কক্সবাজারে তীব্র তাপপ্রবাহে জনজীবন অতিষ্ঠ - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২০ মে ২০২৪ ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সোমবার

প্রকাশ :  ২০২২-০৭-১৬ ১৪:৪৮:৫০

কক্সবাজারে তীব্র তাপপ্রবাহে জনজীবন অতিষ্ঠ

নিজস্ব প্রতিবেদক  : শ্রাবণ শুরু হলেও বৃষ্টির নেই দেখা। চৈত্র, বৈশাখ ও জ্যৈষ্ঠ মাস পেরিয়ে আষাঢ়ও গেছে তীব্র তাপপ্রবাহে। প্রচন্ড গরমে অতিষ্ঠ জনজীবন। বিপাকে পড়েছেন খেটে খাওয়া মানুষ। গেল ২৪ ঘণ্টায় কক্সবাজারে সর্বোচ্চ ৩৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। স্থানীয়রা জানান, প্রচন্ড তাপপ্রবাহে জনজীবনে নেমে এসেছে অস্থিরতা।

তাপমাত্রা কমার কথা থাকলেও দিন দিন বেড়ে চলছে। চারদিকে দেখা দিয়েছে সর্দিকাশি, ডায়রিয়া, কলেরাসহ নানা রোগ। দিনের তীব্র গরমে কষ্ট করে কাজ করলেও রাতের বেলা একটু শান্তিতে ঘুমোতেও পারছেন না।

এসময় প্রচন্ড বৃষ্টিতে খাল-বিল থৈ থৈ করার কথা। কৃষকরা লাঙ্গল কাধে জমিতে ধান চাষে ব্যবস্থ থাকার সময়। কিন্তু কৃষকেরা নেই মাঠে। চাষিরা পানির জন্যে হাহাকার করছে। শ্রমজীবি মানুষের মাথার ঘাম পায়ে পড়ছে। একটু পর পর ঠান্ডা অনুভবের জন্য মাথায় পানি দিচ্ছে। বয়োবৃদ্ধ ও শিশুরা গরমে অস্থির হয়ে পড়েছে।

অন্যদিকে, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ত্রীপলের ছাউনিতে এই গরমে জীবন যায় যায় অবস্থা। সরেজমিনে কক্সবাজারের উখিয়া স্পেশালাইজড হসপিটাল, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডায়রিয়া, জ্বর, পেটের ব্যাথা ও ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে বলে জানিয়েছেন কর্তব্যরত চিকিৎসকরা।

ডাক্তার ফাহমিনা সুলতানা বলেছেন, আবহাওয়ার পরিবর্তন, অস্বস্থিকর গরমে প্রতিবছর ডায়রিয়ার প্রকোপ বেড়ে যায়। তবে এবার বর্ষার ভরা মৌসুমে বৃষ্টিপাত না হওয়ায় এবং প্রচন্ড গরমের কারণে পেটের ব্যাথা, জ্বর, ডায়রিয়ার পাশাপাশি ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যাও বাড়ছে। তাই এর প্রকোপ থেকে বাঁচতে বিশুদ্ধ পানি খাওয়ার পাশাপাশি বারংবার হাত ধোয়া, বাইরের বাসি খোলা খাবার এড়িয়ে যাওয়ার জন্য তিনি পরামর্শ দিলেন।

উখিয়া স্পেশালাইজড হসপিটালে গিয়ে দেখা গেছে, উখিয়ার প্রত্য্যন্ত গ্রামাঞ্চল ও বিভিন্ন রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে কিছুক্ষণ পর পর অ্যাম্বুলেন্স, সিএনজিচালিত অটোরিকশা করে একের পর এক রোগী আসছে। কাউকে হাসপাতালের বিছানায় শোয়ানো হচ্ছে। কেউ বাইরে অপেক্ষা করছে। এর মধ্যে জরুরি বিভাগের সামনে রোগী ওস্বজনদের ভিড় বেশি দেখা গেছে।

এমএসএফ হাসপাতালে রোহিঙ্গা রোগীদের ভীড়ে আর ডায়রিয়া আক্রান্তদের সামলাতে হিমশিম খাচ্ছেন কর্তব্যরত চিকিৎসক ও নার্সরা। ডাক্তার শাউন বলেন, ডায়রিয়া থেকে তাৎক্ষণিক আরোগ্য লাভ হয় না। নিয়ম মেনে খাবার স্যালাইন আর পথ্য খেলে ধীরে ধীরে ভালো হয়। তিনি বলেন, খাবার ও পানির মাধ্যমে ডায়রিয়ার জীবাণু সংক্রমিত হয়। তাই ডায়রিয়া মুক্ত থাকার জন্য বাইরের খোলা খাবার থেকে বিরত থাকার এবং পানি ফুটিয়ে পান করার পরামর্শ দেন এ চিকিৎসক।

কক্সবাজার আবহাওয়া অধিদপ্তরের সহকারি আবহাওয়াবিদ তোফাইল আহমেদ বলেন, ৩৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। তবে বাতাসে আর্দ্রতা বেশি থাকাতেই এমন ভ্যাপসা গরম কক্সবাজারে। আগামী দু-একদিনের মধ্যে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। তখন তাপমাত্রা সহনশীল পর্যায়ে চলে আসবে।

আরো সংবাদ