কক্সবাজারে ঘোড়ার মৃত্যু নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ১৯ জুন ২০২১ ৫ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শনিবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৫-৩১ ১৪:০৭:৩২

কক্সবাজারে ঘোড়ার মৃত্যু নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন

কক্সবাজারে ঘোড়ার মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন
Spread the love

নিজস্ব প্রতিবেদক  :  কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে খাদ্য সংকটে ঘোড়ার মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়। অপরদিকে উক্ত ঘটনায় সুস্থ ও মৃত ঘোড়াগুলোকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ ১৩ জনকে লিগ্যাল নোটিশ দিয়েছেন বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা)।

অপরদিকে, একের পর এক ঘোড়া অসুস্থ ও মৃত্যুর ঘটনায় কক্সবাজারের সচেতন মহলে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। তারা বলছেন, দীর্ঘদিন ধরে ঘোড়া গুলো দিয়ে মালিক নামধারী একশ্রেণীর মানুষ সমুদ্র সৈকতে পর্যটকদের বহনসহ নানা সেবার অজুহাতে গলাকাটা ব্যবসা করে বিপুল অর্থ আয় করেছেন। কিন্তু, আজ করোনার সংকটে ঘোড়াগুলোকে অর্থ সংকটের অজুহাতে রাস্তায় ছেড়ে দিয়েছে। এ কারণে রাস্তার ময়লা আবর্জনা খেয়ে অসুস্থ্য হয়ে মৃত্যু হচ্ছে এবং অসুস্থ হয়ে পড়ছে অনেক ঘোড়া। তাই, ঘোড়াগুলোকে খাদ্য সহায়তার দেয়ার আগে ঘোড়া মালিকদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন।

গত দুইমাস করোনার দ্বিতীয় ঢেউতে সংক্রামণরোধে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত ও বিনোদনকেন্দ্র গুলোতে পর্যটক নিষিদ্ধ থাকায় অর্থ সংকটে পড়ে ঘোড়া মালিকরা। এতে করে ঘোড়ার প্রয়োজনীয় খাদ্য সংকট ও নানা কারণে ঘোড়াগুলো অসুস্থ এবং মৃত্যু হচ্ছে। চলতি বছরে খাদ্য সংকট ও নানা কারণে ৬টি ঘোড়া মারা যায়। উক্ত ঘটনায় কক্সবাজারসহ সারাদেশে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

কক্সবাজার জেলা প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা ডা: অসীম বরণ সেন জানান, খাদ্য সংকটে পড়ে ঘোড়া মারা যাওয়ার বিষয়টি সত্য নয়। এরপরও বিভিন্ন মিডিয়ায় খবরটি আসার পর প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। উক্ত কমিটিকে আগামী তিনদিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেয়ার জন্য বলা হয়েছে। কমিটিতে কক্সবাজার প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের ভেটেরিনারি সার্জন ডা: নেবু লাল দত্তকে প্রধান করা হয়েছে। কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন কক্সবাজার প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের উপ-সহকারি কর্মকর্তা ডা: মিজবাহ উদ্দিন কুতুবী ও ডা: এহসানুল হক।

তিনি আরও বলেন, লকডাউনের পর থেকে দ্বিতীয় দফা ঘোড়া মালিকদের ঘোড়ার জন্য ভূষি ও প্রয়োজনীয় খাদ্য বিরতরণ করা হয়েছে। কিন্তু, খাদ্য অভাবে মৃত্যুর ঘটনাটি তদন্ত হওয়া প্রয়োজন মনে করেন আমার অফিস। তাই, উক্ত তদন্ত কমিটি খাদ্য সংকট আছে কিনা, কতটি ঘোড়ার মৃত্যু হয়েছে এবং অসুস্থ কতটি ঘোড়া সবদিক অনুসন্ধান করবে।

কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুরাইয়া আকতার সুইটি জানিয়েছেন, করোনায় লকডাউনে অসহায় মানুষের খাদ্য সহায়তার পাশাপাশি কক্সবাজার সৈকতের ঘোড়াগুলোর জন্য মালিকদের পশুখাদ্য হিসাবে ভূষির বস্তা বিতরণ করা হয়েছে। বর্তমানে দ্বিতীয় দফা ভূষি বিতরণ করা হয়েছে। সবমিলে বিষয়টি গুরুত্বসহকারে নিয়েছে প্রশাসন।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ঘোড়ার মালিকরা ঘোড়াকে পুঁজি করে পর্যটকদের কাছ থেকে গলাকাটা বাণিজ্য করে। এনিয়ে অসংখ্য অপ্রীতিকর ঘটনাও ঘটেছে। তাই এসব ঘোড়া গুলোর মৃত্যু, মালিক কর্তৃক অবহেলা, অসুস্থতাসহ নানা কারণের জন্য প্রধান দায়ী মালিকরা। তাই, এসব ঘোড়ার মৃত্যুর জন্য মালিকদের আইনের আওতায় আনা দরকার।

এদিকে, খাদ্য সংকটে ঘোড়ার মৃত্যুর ঘটনায় বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা) ১৩ জনে বিরুদ্ধে লিগ্যাল নোটিশ দিয়েছেন। বাংলাদেশ সুপ্রীমকোর্ট ও বেলার নিযুক্ত আইনজীবী সাঈদ আহমেদ কবীর স্বাক্ষরিত উক্ত লিগ্যাল নোটিশে মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব, পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ ভেটেরিনারি কাউন্সিলের সভাপতি, কক্সবাজার জেলা প্রশাসক, কক্সবাজার পুলিশ সুপার, কক্সবাজার পৌর মেয়র, কক্সবাজার জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা, কক্সবাজার সদর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা, কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ও কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি রয়েছে।

উল্লেখ্য, বর্তমানে কক্সবাজার সৈকতে বেড়াতে আসা পর্যটকদের বিনোদন দেয়ার জন্য ৫৫টি ঘোড়া ব্যবহার হয়ে আসছে। এসব ঘোড়া মালিকদের ২২ জন সদস্য বিশিষ্ট কক্সবাজার ঘোড়া মালিক সমিতি নামে একটি সমিতি রয়েছে। উক্ত সমিতির বাইরে আরও ১০টি ঘোড়াসহ মোট ৬৫টি ঘোড়া রয়েছে কক্সবাজার জেলায়।

এসব ঘোড়াগুলো কক্সবাজার সৈকতে বেড়াতে আসা পর্যটকদের পিঠে চড়ে এবং ছবি উঠিয়ে নানাভাবে বিনোদন উপভোগ করে। এর বাইরেও ঘোড়ার গাড়ি, বিয়ে-শাদী ও বিভিন্ন উৎসবেও ঘোড়াগুলোর ব্যবহার হয়। যার বিনিময়ে ঘোড়া মালিকরা পায় কিছু অর্থ। এসব অর্থ দিয়ে নিজেদের সংসারের পাশাপাশি ঘোড়াগুলোর লালন-পালনে ব্যয় করা হয়।

কিন্তু, চলতি বছরের ১লা এপ্রিল থেকে করোনার দ্বিতীয় ঢেউতে সংক্রামণরোধে লকডাউন ঘোষনা করে এবং সৈকতসহ বিনোদনকেন্দ্র গুলো বন্ধ করে দেয় জেলা প্রশাসন। যার কারণে পর্যটক শুন্য হয়ে পড়ে কক্সবাজার। ফলে অন্যান্য পর্যটন ব্যবসায়ীদের মত বেকায়দায় পড়ে যায় ঘোড়া মালিকরা।

আরো সংবাদ