এসপি’র অফিসের সামনে অবৈধ ভবন নির্মাণ করছে কর্মচারি সমিতি! - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৭-২৫ ১৯:৫২:৫৮

এসপি’র অফিসের সামনে অবৈধ ভবন নির্মাণ করছে কর্মচারি সমিতি!

এসপি’র অফিসের সামনে অবৈধ ভবন নির্মাণ করছে কর্মচারি সমিতি!
Spread the love

বার্তা পরিবেশক : কঠোর বিধিনিষেধ অমান্য করে অনুমতি ছাড়া কক্সবাজার পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সামনে ভবন নির্মাণ কাজ চালিয়ে আসছে ৪র্থ শ্রেণী কর্মচারি সমিতি নামে একটি সংগঠন। স্বাস্থ্য বিধি না মেনে বেপরোয়া এ নির্মাণ কাজ দেখে স্থানীয় মানুষের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। যদিও জায়গাটি খাস তারমধ্যে ভবন নিমার্ণ করে জেলা পুলিশের অফিসকে অন্ধকার করে দিয়েছে। গেল ২ মাস আগে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ এ অবৈধ নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেন। এখন লকডাউনকে পুঁজি করে রাতদিন রোহিঙ্গা শ্রমিক দিয়ে নির্মাণ কাজ চালিয়ে আসছে। অন্যদিকে ভবন নির্মাণ করে মোটা অংকের দোকান ভাড়া হিসেবে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা। অন্যদিকে সরকার হারাচ্ছে রাজস্ব। তাদের এ কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে থানা আদালতে একাধিক মামলাও বিচারাধীন রয়েছে। তাদের কর্মকান্ড যেনো দেখার কেউ নেই!

ওই সড়ক দিয়ে চলাচলকারী পথচারিরা জানান, এ ভবন নির্মাণের কারনে কক্সবাজার জেলা পুলিশের কার্যালয়টি দেখা যাচ্ছে না বরং অন্ধকার হয়ে পড়েছে। যদি তারা শুনেছেন জায়গাটি সরকারি জায়গা। কর্মচারিরা প্রশাসনের লোক হওয়ায় জায়গাটি দখলে নিয়ে ভবন নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।
জানাগেছে, কক্সবাজার জেলা শহরের একমাত্র গুরুত্বপূর্ণ সড়ক হচ্ছে শহীদ স্বরণী রোড। এই রোডে রয়েছে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, জেলা দায়রা জজ আদালত ভবন, পুলিশ সুপার কার্যালয়, কক্সবাজার প্রেস ক্লাব, বন বিভাগে, নিউ সার্কিট হাউজ, হিলটপ সার্কিট হাউজ, আঞ্চলিক পাসর্পোট অফিস,সিভিল সার্জন কার্যালয়, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্র্তৃপক্ষ ও জেলা প্রশাসকের বাংলো। প্রশাসনের এতো দপ্তরকে ফাঁকি দিয়ে সড়কের সামনে টিনের উচু ঘেরা দিয়ে সরকারি জমিতে অবিরাম কাজ চালিয়ে যাচ্ছে কতিপয় এই কর্মচারি সমিতি।

এসপি’র অফিসের সামনে অবৈধ ভবন নির্মাণ করছে কর্মচারি সমিতি!

কক্সবাজার এসপি’র অফিসের সামনে অবৈধ ভবন নির্মাণ করছে কর্মচারি সমিতি নামের একটি সংগঠন।

প্রশাসনের কর্মচারি হওয়ার সুবাধে এই কঠোর লকডাউনে তারা দখলবাজি করে ভবন নির্মাণ কাজ চালিয়ে আসছে। এব্যাপারে দ্রæত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি জোর দাবী জানিয়েছেন ভুক্তভোগিরা।

উল্লেখ্য, কক্সবাজারের একমাত্র পরিবেশ বান্ধব সরকারি পাহাড় যার নাম ৫১ একর। এই কর্মচারি সমিতি যুগ যুগ ধরে রোহিঙ্গা শ্রমিক দিয়ে ওই পাহাড় কেটে বিরাণভূমিতে পরিণত করেছে।  অন্যদিকে, সরকারি পাহাড় কেটে বহুতল ভবন নির্মাণ করার অপরাধে বাংলাদেশ সুপ্রীমকোর্ট আপিল বিভাগ হতে তাদের বিরুদ্ধে চূড়ান্ত রায়ে সমস্ত ঘরবাড়ি উচ্ছেদ করার নির্দেশ দিলেও বাস্তবায়ন করতে অক্ষম প্রশাসন। একইভাবে বিভিন্ন স্থানে কর্মচারি সমিতির নাম ব্যবহার করে যুগযুগ ধরে সরকারি জায়গা জমি দখলে নিচ্ছে তারা। এব্যাপারে প্রশাসনের উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন কক্সবাজারের সচেতন মহল।

আরো সংবাদ