কক্সবাজারে অবৈধ ল্যাব বন্ধে হার্ডলাইনে প্রশাসন - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০২২-০৬-০১ ০৭:২৬:২৫

কক্সবাজারে অবৈধ ল্যাব বন্ধে হার্ডলাইনে প্রশাসন

# ৩দিনের অভিযানে ৩৫ ল্যাব-ডায়গনেষ্টিক সেন্টার সিলগালা
# সনদধারী টেকনেশিয়ান নেই ২৫টি ল্যাবে
# ল্যাব থেকে ৪০শতাংশ কমিশন নেন অসাধু চিকিৎসক
# অনিবন্ধিতদের পরীক্ষা-নীরিক্ষা বন্ধ

এম. বেদারুল আলম দৈনিক কক্সবাজার : জেলায় অসাধু চিকিৎসকের আর্শিবাদে মোটা অংকের কমিশনের ভিত্তিতে চলছে শতাধিক ডায়গনেষ্টিক সেন্টার ও ডেন্টাল ক্লিনিক। ডাক্তারদের কমিশন বাণিজ্য, ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ভিন্ন ভিন্ন রিপোর্ট, ইচ্ছেমত ফি আদায় সহ হাজারো অনিয়মের মধ্যে চলছে এ সব প্যাথলজি তথা ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ডেন্টাল চিকিৎসা কেন্দ্র ।
হাইকোর্টের নির্দেশে সারা দেশের ন্যায় কক্সবাজারেও এসব অবৈধ ল্যাব বন্ধে অভিযান চালানো হয়েছে। গত ৩ দিনের অভিযানে জেলায় ৩৫টি ল্যাব- ডাগনেষ্টিক সেন্টারকে নানা অনিয়ম ও অনুমতি না থাকায় সিলগালা করে দিয়েছে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন। এর মধ্যে ১২টি ল্যাব এবং ২০টি ডায়গনেষ্টিক সেন্টার।

এছাড়া ৩টি ডেলিভারি সেন্টার রয়েছে। সিভিল র্সাজন অফিসের কর্মকর্তা পংকজ দে’র তথ্য মতে-অবৈধ- অনুমোদনহীন ল্যাব এবং ডায়গনেষ্টিক বন্ধে কয়েকদিনের অভিযানে কক্সবাজার সদরে ১৪টি, কুতুবদিয়ায় ৩টি,চকরিয়ায় ৫টি,পেকুয়ায় ৬টি, টেকনাফে ৪টি, রামুতে ১টি, উখিয়ায় ৩টি, মহেশখালীতে ২টি সিলগালা করে দেয়া হয়। অভিযান চলবে বলেও নিশ্চিত করেন এ কর্মকর্তা। রংচটা বিজ্ঞাপন, বাহারী সব সেবাদানের নাম করে ল্যাব ইনচার্জের নামের পাশে নানাসব উচ্চতর ডিগ্রি বসিয়ে সাধারণ রোগীদের প্রতারিত করে আসছিল এসব ডায়াগনস্টিক সেন্টার।

কক্সবাজার জেলা সদর ও অন্যান্য উপজেলায় অবৈধ এ সব ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের কারনে ভুল পরীক্ষায় জীবনহানি ঘটছে অনেক রোগীর। প্রতিদিনই প্রতারিত হচ্ছে শত শত রোগি। রোগিকে ব্যবস্থাপত্রে সাংকেতিক চিহ্ন দিয়ে কমিশনের জন্য নির্দিষ্ট প্যথলজিতে পাঠাচ্ছেন ডাক্তাররা। ডাক্তারদের পছন্দসই প্যথলজিতে না গেলে রোগিদের নানা হয়রানির শিকার হতে হছে। সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের দুর্বলতার সুযোগে জেলার বিভিন্ন উপজেলা সদরের হাট বাজারে স্থাপিত হচ্ছে নতুন নতুন অনুমোদনহীন প্যথলজি। এ সব অবৈধ ল্যাব বন্ধে গত ৩ বছরে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে অন্তত ১ হাজার নোটিশ পাঠানোর পরও থামানো যাচ্ছেনা এসব ভুঁয়া ল্যাব ব্যবসা। সম্প্রতি হাইকোর্ট সারাদেশে অবৈধ ল্যাব বন্ধে কঠোর নিদের্শনা প্রদান করলেও কক্সবাজারে এর কোন প্রভাব পড়েনি। বহাল তবিয়তে চলছে অসাধু ল্যাব ব্যবসা।

জেলা সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা যায়, জেলায় ১৫৪টি ল্যাব – প্যাথলজি সেন্টার থাকলেও তৎমধ্যে ৩৬টির লাইসেন্স নেই। ৩৩টি প্যাথলজিকে বন্ধের জন্য ৫ বছর আগে চূড়ান্ত নোটিশ প্রদান করলেও অদ্যাবধি ৩৩টি প্যাথলজি বহাল তবিয়তে থেকে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নাকের ডগায় কমিশন বাণিজ্যের মাধ্যমে নানা পরীক্ষা নিরিক্ষা চালালেও এতদিন কঠিন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়নি সিভিল সার্জনসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

পরিতাপের বিষয় হল বৈধ প্যাথলজির দুই তৃতীয়াংশের মালিক অর্থলোভী কতিপয় চিকিৎসক। ভূঁয়া সার্টিফিকেট বানিয়ে দক্ষ প্রশিক্ষিত টেকন্যাশিয়ানের নাম করে কতিপয় প্যাথলজি চলছে এ সব চিকিৎসকদের আর্শীবাদে।

অপরদিকে দেড় বছরে শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে বিশেষ করে হাসপাতাল সড়কে গজিয়ে উঠেছে ১২/১৩টি অনুমোদনহীন দাঁতের চিকিৎসা কেন্দ্র। এদের মধ্যে ৯টিকে সিভিল সার্জন অফিস থেকে বন্ধের জন্য নোটিশ পাঠিয়েছে। কিন্তু কার কথা কে শুনে। নোটিশের তোয়াক্কা না করে দিব্যি চলছে এ সব ডেন্টাল সেন্টার। সিভিল সার্জন অফিস থেকে কালো তালিকাভুক্ত করে নোটিশ দেওয়া এ সব অবৈধ প্রতিষ্ঠান সমুহ হল হাসপাতাল সড়কের ডিজিটাল ডেন্টাল পয়েন্ট, ডেন্টাল সার্জারি, ফ্যামিলি ডেন্টাল সেন্টার, কক্স ডেন্টাল সেন্টাল, মর্ডান ডেন্টাল হাউজ, ওরাল ডেন্টাল, মুমিন রাজুধনন্তরি ডেন্টাল কেয়ার ।

এদিকে সিভিল সার্জন কর্তৃক কালো তালিকাভূক্ত ও ৫ বছর আগে বন্ধের নোটিশপ্রাপ্ত প্যাথলজি সমূহ হলো ঈদগাঁও বাজারের জয় প্যাথলজি, সী হার্ট মেডিকেল সেন্টার, হাসপাতাল সড়কের ফেমাস প্যাথলজি, ঈদগাঁও ডিসি সড়কের ডেন্টাল কেয়ার। চকরিয়া উপজেলার কালো তালিকাভূক্ত প্যাথলজিসমূহ হল হেফজখানা সড়কের সেবা ল্যাব, মা মনি ফার্মেসী সংলগ্ন মা মনি প্যাথলজি, ফজল ফার্মেসী সংলগ্ন খুটাখালী প্যাথলজি সেন্টার, ডুলাহাজারা বাজারের মজুমদার মার্কেট সংলগ্ন নিউরণ ল্যাব, জীপ স্টেশনের এস এম প্যাথলজি, লালমিয়া মার্কেটের সাজেদা ড্রাগ হাউস, ডুলাহাজারা ল্যাব হাউস, খুটাখালীর গ্রামীণ ল্যাব, মালুমঘাটের মেডি ল্যাব। রামুর চৌমুহনীর জননী প্যাথলজি, হাসান দন্ত চিকিৎসালয়, হাসপাতাল সংলগ্ন এম রাজা দন্ত চিকিৎসালয়। উখিয়ায় কালো তালিকাভূক্ত অবৈধ প্যাথলজি ব্যবসার চারণ ক্ষেত্র। এতে ১৩টি প্যাথলজিকে নোটিশ প্রদান করেছে সিভিল সার্জন।

এদিকে ভুয়া ল্যাবে পরীক্ষা এবং রোগি হয়রানি বিষয়ে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ আশিকুর রহমান বলেন- চিকিৎসায় রোগের ডায়গোনোসিস খুবই গুরুত্বপূর্ণ। দক্ষ এবং প্রশিক্ষিত সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ডিপ্লোমাধারী না হলে যথাযত পরীক্ষা অসম্ভব। পরীক্ষার রিপোর্ট ভুল হলে রোগির অপূরনীয় ক্ষতি হবে যা পূষিয়ে আনা চিকিৎসকের পক্ষে সম্ভব হয়না। কক্সবাজারে অনেক ল্যাবে সনদবিহীন বিশেষ করে ২/৩ মাসের ট্রেনিং নিয়ে ল্যাব চালাচ্ছে। এসব ল্যাব চিকিৎসার চেয়ে ব্যবাসায়িক মনোবৃত্তি নিয়ে নামেমাত্র সেবা দিয়ে আসছে। সাইয়েন্টিফিক ব্যাবগ্রাউন্ড টেকনেশিান না হলে অনেক সময় পরীক্ষা ঠিকমত হয়না। এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে সজাগ হয়ে ল্যাবসমুহকে জবাবদিহিতার আওতায় আনা জরুরি।

অপরদিকে অবৈধ ল্যাব বন্ধে পদক্ষেপ গ্রহন বিষয়ে সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ মাহবুবুর রহমান জানান- আমরা কোন অনিবন্ধিত ও অনুমোদনহীন ল্যাব কক্সবাজারে চালাতে দেবনা। তাদের তালিকা ধরে অভিযান চালাচ্ছি। যারা আবেদন করেছেন তাদের বিষয়ে খোঁজখবর নিয়ে সব সঠিক থাকলে অনুমতি দেব। অনেক ল্যাব অনুমোদনের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে তিনি জানান।
তিনি বলেন- নোটিশ দেয়া অনেক ল্যাব বন্ধ করা হয়েছে। গত কয়েকদিনের অভিযানে ৩৫টিকে সিলগালা করে দেয়া হয়েছে। গত বছর অভিযানে ৪/৫ টি ডেন্টাল ক্লিনিক বন্ধ করা হয়েছিল। সম্পূর্ণ নীতিমালার আলোকে ডায়গনেষ্টিক সেন্টার অনুমোদন দেয়া হবে বলে তিনি জানান।

হাইকোর্টের নির্দেশে দেশব্যাপি এসব অবৈধ ল্যাব বন্ধে চলমান অভিযান অব্যাহত রাখার দাবি সচেতন মহলের। পাশাপাশি অবৈধ ল্যব সমুহ বন্ধে জেলা প্রশাসকের হস্তক্ষেপ জরুরি হয়ে দাঁড়িয়েছে। অন্যতায় প্যাথলজি নামক মানুষ মারার প্রতিষ্ঠান আরো বৃদ্ধি পাবে।

আরো সংবাদ