এলএ শাখা ঘিরে লুটপাট, সিন্ডিকেট চক্রের ফাঁদে মালিকরা - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪ ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৩-০৩-২০ ১২:২৭:০৪

এলএ শাখা ঘিরে লুটপাট, সিন্ডিকেট চক্রের ফাঁদে মালিকরা

এলএ শাখা ঘিরে লুটপাট, সিন্ডিকেট চক্রের ফাঁদে মালিকরা

বিশেষ প্রতিবেদক : ভূমি অধিগ্রহণের ক্ষতিপূরণ পেতে দালাল ধরবেন না, প্রতারিত হবেন না এই লেখাটি দেয়ালে লেখা থাকলেও বাস্তবে কোন কার্যকর নেই বললেই চলে। হরি লুট চলছে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ (এলএ) শাখায়। বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে ক্ষতিগ্রস্তদের জিম্মি করে লুটপাটের এ মহোৎসবে মেতে উঠেছেন শক্তিশালী দালাল সিন্ডিকেট, কানুনগো, সার্ভেয়ার, কম্পিউটারম্যান থেকে শুরু করে কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

অভিযুক্তদের বিচারের দীর্ঘ সূত্রিতার কারণে অনিয়মের লাগাম থামছে না। অধিগ্রহনে দুর্নীতির দায়ে সাবেক এক ডিসি, এডিসি, সার্ভেয়ারসহ বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারি কারাগারে গেলেও আজ পর্যন্ত দায়েরকৃত মামলাগুলোর বিচার শেষ হয়নি।

এছাড়া লুটপাটের অংশীদার হিসেবে বহিরাগতদের নিয়ে এলএ শাখার কর্মকর্তারা তৈরি করেছেন সংঘবদ্ধ দালাল চক্র। এলএ শাখা ঘিরে ভূক্তভোগীদের অভিযোগ রয়েছে অহরহ, জেলা প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এসব বিষয় জেনেও নাজানার মতো রহস্যজনকভাবে নীরব ভূমিকা পালন করে আসছেন।

এলএ শাখার সকল প্রকল্পের ভূমি অধিগ্রহনের জন্য শীর্ষ কর্মকর্তাদের ঘুষ দেয়া এখন নিত্যদিনের অংশ হয়ে দাড়িয়েছে। ঘুষ না দিলে ফাইল নড়ে না, প্রতি টেবিলে টেবিলে আলোচনার ঝড় উঠে ঘুষ বাণিজ্য নিয়ে, অভিযোগ আছে সার্ভেয়ারদের মাধ্যমেই ভূমি মালিকদের নাম ঠিকানা দালালদের দেওয়া হয়। এছাড়া স্বচ্ছতা আনতে লোক দেখানো এলএ শাখায় বসানো হয়েছে সিসি ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা। তার পরও ঐখানে দালালদের তৎপরতা দেখা যায় চোখে পড়ার মত।

সূত্র জানায়, বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য ভূমির অবকাঠামোগত অবস্থান নির্ণয়ের জরিপ, জমি অধিগ্রহণের সময় ক্ষতিগ্রস্তদের জমির মূল্য নির্ধারণ এবং চেক প্রদানের সময়ই মূলত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা লুটপাটে জড়িয়ে পড়েন। অহেতুক হয়রানি করা হয় ক্ষতিগ্রস্তদের। এ থেকে পরিত্রাণ পেতেই অনেকেই তাদের উৎকোচ দিতে বাধ্য করা হয়। উৎকোচ না দিলে বিভিন্ন মামলায় ফাইল আটকে দেওয়া হয়। এলএ শাখার অধীনে এসব হরিলুটের জন্য কাজ করে শক্তিশালী কয়েকটি সিন্ডিকেট। উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মোটা অংকের ভাগ দিয়ে এসব কাজ করেন দালাল ও সার্ভেয়াররা।

এলএ শাখার দুর্নীতিবাজদের গড়ে তোলা দৃশ্যমান শক্তিশালী আলোচিত সিন্ডিকেটটি দীর্ঘ বছর ধরে এলএ শাখাটি নিয়ন্ত্রণ করে আসছেন। বিভিন্ন গণমাধ্যমে এ বিষয়ে শতাধিক প্রতিবেদন প্রকাশিত হলেও কাজের কাজ পুরোদমেই চলছে।

জানাগেছে, অসংখ্য মামলা নিয়ে জমির মূল ও কৌশলী মালিক দিনের পর দিন জেলা প্রশাসনের রাজস্ব শাখায় আসা-যাওয়ায় অতিষ্ঠ। এমনকি শারীরিক প্রতিবন্ধী ভূমি মালিকদেরও ভোগান্তির নজির রয়েছে। অথচ এসব বিষয় দ্রæত নিষ্পত্তি করতে এডিসি (রাজস্ব)’র লিখিত নির্দেশনাও রয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে, কক্সবাজারে চলমান মেগা প্রকল্পে জমি অধিগ্রহণ শুরুর পর এলএ শাখা কেন্দ্রিক সৃষ্ট দালাল চক্র সার্ভেয়ারদের হাত করে নিখুঁত জমিতেও কৌশলে সমস্যা সৃষ্টি করে, যেন জমির মালিক তাদের সাথে যোগাযোগ করেন। এ সুযোগে ১৫-২০ থেকে ৪০ শতাংশ কমিশন দিতে বাধ্য করানো হচ্ছে জমি মালিকদের। দালাল চক্রের চাহিদা পূরণ না হলে এডিসি (রাজস্ব) কিংবা ডিসির কঠোর নির্দেশনার পরও চেক ছাড় হয় না।

আবার ভাগবাটোয়ারা ঠিক মতো মিলে গেলে জমির ভূঁয়া মালিককেও চেক হস্তান্তর হয়। আর এ পুরো প্রক্রিয়াটি করেন সার্ভেয়ার এবং দালাল। ঈদগাঁওর মকবুল আহমেদের নামে রেকর্ডীয় জমির ক্ষেত্রে এই পদ্ধতিই বাস্তবায়ন হয়েছে। উর্ধ্বতনদের অন্ধকারে রেখে চাষের জমি বাগান দেখিয়ে অতিরিক্তসহ প্রায় ৪২ লাখ টাকা ভুয়া মালিককে হস্তান্তর করেন। যেখানে কমিশন হিসেবে প্রায় ১৫ লাখ টাকা নেন সার্ভেয়ার ও দালাল চক্র।

ভুক্তভোগিরা জানান, এলএ শাখার ১ এর কানুনগো কামরুল হাসান , সার্ভেয়ার মহিউদ্দিন, নুরুল ইসলাম, সৈকত চাকমা কম্পিউটার কাম অফিস সহকারী মহিউদ্দিন, বদিউল আলম ও সালাউদ্দিনসহ আরও কয়েকজনও জড়িত বলে জনশ্রুতি রয়েছে।

একইভাবে এলএ শাখা ২ ও ৩ নম্বারেও ব্যতিক্রম নয়। সেখানেও চলছে সার্ভেয়ার সাইদুর রহমান ও শিশির চাকমা সিন্ডিকেটের রাজত্ব! তারা নানা অজুহাতে ভূমির মালিকদের কাছ থেকে বান্ডিল বান্ডিল টাকা হাতিয়ে নেন বলেও অভিযোগ উঠেছে।

অভিযোগকারীরা বলেন, দালাল ও সার্ভেয়াররা ধমক দিয়ে তাদের বলেন, জমির সঠিক মূল্য পেতে হলে তাদের শতকরা ১০/১৫ পারসেন্টিস দিতে হবে। তা না হলে জমির মূল্য অর্ধেক হয়ে যাবে এবং ক্ষতিপূরণের এলএ শাখার চেক গ্রহণ করার সময় ২০ শতাংশ থেকে ২৫ শতাংশ দিতে হবে এবং ক্ষতিগ্রস্তদের থেকে আগাম ঘুষের টাকা বাবদ অগ্রিম চেক নেওয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক ভূমি হকুম কর্মকর্তা বলেন , এলএ শাখাকে ঘিরে কয়েকটি দালাল চক্র লোকজনকে হয়রানি করে আসছে এটা ঠিক। কিন্তু আমাদের সার্ভেয়ার ও কানুনগো যদি এসব কাজে জড়িত থাকে তাহলে অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি আরও বলেন, আর কেউও যদি দালালের আশ্রয় নেয় সেক্ষেত্রে আমরা কী করতে পারি? কার্যালয়ে চেক দেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এলএ শাখার একেকটা প্রকল্প একেক জায়গায় হওয়ায় বেশিরভাগ সময় প্রকল্প এলাকায় গিয়ে ক্ষতিপূরণের চেক দেওয়া সম্ভব হয় না। কিন্তু এই কর্মকর্তার ব্যাপারেও নানা অভিযোগ রয়েছে।

চেক বিতরণে অনিয়মে ভূমি ম্যানুয়েল অধ্যাদেশ ১৯৯৭ এর ৪৯ (ক) ধারায় জমি অধিগ্রহণে ক্ষতিগ্রস্তদের যথাসম্ভব প্রকল্প এলাকায় এলএ চেক বিতরণ করতে বলা হয়েছে। কিন্তু প্রকল্প এলাকার পরিবর্তে বেশিরভাগ সময়ই এলএ শাখার অফিসে চেক বিতরণ করা হচ্ছে বলে সূত্র জানায়।

এদিকে, আদালতে সার্ভেয়ার আতিকের জবানবন্দি ৪০ জন জমির মালিকের কাছ থেকে ২৩ লাখ টাকা ঘুষ নেওয়া হয়েছে। কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তিনি ১৬৪ ধারায় দেওয়া জবানবন্দিতে ঘুষ নেওয়ার কথা স্বীকার করেন। ওই আদালতের বিচারক মো. আবুল মনসুর সিদ্দিকী তাঁর জবানবন্দি রেকর্ড করেন।

কক্সবাজার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশেক এলাহী শাহজাহান নুরী ওই সময় গণমাধ্যমকে বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) রিমান্ডে থাকা সার্ভেয়ার আতিকুর রহমান স্বেচ্ছায়, স্বপ্রণোদিত হয়ে দোষ স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন।

আদালত সূত্র জানায়, আতিকুর রহমান আদালতের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে বলেন, মহেশখালীর ধলঘাটা ও মাতারবাড়ীতে ভূমি অধিগ্রহণের ৪০টির বেশি ক্ষতিপূরণ ফাইল তাঁর হাতে ছিল। ক্ষতিপূরণের চেক পাইয়ে দেওয়ার বিপরীতে তিনি জমির মালিকদের কাছ থেকে ঘুষ নেন। পরে তিনি ঘুষের ২৩ লাখ ৬৩ হাজার ৯০০ টাকা নিয়ে কক্সবাজার থেকে ঢাকা যাওয়ার পথে গ্রেপ্তার হন। আতিকুরের বাড়ি সিরাজগঞ্জ পৌরসভার ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের মীরপুর এলাকায়।

এলএ শাখায় সেলিম নামে আরেক শীর্ষ দালাল প্রতিনিয়ত সাধারণ মানুষকে নানাভাবে হয়রানি করে আসছে বলেও জনশ্রুতি রয়েছে। সোনালী ব্যাংকের নিচে অফিস নিয়ে বসে দীর্ঘ বছর ধরে এলএ শাখায় তিনি দালালি করে আসছেন। এ নিয়ে তিনি একাধিকবার কারাভোগও করেছেন।

এছাড়াও দীর্ঘ ৫ বছর ধরে চকরিয়া থেকে এসে দালালি করে আসছেন রিয়াদ নামের আরেক এক যুবক। তিনি এলএ শাখায় দালালি করে কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন। তার সাথে এলএ শাখার কতিপয় কিছু কর্মচারির সাথে রয়েছে সখ্যতা। তারা সবাই কিন্তু আইন আদালতের ধরাছোঁয়ার বাহিরে রয়েছেন বলে জনশ্রুতি রয়েছে।

এছাড়ও শীর্ষ দালালদের মধ্যে রয়েছে বাবর, কুতুব উদ্দিন, মাদুল করিম, নাছির উদ্দিন, সরওয়ার, মোস্তাক, নুরুল আলম, আমান, হোসাইনসহ কতিপয় কিছু নামধারী সমাজপতি, গণমাধ্যম কর্মী, হকার, রাজনীতিবিদ, আইনজীবী প্রমুখ। তারা দীর্ঘ বছর ধরে নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিকদের আপনজন বানিয়ে বীরদর্পে এলএ অফিসে দালালি করে আসছেন। যার কারনে তারা হয়েছেন জনে জনে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ।

কক্সবাজার জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্য মোহাম্মদ মুজিবুল ইসলাম বলেন, দুর্নীতির অভিযোগ দ্রুত তদন্ত করে দোষীদের শাস্তি নিশ্চিত করা গেলে দুর্নীতির প্রবণতা অনেকটা হ্রাস পেতো।

এ বিষয়ে কক্সবাজার জেলা জজ আদালতের সরকারি আইনজীবী (জিপি) মোহাম্মদ ইছহাক বলেন, সরাসরি অধিগ্রহণ প্রসঙ্গ এড়িয়ে ভিন্ন কোন বিষয়ে কেউ বিজ্ঞ আদালতের শরণাপন্ন হলে আদালত তাকে ফেরাতে পারেন না।

ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা হিসাবে দায়িত্ব পালনকারী আরেক এক কর্মকর্তা জানান, মামলা বা আপত্তি ভিত্তিহীন প্রতীয়মান হলে তা উপেক্ষা করে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তের অনুকূলে চেক দেয়ায় এলএও’র নামে ঘুষ দাবীর অভিযোগে দুদক আইনে মামলার নজির রয়েছে। তাই কোন অভিযোগ বা মামলার তথ্য পেলে ক্ষতিপূরণ প্রদানে আগ্রহী নন তারা।

তিনি জানান, আর এই জটিলতার ফাঁকে দালাল বা মধ্যস্বত্বভোগী অনুপ্রবেশ করে দুই পক্ষের মাঝে আপোষ করার নামে অর্থ হাতান। কর্মকর্তাদের দুর্নীতির মামলায় ফাঁসানো ভয় দেখিয়ে মধ্যস্বত্বভোগীরা ফায়দা হাসিল করে।

উল্লেখ্য, গত ২০২০ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি কক্সবাজার শহরের বাহারছড়া ও তারাবনিয়ারছড়া এলাকা থেকে ৯৩ লাখ টাকাসহ সার্ভেয়ার ওয়াসিমকে আটক করা হয়। সেখান থেকে ১৫ লাখ টাকার চেক ও ঘুষ গ্রহণের বিভিন্ন নথি জব্দ করা হয়। এরপর ২৭ ফেব্রুয়ারি জেলা প্রশাসনের এলএ শাখার ৩০ কর্মকর্তাকে এক আদেশে শাস্তিমূলক বদলি করে ভূমি মন্ত্রণালয়। তার মধ্যে জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখায় কর্মরত ১৯ জন সার্ভেয়ার, সাতজন কানুনগো ও চারজন অতিরিক্ত ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়।

অথচ তারা দীর্ঘদিন ধরে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের এলএ শাখায় মহেশখালীর কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প ও রেলের ভূমি অধিগ্রহণে কোটি কোটি টাকার চেক জালিয়াতি ও ঘুষ লেনদেনে জড়িত ছিলেন।

আরো সংবাদ