গণপরিবহণের ক্ষেত্রে চলমান নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে। কেবল জরুরি প্রয়োজনে যানবাহন চলাচল করতে পারবে।

অপরদিকে, কক্সবাজারের পাঁচটি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চলমান লকডাউন বর্ধিত করার বিষয়ে আজ মঙ্গলবার সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার শাহ মোহাম্মদ রেজওয়ান হায়াত। গত ২১ মে থেকে পাঁচটি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কঠোর লকডাউন বলবৎ রয়েছে।

এ দিকে হোস্ট কমিউনিটিতে কার্যক্রম চালানো এনজিওগুলো উপজেলা প্রশাসনের অনুমতি সাপেক্ষে শুধু অত্যাবশ্যকীয় জরুরি সেবা পরিচালনা করতে পারবে। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কার্যক্রম পরিচালনাকারী আইএনজিও/এনজিওগুলো শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যালয় প্রদত্ত নির্দেশনা প্রতিপালন করবে।
এ ছাড়া, হাটবাজার ও দোকানপাটের ক্ষেত্রে চলমান বিধিনিষেধ বহাল থাকবে। অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বের হওয়া থেকে এবং হাটবাজার, চায়ের দোকান, হোটেল-রেস্তোরাঁয় অহেতুক ঘোরাফেরা না করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে।

উখিয়ার ইউএনও নিজাম উদ্দিন আহমেদ এক পরিসংখ্যান দিয়ে জানান, এক মাসে উখিয়া উপজেলায় ৪০০ জনের বেশি স্থানীয় জনগোষ্ঠী করোনা পজিটিভ হয়েছে। এর মধ্যে রাজাপালং ইউনিয়নে ২০০ জনের বেশি রোগী পাওয়া গেছে। এর মধ্যে রাজাপালংয়ের ২, ৫, ৬ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডে রোগীর সংখ্যা ছিল ১০০ জনের বেশি।

এদিকে রোহিঙ্গাদের জন্য এখন পর্যন্ত কোন পক্ষ থেকে টিকা’র কোনো ব্যবস্থা করা হয়নি বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, তাদের টিকা দেয়ার বিষয়টি নির্ভর করছে জাতিসংঘের উপর৷ আপাতত তারা স্বাস্থ্যবিধিতেই জোর দিচ্ছেন৷

কক্সবাজারে ৩৪টি রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পের মধ্যে আটটিতে এখন পরিপূর্ণ লকডাউন চলছে৷ বাকি ক্যাম্পগুলোতে আরোপ করা হয়েছে কড়াকড়ি৷ রোহিঙ্গাদের দেয়ার জন্য টিকার আবেদন জানানো হলেও এখনও তার কোন আভাস মেলেনি৷

১০ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীর বসবাস কক্সবাজার ও ভাসানচরসহ ৩৫টি ক্যাম্পে৷শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, তাদের মধ্যে এখন পর্যন্ত মোট ৪৪ হাজার ৭২০ জনের করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে৷ এর মধ্যে করোনা আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৩৪৯ জন৷ গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হয়েছে ২০ জন৷ তবে এখন পর্যন্ত করোনা শনাক্ত হয়নি ভাসানচরে৷

কক্সবাজার শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যালয়ের স্বাস্থ্য সমন্বয়ক ডা. তোহা ভুঁইয়া জানান, এ পর্যন্ত ক্যাম্পে করোনায় ১৮ জন মারা গেছেন৷ তাদের মধ্যে শনিবার (৫ জুন) মারা গেছে একজন৷
এ পর্যন্ত ক্যাম্পে করোনায় ১৮ জন মারা গেছে।

শরনার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন অতিরিক্ত কমিশনার শামসুদ্দোজা বলেন, রোহিঙ্গাদের আটটি ক্যাম্প এখন হটস্পট৷ সেগুলো পুরোপুরি লকডাউন করা হয়েছে৷ শুধু খাদ্য এবং জ্বালানি ছাড়া আর কিছু প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না৷ বাকিগুলোতেও কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে৷ কাউকে ক্যাম্পের বাইরে যেতে দেয়া হচ্ছে না৷

শামসুদ্দোজা আরও জানান, তাদের পক্ষ থেকে কয়েক দফা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের জন্য টিকা’র আবেদন করা হয়েছে৷বাংলাদেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, জাতিসংঘ, ইউএনএইচসিআরের কাছে তারা আবেদন জানিয়েছে৷ ইউএনএইচসিআরের জেনারেল অ্যাসেম্বলির প্রেসিডেন্ট রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে গেলে তাকেও বিষয়টি জানানো হয়েছে।

 

আরো সংবাদ