কক্সবাজারে তালিকা হচ্ছে পুরাতন রোহিঙ্গাদের - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৮-৩১ ১৩:৪৫:০৩

কক্সবাজারে তালিকা হচ্ছে পুরাতন রোহিঙ্গাদের

কক্সবাজারে তালিকা হচ্ছে পুরাতন রোহিঙ্গাদের
Spread the love

নিজস্ব প্রতিবেদক :  কক্সবাজারে ইউনিয়ন পর্যায়ে পুরাতন রোহিঙ্গাদের তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে বেশিরভাগ ইউনিয়ন থেকে জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে তালিকা তৈরি করে জমা নেওয়া হয়েছে। বিষয়টি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা সংবাদকে নিশ্চিত করেছেন। এই তালিকায় পুরাতন এবং নতুন রোহিঙ্গাদের নাম দেয়া হয়েছে। দীর্ঘদিন পরে হলেও গ্রাম পর্যায় থেকে রোহিঙ্গাদের তালিকা করার খবরে সন্তোষ প্রকাশ করেছে স্থানীয় সচেতন মহল। এ জন্য স্থানীয়রা সরকার প্রধানসহ সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন।  স্থানীয়দের দাবী দ্রæত গ্রাম পর্যায়ে ছড়িয়ে থাকা রোহিঙ্গাদের তালিকা করে তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র এবং পাসপোর্ট বাতিল করার হোক।

এ নিয়ে কক্সবাজার সদর উপজেলার খুরুশকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন বলেন, প্রায় ২ মাস আগে সরকারের একটি বিশেষ সংস্থার পক্ষ থেকে আমাদের ডেকে ইউনিয়ন পর্যায়ে রোহিঙ্গাদের তালিকা তৈরি করতে বলা হয়। সে অনুযায়ী আমরা প্রতিটি ওয়ার্ডের মেম্বারদের মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের তালিকা তৈরি করেছি। আমাদের ইউনিয়ন থেকে প্রায় শতাধিক রোহিঙ্গার তালিকা জমা দেয়া হয়েছে। তিনি জানান, তালিকায় পুরাতন বা নতুন যে কোন রোহিঙ্গাদের নাম লেখা হয়েছে। এর মধ্যে বেশির ভাগই জাতীয় পরিচয় পত্র পেয়েছে। তবে খুবই গোপনীয়ভাবে কাজ করেছি আমরা।

কক্সবাজার সদর উপজেলার ঝিলংজা ইউপি চেয়ারম্যান টিপু সুলতান বলেন, আমরা ইতোমধ্যে তালিকা জমা দিয়েছি। তবে তালিকায় কতজনের নাম আছে সেটা এখন প্রকাশ করা যাবে না। যেহেতু এগুলো খুবই স্পর্শকাতর বিষয় তাই সব কথা বলাও ঠিক না। তবে আমি ব্যাক্তিগতভাবে খুবই খুশি সরকার অনেক দিন পর একটি কাজের মত কাজ করছে। টিপু বলেন, এলাকা ভিত্তিক রোহিঙ্গাদের তালিকা করছে সেটা খুবই ভালো কাজ। তিনি জানান, শুধু আমাদের এলাকায় প্রতিটি ইউনিয়নে একই অবস্থা। বিগত ২০-২৫ বছর আগে আসা রোহিঙ্গারা এখন স্থানীয়দের চেয়ে বেশি প্রভাবশালী। তারা এখান থেকে বিয়ে করে ছেলে মেয়ে উচ্চ শিক্ষিত করে প্রতিটি জায়গায় বিচরণ করছে। একজন রোহিঙ্গা থেকে কয়েক শত রোহিঙ্গা বংশ বিস্তার করেছে। তিনি দাবি করেছেন কিছু না হোক অন্তত সরকারি ভাবে একটি তালিকা করে সমস্ত রোহিঙ্গাদের সরকারি সুযোগ সুবিধা বন্ধ করে দেয়া হোক। পাশাপাশি তাদের ছেলেমেয়েরা যেনো আর বাংলাদেশী নাগরিক হিসাবে দাবী করতে না পারে সেই ব্যবস্থা করা হোক।

পিএমখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম জানান, তালিকা জমা দেয়া হয়েছে প্রায় মাস কাছাকাছি হতে চলেছে তবে পুরু ইউনিয়নে এই তালিকায় কত হবে তা আমি সঠিক বলতে পারছিনা। তবে ধারনা করছি ৪০০ থেকে ৫০০ হতে পারে।

এদিকে স্থানীয়রা মনে করছেন, রোহিঙ্গাদের কারনে এখন আমরা নিজদেশে পরবাসী হওয়ার অবস্থা। এখন যদি তাদের কঠোর ভাবে প্রতিরোধ করা না যায় তাহলে এই দেশ এক সময় ফিলিস্তিন হতে পারে।

তাই সরকারের কাছে তারা জোর দাবি জানিয়ে বলেন, কক্সবাজার পৌর এলাকাসহ প্রতিটি ইউনিয়নে কঠোর গোপনীয়তায় পুরাতন বা নতুন আসা রোহিঙ্গাদের তালিকা করে তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র বাতিলসহ কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে।

আরো সংবাদ