নিজের বলৎকারের প্রতিশোধ নিতে আওয়ামীলীগ নেতাকে হত্যা - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২০ মে ২০২৪ ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৩-০৮-২২ ১০:২৭:৩১

নিজের বলৎকারের প্রতিশোধ নিতে আওয়ামীলীগ নেতাকে হত্যা

কক্সবাজারে বলৎকারের প্রতিশোধ নিতে আওয়ামীলীগ নেতাকে খুন

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার : নিজের উপর যৌন নির্যাতনের প্রতিশোধ নিতেই কক্সবাজারে আওয়ামীলীগ নেতা সাইফুদ্দীনকে হত্যা করে আশরাফুল। আটক আশরাফুলের দেয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির বরাত দিয়ে এই তথ্য জানিয়েছেন কক্সবাজারের পুলিশ সুপার মাহফুজুল ইসলাম।

মঙ্গলবার (২২ আগষ্ট) বিকেল আড়াইটার দিকে নিজ কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার আরও জানান, প্রথমবার যৌন নিপীড়নের পর দ্বিতীয়বার সানমুন হোটেলে আশরাফুলকে ডেকে নিয়ে যান নিহত সাইফুদ্দীন। এই সুযোগে বাসা থেকে একটি ছোরা নিয়ে হোটেলের ২০৮ নং কক্ষে গিয়ে হত্যাকান্ড সংঘটিত করে আশরাফুল।

এর আগে ধারণকৃত যৌন নিপীড়নের ভিডিওসহ সাইফুদ্দীনের মোবাইল সেটটি কেড়ে নেওয়ার পরিকল্পনা ছিল আশরাফুলের। ঐ মোবাইল সেটটি কেড়ে নিতে ধ্বস্তাধ্বস্তির একপর্যায়ে সাইফুদ্দীনকে উপর্যুপরী ছুরিকাঘাত করে সে। মাগরিবের নামাজের পর ঘটে এই হত্যাকান্ডের ঘটনা। ঐ সময় শব্দ যাতে কক্ষের বাইরে না যেতে পারে সেজন্য বিছানার বেডসীট সাইফুদ্দীনের মুখে পেছিয়ে দেন খুনী।

পরে নিহত সাইফুদ্দীনের ব্যবহৃত মোটরসাইকেল নিয়েই হোটেল ত্যাগ করেন। খুনির দেওয়া তথ্য মতে মোটরসাইলটি সদরের খুরুশকুল এবং হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছোরা হোটেলের পাশের নালা থেকে উদ্ধার করে পুলিশ।

এর আগে মঙ্গলবার (২২ আগষ্ট) দিবাগত রাত ১২টার দিকে টেকনাফের হোয়াইক্ষ্যং পুলিশের হাতে আটক হয় আশরাফুল। ঐ সময় সে একটি পরিবহণ যোগে টেকনাফে পালিয়ে যাচ্ছিল।

উল্লেখ্য, সোমবার (২১ আগষ্ট) সকালে কক্সবাজার শহরের হলিডে মোড়স্থ আবাসিক হোটেল সানমুনের ২০৮ নং কক্ষ থেকে উদ্ধার কক্সবাজার পৌর আওয়ামীলীগের নেতা সাইফুদ্দীনের রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় পুলিশ একাধিক ব্যক্তিকে হেফাজতে নেয়। কিন্তু প্রকৃত খুনী ধরা পড়ে রাতে।

ঘাতক আশরাফুল ইসলাম একজন কোরআনে হাফেজ। সে শহরের দক্ষিণ পাহাড়তলীর ইসলামপুরের বাসিন্দা হাশেম প্রকাশ কাশেম মাঝির ছেলে।

এদিকে হোটেলের ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরা’র সুত্র ধরে আটক ভিকটিম হাফেজ আশরাফুল ইসলাম নিজেই পুলিশকে সব স্বীকার করেছেন। তবে এই কথাই শেষ কথা নই। আরও কোনো কারণ আছে কিনা তাও খতিয়ে দেখছেন পুলিশের তদন্তকারী কর্মকর্তারা।

নিহত সাইফুদ্দিন (৪৫) কক্সবাজার শহরের ঘোনার পাড়ার অবসরপ্রাপ্ত আনসার কমান্ডার আবুল বশরের ছেলে। তিনি কক্সবাজার পৌর আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এবং জেলা ছাত্রলীগের নেতা ছিলেন।

কক্সবাজার পুলিশ সুপার মো. মাহফুজুল ইসলাম বলেন, নিহতের শরীরে তিনটি ছুরিকাঘাতের চিহ্ন ও জখম ছিল। প্যান্টের বেল্ট দিয়ে তার হাত বাঁধা ছিল। সাইফুদ্দিনের লাশ উদ্ধারের পর হোটেলের সিসিটিভি ভিডিও দেখে হত্যায় জড়িতদের শনাক্ত করে পুলিশ। এ বিষয়ে আইগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

আরো সংবাদ