কক্সবাজারে করোনা সংক্রমণ বাড়ছে : দিশেহারা রোগিরা - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১ ১৩ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৬-১১ ১৪:৪৬:৫০

কক্সবাজারে করোনা সংক্রমণ বাড়ছে : দিশেহারা রোগিরা

কক্সবাজারে করোনায় আক্রান্তের হার বাড়ছে
Spread the love

ফাইল ছবি @ জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার : সারাদেশের মতো কক্সবাজারেও পাল্লা দিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে শনাক্তের হার বেড়েছে প্রায় ৫ শতাংশের বেশি। করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় নড়েচড়ে বসেছে স্বাস্থ্য বিভাগসহ জেলা প্রশাসন।

কক্সবাজারের ৮ উপজেলাসহ রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরগুলোতে মহামারি করোনা সংক্রমণের সংখ্যা বেড়েই চলছে। কক্সবাজারে এই পর্যন্ত করোনায় প্রাণ হারিয়েছে ১১৬ জনের মতো। এর মধ্যে রয়েছে ১৮ জন রোহিঙ্গা। অন্যদিকে আক্রান্ত রোগিরা চিকিৎসা সেবার স্থান পাচ্ছে না কোনো হাসপাতালে। যেনো কোথাও নেই এ মহামারি করোনার চিকিৎসা! তাই এই মুহুর্তে সচেতনতা ছাড়া দ্বিতীয় কোনো বিকল্প নেই। এনিয়ে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের করোনারোধ সেলের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক শাহজাহান নাজির কক্সবাজার কন্ঠকে জানান, সবার সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, মাস্ক পরিধান, জনসমাগম এড়িয়ে চলা, করোনার দৈনন্দিন আক্রান্তের হার বৃদ্ধিকে মাথায় রেখে সচেতনতা সৃষ্টির ওপর গুরুত্বারোপ ছাড়া আপাতত বিকল্প আর কোনো পথ নেই।

১১ জুন কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের মাইক্রোবায়োলজি ল্যাবে সর্বশেষ ২৪ ঘন্টা নমুনা পরীক্ষায় ২২ জন রোহিঙ্গাসহ ৬৮ জনের শরীরে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব শনাক্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে নতুন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৬৪ জন। এছাড়াও ফলোআপ রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে ৪ জনের। ৯ জুন সর্বশেষ ২৪ ঘন্টায় ৫৩০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ৪৬২ জনের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। আক্রান্তদের মধ্যে কক্সবাজার সদর উপজেলার বাসিন্দা ২১ জন, উখিয়ায় ৭ জন ও টেকনাফের ৩ জন, চকরিয়ার একজন, পেকুয়ার ৯ জন ও মহেশখালীর বাসিন্দা ৩ জন। এছাড়া ২২ জন আশ্রিত মিয়ানমারের নাগরিকের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

জানাগেছে, কক্সবাজারের দুইটি উপজেলা উখিয়া এবং টেকনাফে যে ৩৪টি রোহিঙ্গা ক্যাম্প রয়েছে তার মধ্যে উখিয়ায় আছে ২৬টি আর টেকনাফে আছে ৮টি ক্যাম্প। তার মধ্যে ১১ জুন পর্যন্ত উখিয়ার ২৬টি ক্যাম্পে ১২০০ জন রোহিঙ্গা করোনা আক্রান্ত হয়েছে। আর টেকনাফের ৮টি ক্যাম্পে এ পর্যন্ত ২৩৪ জন রোহিঙ্গা করোনা শনাক্ত হয়েছে। এছাড়াও পুলিশ এবং ক্যাম্প ইন-চার্জদের বলা হয়েছে ইন্টার ক্যাম্প মুভমেন্ট রেস্ট্রিক্ট করতে। পাশাপাশি কমিউনিটি গ্যাদারিং যাতে না হয় তা আরও কঠোরভাবে দেখভাল করার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া অবরুদ্ধ ক্যাম্পগুলোতে দেশি-বিদেশি সংস্থাগুলোর কার্যক্রমও সীমিত করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে৷

কক্সবাজার সিভিল সাজন অফিস সূত্র জানিয়েছে, ৮ জুন করোনা নতুন কেইস ছিলো ২৮ জনের। ২৪ ঘন্টায় পজিটিভিটি রেইট ছিলো ৬.৩১%। সুস্থ হয়েছেন ৯৫১৬ জন। ওই সময় মোট মৃত্যুবরণ করেছেন ১১৬ জন। সুস্থ হওয়ার হার ৮৮.১৮%। মৃত্যুহার ১.০৭%। হোম আইসোলেশনে ৭৭৫ জন। প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে ৩৫৭ জন। সব মিলিয়ে কক্সবাজার জেলাতে সর্বমোট কেইসের সংখ্যা দাড়ালো ১০৭৯২ জন।

৯ জুন নতুন করোনা কেইস ছিলো ৬৩ জনের। ২৪ ঘন্টায় পজিটিভিটি রেইট ১০.৬১%। সুস্থ হয়েছেন ৯৬০০ জন। মোট মৃত্যুবরণ করেছেন ১১৬ জন। সুস্থ হওয়ার হার ৮৮.৪৪%। মৃত্যুহার ১.০৭%। হোম আইসোলেশনে আছেন ৭২১ জন। প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে আছেন ৩৫৫ জন। সব মিলিয়ে কক্সবাজার জেলাতে সর্বমোট কেইসের সংখ্যা দাঁড়ালো ১০৮৫৫ জনের।

১০ জুন নতুন করোনা কেইস পাওয়া গেছে ৬৮ জনের। ২৪ ঘন্টায় পজিটিভিটি রেইট ১১.৫৬%। সুস্থ হয়েছেন ৯৬৬৬ জন। এখন পর্যন্ত মোট মৃত্যুবরণ করেছেন ১১৬ জন। এই পর্যন্ত সুস্থ হওয়ার হার ৮৮.৪৯%। মৃত্যুহার ১.০৬%। হোম আইসোলেশনে আছেন ৭১১ জন। প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে আছেন ৩৬২ জন। সব মিলিয়ে কক্সবাজার জেলাতে সর্বমোট কেইসের সংখ্যা দাঁড়ালো ১০৯২৩ জন।

কক্সবাজারের টেকনাফ আর উখিয়ায় ৩৪টি ক্যাম্প মিলিয়ে মোট সাড়ে ৬ হাজার একর জমিতে ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা গাদাগাদি করে বসবাস করছে। সেখানে করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকানো না গেলে পরিস্থিতি আরও ভয়ঙ্কর হতে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকরা। বাংলাদেশে গতবছর ৮ মার্চ প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার ৩৭ দিনের মাথায় কক্সবাজারে প্রথমবারের মতো একজন রোহিঙ্গার শরীরে সংক্রমণ ধরা পড়ে।

কক্সবাজারে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যলয়ের অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ সামছু-দ্দৌজা নয়ন বলেছেন, উখিয়া ও টেকনাফের ৩৪টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মধ্যে ৫টি ক্যাম্পে হঠাৎ করেই করোনা ভাইরাস সংক্রমণের মাত্রা বেড়ে গেছে। তাই সতর্কতার অংশ হিসেবে সরকারের চলমান লকডাউনের বিধিনিষেধগুলো আরও কঠোরভাবে সেখানে পালন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। তিনি সংবাদকে বলেন, মহামারির দ্বিতীয় ঢেউয়ে কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে সংক্রমণের হার বেড়েই চলেছে, যা গতবছরের প্রথম ঢেউয়ের চেয়ে আশঙ্কাজনক। পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত ক্যাম্পগুলোতে এই বিধিনিষেধ বহাল থাকবে। লকডাউন চলাকালে নিজেদের ক্যাম্পের বাইরে রোহিঙ্গাদের যাতায়াত নিষেধ রয়েছে৷

এসব ক্যাম্পগুলোর তত্ত¡বাবধানে যেহেতু শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যালয় কাজ করছে, তাই ক্যাম্পের বিষয়ে পৃথক সিদ্ধান্ত রয়েছে। তবে ক্যাম্পের বাইরের এলাকা এবং জনসাধারণের জন্য স্থানীয় প্রশাসন সিদ্ধান্ত নিচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য অফিসের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে যারা থাকেন তারা যে ক্যাম্পের মধ্যেই বসবাস করেন তেমনটা একবারেই নয়। তাদের স্থানীয় বাজারে প্রতিনিয়ত যাতায়াত রয়েছে, আবার বিভিন্ন সেবাদান প্রতিষ্ঠানগুলোও ক্যাম্পের ভিতরে যাচ্ছে। এখন ক্যাম্পগুলো প্রচন্ড ঘনবসতিপূর্ণ হওয়ায় আশঙ্কার জায়গাটা বেশি। তবে চিকিৎসা ও খাদ্যসহ জরুরি প্রয়োজন ছাড়া সব ধরনের চলাচলে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে৷

বর্তমানে কক্সবাজার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে প্রায় ১২ লাখ রোহিঙ্গা অবস্থান করছে। যার বেশিরভাগই এসেছে ২০১৭ সালে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনাবাহিনীর নির্মম হত্যাযজ্ঞের পরে। রোহিঙ্গা জনবসতিগুলোতে করোনা সংক্রমন ঠেকাতে ২০ মে থেকে কঠোর লকডাউন জারি করেছে কর্তৃপক্ষ। ৩৪ ক্যাম্প থেকে বেশি সংক্রমণ হওয়া পাঁচটিতে এই কঠোর লকডাউন কার্যকর হচ্ছে।

আরআরআরসির প্রধান সমন্বয়ক ডা. আবু তোহা ভূঁইয়া জানান, আমরা পাঁচটি ক্যাম্পে সম্পূর্ণ লকডাউন জারি করেছি এবং বাকিগুলো নজরদারিতে আছে। সংক্রমণ রোধে গত একদিনে করোনা রোগীর সংস্পর্শে এসেছেন এমন ১১৭ জনকে পৃথক করে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। বর্তমানে ৭৮৩৬ জন রোহিঙ্গা কোয়ারেন্টাইনে আছেন।

শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্যালয়ের স্বাস্থ্য বিষয়ক শাখার সমন্বয়ক ডা. তোহা ভূঁইয়ার তথ্য মতে কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে এ পর্যন্ত মোট ১৮ জন মারা গেছেন। গত ৩-৪ মাস ধরে রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোসহ কক্সবাজার জেলায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের হার গত এক বছরের তুলনায় বেশি বলে জানান তোহা৷

এদিকে দেশে গত ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয় করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় টিকাদান কর্মসূচি। যদিও দেশের ৮০ শতাংশ মানুষকে টিকার আওতায় আনার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। কাঁচামাল সংকটের অজুহাতে মাত্র ৭০ লাখ ডোজ সরবরাহ করেই ভারত সরবরাহ বন্ধ করে দেয়ায় দেশে দেখা দেয় টিকা সংকট। এই সংকটের আওতায় রয়েছে কক্সবাজারও। ইতিমধ্যে কক্সবাজার জেলায় যারা টিকার ১ম ডোজ নিয়েছেন তাদের সংখ্যায় আছেন ৭৯৯৭১ জন। সেই হিসেবে জেলায় ১ম ডোজের নিবন্ধনকারীদের জন্য প্রয়োজন ৭৯৯৭১ দ্বিতীয় ডোজের টিকা। কিন্তু জেলায় ১ম ডোজ টিকার পর দ্বিতীয় ডোজের টিকা নিতে সক্ষম হয়েছেন মাত্র ৫৬৯০০ জন নিবন্ধনকারী।

কক্সবাজার জেলা সিভিল সার্জন অফিসের পরিসংখ্যান মতে, জেলায় নিবন্ধনকারীর জন্য দ্বিতীয় ডোজের সংকট রয়েছে ২৩০৭১টি টিকা। যেগুলো বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে ১ম ডোজের পরবর্তী নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ২য় ডোজ দিতে পারেনি। জেলায় ১ম ডোজ নিয়েছেন মোট ৭৯৯৭১ জন নিবন্ধনকারী। এরমধ্যে কক্সবাজার সদর উপজেলায় ১ম ডোজের টিকা নিয়েছেন ২০১৭৩ জন, মহেশখালী উপজেলায় ৭৯৯৫ জন, চকরিয়া উপজেলায় ১৩১৭৯ জন, পেকুয়া উপজেলায় ৪৫৩৫ জন, উখিয়া উপজেলায় ৮৩১৩ জন, টেকনাফ উপজেলায় ৬৩৩১ জন, কুতুবদিয়া উপজেলায় ৩৬৯১ জন ও রামু উপজেলায় ১৫৭৫৪ জন নিবন্ধনকারী। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বরাত দিয়ে জেলার স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, সরকারের পরিকল্পনা রয়েছে পাঁচ ধাপে প্রায় তিন বছরে দেশের অপ্রাপ্ত বয়স্ক ও গর্ভবতী নারী ব্যতিত মোট জনসংখ্যার ৮০ শতাংশ মানুষকে টিকা দেয়ার।

কক্সবাজার জেলা সিভিল সার্জন অফিসে পরিসংখ্যানবিদ পঙ্কজ পাল জানান, কক্সবাজার জেলার প্রতিটি উপজেলায় করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় টিকার ১ম ডোজ পরবর্তী ২য় ডোজের সংকট রয়েছে। তার মধ্যে কক্সবাজার সদর উপজেলায় ১৬২৯৯ জন নিবন্ধনকারী, মহেশখালী উপজেলায় ৫৩৭৭ জন নিবন্ধনকারী, চকরিয়া উপজেলায় ৮৮৩৬ জন নিবন্ধনকারী, পেকুয়া উপজেলায় ২৪৬৫ জন নিবন্ধনকারী, উখিয়া উপজেলায় ৫৭৫৯ জন নিবন্ধনকারী, টেকনাফ উপজেলায় ৪৫৯৯ জন নিবন্ধনকারী, কুতুবদিয়া উপজেলায় ২১১৬ জন নিবন্ধনকারী ও রামু উপজেলায় ১১৪৪৯ জন নিবন্ধনকারী দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন।

তিনি আরও জানান, আজকের দিন পর্যন্ত ১ম ডোজ পরবর্তী জেলায় দ্বিতীয় ডোজের সংকট রয়েছে ২৩০৭১টি টিকার। সেই হিসেবে কক্সবাজার সদর উপজেলায় সংকট রয়েছে ৩৮৭৪টি, মহেশখালী উপজেলায় ২৬১৮টি, চকরিয়া উপজেলায় ৪৩৪৩টি, পেকুয়া উপজেলায় ২০৭০টি, উখিয়া উপজেলায় ২৫৫৪টি, টেকনাফ উপজেলায় ১৭৩২টি, কুতুবদিয়া উপজেলায় ১৬৭৫টি ও রামু উপজেলায় ৪৩০৫ জন নিবন্ধনকারী দ্বিতীয় ডোডের অপেক্ষায় রয়েছে। যেগুলা সরকার যখন টিকা সরবরাহ করবে তখনই নির্দেশনা মোতাবেক অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দেয়া হবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

আরো সংবাদ