কক্সবাজারে প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা সংক্রমণ - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১ ১৩ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বুধবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৬-২৩ ০৮:৩৪:১৫

কক্সবাজারে প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা সংক্রমণ

কক্সবাজারে প্রতিনিদিনই বাড়ছে করোনা সংক্রমণ
Spread the love

নিজস্ব প্রতিবেদক :  সীমান্ত জেলা কক্সবাজারে প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। গেল ২৪ ঘন্টায় আরও ১১০ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে নতুন আক্রান্ত হয়েছে ৮৯ জন। এছাড়াও ২ জনের ফলোআপ রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। আক্রান্তদের মধ্যে বাস্তুচ্যুত মিয়ানমারের নাগরিক আছে ২৯ জন।

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের সংক্রামক ব্যাধি ও ট্রপিক্যাল মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডাক্তার শাহজাহান নাজির এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, সর্বশেষ ২৪ ঘন্টায় কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের মাইক্রোবায়োলজি ল্যাবে ৫২৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তাদের মধ্যে রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে ৪৩৫ জনের। আক্রান্তদের মধ্যে কক্সবাজার সদর উপজেলার বাসিন্দা ২৪ জন, রামুর ২ জন, উখিয়ার ১৩ জন, টেকনাফের ৫ জন, চকরিয়ার ৫ জন, পেকুয়ার ৪ জন, মহেশখালীর ৬ জন ও বান্দরবানের ১ জন রয়েছে।

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের ল্যাবে গেল ২১ জুন ৬১৯ জনের নমুনা টেস্ট করে ৭১ জনের শরীরে কভিড ১৯ পাওয়া যায়। বাকী ৫৪৮ জনের নমুনা টেস্ট রিপোর্ট নেগেটিভ আসে।

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. অনুপম বড়ুয়া জানান, সোমবার শনাক্ত হওয়া ৭১ জন করোনা রোগীর মধ্যে ৪ জন আগে আক্রান্ত হওয়া রোগীর ফলোআপ টেস্ট রিপোর্ট। নতুন শনাক্ত হওয়া ৬৭ জন সকলেই কক্সবাজারের রোগী। তারমধ্যে, ২৪ জন রোহিঙ্গা শরনার্থী।
এনিয়ে, ২২ জুন পর্যন্ত কক্সবাজার জেলায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা হলো, মোট ১১ হাজার ৬১৩ জন। এর মধ্যে, গত ২১ জুন পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে জেলায় মৃত্যুবরণ করছে ১২১ জন। তারমধ্যে, ২০ জন রোহিঙ্গা শরনার্থী। আক্রান্তের তুলনায় মৃত্যুহার ১.০৬%।
এদিকে, গত ২০ জুন পর্যন্ত কক্সবাজার জেলায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে ১০ হাজার ৩১৫ জন রোগী সুস্থ হয়েছে বলে জানা গেছে। আক্রান্তের তুলনায় সুস্থতার হার ৯০ ভাগ।

এদিকে ২৪ জুন থেকে শর্তসাপেক্ষে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কক্সবাজারের হোটেল-মোটেল খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন। তবে পুরোপুরি বন্ধ থাকবে পর্যটন কেন্দ্র। করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এ নিয়ে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ আমিন আল পারভেজ বলেন, পর্যটন সংশ্লিষ্ট মানুষের জীবন-জীবিকা নির্বাহের দাবির প্রেক্ষিতে শর্তসাপেক্ষে হোটেল মোটেল ও গেস্ট হাউস খুলে দেয়া হচ্ছে। তবে পর্যটন কেন্দ্রগুলো যথারীতি বন্ধ থাকবে।

তিনি আরও বলেন, হোটেল মোটেল কর্তৃপক্ষকে কিছু শর্ত বেধে দেয়া হয়েছে। সেসব পালনে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে গৃহীত শর্তগুলো হলো, বেড়ানোর উদ্দেশ্যে কোন পর্যটক রুম বুকিং নিতে পারবে না। মাত্র ৫০% কক্ষ বুকিং দেওয়া যাবে। রুম সার্ভিস ব্যতিত বন্ধ থাকবে রেস্টুরেন্ট। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কাউকে কক্ষ ভাড়া দেয়া যাবে না। বন্ধ থাকবে সুইমিংপুল। হোটেলের প্রবেশমুখে জীবানুনাশক স্প্রে ও তাপমাত্রা পরিমাপের ব্যবস্থা রাখতে হবে। লবিসহ সকল কক্ষে হ্যান্ড সেনিটাইজারের ব্যবস্থা করতে হবে। তাছাড়া পুরো হোটেলে শতভাগ স্বাস্থ্য বিধি নিশ্চিত করতে হবে। শর্ত ভাঙলে শাস্তির আওতায় আনা হবে।

এ অবস্থায় কক্সবাজারে বিমান পরিবহণ চালু করা এবং সীমিত পরিসরে আবাসিক হোটেল খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্তকে আত্ঘাতী সিন্ধান্ত বলে মন্তব্য করেছেন কভিড-১৯ পরিস্থিতি নিয়ে গবেষণা করেন এমন একজন গবেষক। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উক্ত গবেষক বলেছেন, সার্বিক করোনা পরিস্থিতির কারনে কক্সবাজার জেলার করোনা সংক্রামণ প্রতিরোধে এই ধরণের সিদ্ধান্ত পূণ: বিবেচনা করা উচিত।

আরো সংবাদ