কক্সবাজারের গহীন পাহাড়ে অপরাধীর অভয়ারণ্য! - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২২শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রবিবার

প্রকাশ :  ২০২২-১২-২৩ ১২:৫২:০৭

কক্সবাজারের গহীন পাহাড়ে অপরাধীর অভয়ারণ্য!

কক্সবাজারের গহীন পাহাড়ে অপরাধীর অভয়ারণ্য!

নিজস্ব  প্রতিবেদক :  কক্সবাজারের গহীন পাহাড়ের ভাজে ভাজে রয়েছে অসংখ্য গুহা। আর এসব গুহাকে নিরাপদ আস্তানা হিসেবে ব্যবহার করে সশস্ত্র অপরাধিরা সাধারণ মানুষকে অপহরণ করে ব্যাপক নির্যাতন চালিয়েছে। তিন দিন পর মধ্যরাতে টেকনাফের অপহৃত ৮ জনকে পাহাড়ের যে খালে মাছ শিকারে গিয়েছিলেন ওখান থেকে অনুমানিক ১০ কিলোমিটার ভেতরে পাহাড়ে রয়েছে এসব গুহা। সংঘবদ্ধ অপরাধি চক্রে রোহিঙ্গাদের সাথে রয়েছে বাংলাদেশীও।

গহীন পাহাড় হলেও ওখানে অপরাধী চক্রের প্রধানসহ কয়েকজন ব্যবহার করে ল্যাপটপসহ আধুনিক প্রযুক্তি নির্ভর ডিভাইস। যে প্রযুক্তির মাধ্যমে অপহরণের পর বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানের আগাম তথ্য জানতে পারে। টেকনাফের পাহাড়ি এলাকা থেকে অপহৃত ৮ জন তিন দিন ফেরার পর সংশ্লিষ্টদের স্বজনরা এসব তথ্য জানিয়েছেন।

অপহরণে শিকার পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, গেল বুধবার দিনগত রাত ২ টায় ৮ জন ঘরে ফিরেন। ঘরে ফেরার পর স্বজনরা খুব কম সময় তাদের সাথে আলাপ করতে পেরেছেন। পুলিশে কয়েক মিনিটের মধ্যেই এদের হেফাজতে নিয়ে যান। সেখানে তারা বলেছেন ৬ লাখ ৪০ হাজার টাকা দেয়ার পর তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

গত ১৮ ডিসেম্বর রোববার বিকালে টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের জাহাজপুরা এলাকার একটি পাহাড়ের ভেতর খালে মাছ ধরতে গেলে অস্ত্রধারী একদল অপহরণকারী এক কলেজ শিক্ষার্থীসহ ৮ জনকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। এরপর অপহরণকারীরা অপহৃতদের স্বজনদের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে মোটা অংকের টাকার মুক্তিপণ দাবী করেছিল।

এই ৮ জন হলেন, টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের বাসিন্দা রশিদ আহমদের ছেলে মোহাম্মদ উল্লাহ, ছৈয়দ আমিরের ছেলে মোস্তফা কামাল, তার ভাই করিম উল্লাহ, মমতাজ মিয়ার ছেলে মো রিদুয়ান, রুস্তম আলীর ছেলে সলিম উল্লাহ, কাদের হোসেন ছেলে নুরুল হক, রশিদ আহমদের ছেলে নুরুল আবছার ও নুরুল হকের ছেলে নুর মোহাম্মদ।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ২ টার দিকে ওই ৮ জন ঘরে ফিরেছেন। যার মধ্যে মোস্তফা ও করিমের বড় ভাই মোহাম্মদ উল্লাহ বৃহস্পতিবার দুপুরে জানিয়েছেন, অল্প সময়ের মধ্যে তাদের ভাই যে তথ্য দিয়েছেন তাতে গহীন পাহাড়ে আস্তানা তৈরী করে অবস্থান নেয়া অপরাধি চক্রের হাতে রয়েছে অসংখ্য ভারী অস্ত্র।

তাদের সংখ্যা ২২ থেকে ২৫ জন হলেও অস্ত্রের সংখ্যা আরও বেশি। পাহাড়ের গুহায় গুহায় রাখা হয়েছিল অপহৃতদের। যেখানে চালানো হয়েছে নির্যাতন। অপহরণকারিদের ৩ জন ছাড়া সকলেই মুখোশ পরিহিত ছিলেন। যে তিন জন মুখোশ পড়েননি তারা রোহিঙ্গা। মুখোশ পরিহিতরা শুদ্ধ বাংলায় কথা বলেছেন এবং চক্রের প্রধানকে মেজর বলে সম্বোধন করেছেন। এরা বাংলাদেশের নাগরিক বলে তিনি দাবি করেন।

মোহাম্মদ উল্লাহ ফেরাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে জানান, গহীন পাহাড়ে অবস্থান নেয়া এ চক্রের সদস্যরা ল্যাপটপ ও আধুনিক প্রযুক্তি নির্ভর ডিভাইস ব্যবহার করতে দেখেছেন। যে প্রযুক্তির মাধ্যমে অপহরণের পর বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানের আগাম তথ্য তারা জানতেন।

মোহাম্মদ উল্লাহ আরও জানান, অপহৃত ৮ জনের পরিবার মিলে একটা অংকের টাকা পাঠানোর পর ৮ জনকে ছেড়ে দেয়া হয়। তবে এই টাকার অংক কত এবং কিভাবে পাঠানো হয়েছে এব্যাপারে তিনি কোন তথ্য দেননি।

মোস্তফা ও করিমের অপর ভাই টেকনাফ থানায় দায়ের হওয়া অপহরণ মামলার বাদী হাবিব উল্লাহ জানান, ফেরার পর তারা যে তথ্য প্রদান করেছেন তাতে গহীন পাহাড়ে অপরাধীদের খাবার সরবরাহে একজন বয়স্ক ব্যক্তি রয়েছেন। যিনি তাদের জন্য রান্না করা খাবার নিয়ে যান এবং মাঝে-মধ্যে রান্না উপকরণ নিয়ে গিয়ে রান্না করে দেন এই বয়স্ক লোক। যাকে সকলেই বাবা বলে ডাকেন। ৮ জন অপহরণের পর আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা পাহাড়ে অভিযান চালানোর সময় প্রায় কাছা-কাছি স্থানে পৌঁছে ছিলেন। আরও কিছু এগিয়ে গেলে হয়তো অপহরণকারিদের পাওয়া যেতো।

হাবিব জানান, ফেরত আসা ৩ জনকে সাথে নিয়ে পুলিশ পাহাড়ের ওই আস্তানায় অভিযানে গেছে। এর বিস্তারিত তিনি জানেন না।

বাহাছড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন জানিয়েছেন, পাহাড় ঘিরে একটি অপরাধি চক্রের শক্ত অবস্থান রয়েছে। যারা গত ৫ মাসে বাহারছড়া ইউনিয়নের ১৫ থেকে ২০ জনকে অপহরণ করেছে। এবার আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর অভিযান দেখা গেছে। এটা অব্যাহত রাখার দাবি জানান তিনি।

এদিকে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার মো. মাহফুজুল ইসলাম জানিয়েছেন, ৩ দিন পর অপহরণকারি চক্রের কাছ থেকে ফেরা ৮ ব্যক্তির সাথে আলাপ করে পুলিশ তথ্য সংগ্রহ করেছে। অপহরণের পর এদের পরিবার থেকে মুক্তিপণ দাবী করা হয়েছিল। ওই সব পরিবারের সাথে কথা বলে পুলিশের পাহাড়ে অভিযান শুরু করেছে। অভিযানের পুলিশ স্থানীয়দের সাথে নিয়ে পাহাড় ঘিরে রাখে। যার ভয়ে এদের ছেড়ে দেয়া হয়। এদের চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছে।

পুলিশ সুপার জানান, মুক্তিপণ দাবী করলেও অপহৃতরা কোন মুক্তিপণ দেননি বলে পুলিশকে জানিয়েছেন। এই পর্যন্ত যে তথ্য পাওয়া গেছে অপহরণকারিরা রোহিঙ্গা না বলে জানা গেছে। ওই চক্রের সদস্য বাংলাদেশী নাগরিক। এ ব্যাপারে মামলার ভিত্তিতে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তবে ফেরত আসা নুরুল আবছার জানিয়েছেন, অপহরণকারি চক্রের সদস্যের মধ্যে রোহিঙ্গা রয়েছে। পুলিশ পাহাড়ে অভিযান চালানো শুরু করলে তাদের অন্য পাহাড়ে নিয়ে যায়। এই সময় আবছারসহ ২ জনকে আটকে রেখে ৬ জনকে টাকা আনতে ছেড়ে দেয়।

ওই সময় অপহরণকারিরা জানান রাতের মধ্যে টাকা না দিয়ে ২ জনকে মেরে ফেলা হবে। যে ৬ জনকে ছেড়ে দেয়া হয় তারা ঘরে এসে সকলের পরিবার থেকে ৬ লাখ ৪০ হাজার টাকা নিয়ে আবার পাহাড়ে যায়। টাকা পাওয়ার পর এদের ছেড়ে দেয়া হয়।

আরো সংবাদ