এবার বৃষ্টি ছাড়াই শেষ হল রাখাইনদের বর্ষা উৎসব - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ ২১শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৭-১৭ ১৩:৪৭:০৪

এবার বৃষ্টি ছাড়াই শেষ হল রাখাইনদের বর্ষা উৎসব

কক্সবাজারে রাখাইনদের মাতৃভাষা চর্চার সুযোগ নেই
শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক :  কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের ঝাউবিথীতে আনন্দে মাতোয়ারা রাখাইনরা। দিনভর চলে আড্ডা, গান, নাচ ও খাওয়া-দাওয়া। উপলক্ষটা ছিল বর্ষা উৎসব। কিন্তু বৃষ্টি ছাড়াই শেষ হল বর্ষা উৎসব। শুক্রবার (১৬ জুলাই) বর্ষা উৎসবের শেষ দিনে হাজির হয়েছিল ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান থেকে আসা রাখাইন তরুণ-তরুণীরা।

ধর্মীয় নয়; বর্ষা উৎসব কেবলই অনাবিল আনন্দের উৎসব বলে জানিয়েছেন রাখাইন নেতারা। বিশাল সমুদ্রের সামনে সবুজ ঝাউবিথী। ঝাউবিথীর ছায়ায় বালিয়াড়িতে বসেছে বর্ষা উৎসব। তবে দেখা নেই বৃষ্টির। তারপরও আনন্দের কমতি নেই রাখাইনদের। শিশু থেকে বৃদ্ধ সব বয়সের রাখাইনরা মাতোয়ারা বর্ষা উৎসবের আনন্দে।

রাখাইন তরুণ-তরুণীরা জড়ো হয়ে বসেছে সৈকতের বালিয়াড়িতে। চলছে গান-বাজনা। সঙ্গে নাচে মেতে উঠার পাশাপাশি চলছে বাড়ি থেকে রান্না করে আনা হরেক রকমারির খাবার দাবার খাওয়ার। আর বৃষ্টি না থাকায় যাদের মন ভেজাতে পারেনি তারা নেমেছেন সাগরের জলে। উত্তাল ঢেউয়ের সঙ্গে যেন আনন্দে ভেসে যাওয়ার পালা।

শুক্রবার (১৬ জুলাই) বিকেলে সৈকতের শৈবাল পয়েন্টে দেখা যায়, শহরের রাখাইন পল্লীগুলো থেকে তরুণ-তরুণী, শিশু ও বয়োবৃদ্ধরা সৈকতে জড়ো হতে থাকেন। সঙ্গে করে নিয়ে আসেন বাড়িতে রান্না করা রকমারি খাবার-দাবার। সৈকতের ঝাউবাগানে করা হয় খানাপিনার আয়োজন।

পাশাপাশি উদ্দাম, নাচ-গানে মেতে ওঠেন তাঁরা। বর্ষা উৎসবে যোগ দিতে ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানসহ দেশের নানা প্রান্ত থেকে ছুটে এসেছেন অনেক রাখাইন তরুণ-তরুণী। সবাই মিলে মেতেছে আনন্দ আর হৈ-হুল্লোড়ে। করোনার মাঝেও সীমিত পরিসরেও কয়েক হাজার রাখাইন যোগ দিয়েছেন এই বর্ষা উৎসবের শেষ দিনে।

উৎসবে যোগ দেয়া রাখাইন তরুণী মালা মং বলেন, এই উৎসব কেবল কক্সবাজার সৈকতেই হয়। বৃষ্টিতে ভিজে সৈকতে সবাই মিলে নাচ-গানে মেতে উঠতে ভীষণ ভালো লাগে। কিন্তু বৃষ্টি না হলেও সাগরে নেমে নোনা জলে ভিজে আনন্দ করেছি।

কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের সহকারি উপ-পরিদর্শক সেলিম রেজা বলেন, রাখাইনদের বর্ষা উৎসবকে ঘিরে কোন প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে জোরদার ছিল নিরাপত্তা। পাশাপাশি যারা সাগরে গোসল করতে নেমে তাদেরকেও মাইকিং মাধ্যমে সচেতন করা হয়েছে।


শেয়ার করুন

আরো সংবাদ