কক্সবাজারে বাড়ছে ডিজিটাল মাধ্যমে কেনাকাটা - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪ ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সোমবার

প্রকাশ :  ২০২২-০৪-২৬ ১৬:০৭:২৮

কক্সবাজারে বাড়ছে ডিজিটাল মাধ্যমে কেনাকাটা

জসিম সিদ্দিকী : কক্সবাজারে ডিজিটাল মাধ্যম ব্যবহার করে বাড়ছে কেনাকাটা। অন্য সময়ের তুলনায় আসন্ন ঈদুল ফিতরকে কেন্দ্র করে এই মাধ্যমে কেনা কাটার হার বেশি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ক্রেতারা নগদ টাকার তুলনায় ডিজিটাল মাধ্যমে কেনাকাটা করতেই স্বাচ্ছন্দবোধ করছেন বেশি।
সাম্প্রতিক সময়ে কক্সবাজারে ছিনতাইয়ের ঘটনা ব্যাপক হারে বেড়ে গেছে। চলতি বছরেই ছিনতাইকারীদের হাতে নিহত হয়েছেন অন্তত ৫ জন সাধারণ নাগরিক। এই কারণেই নগদ টাকা নিয়ে ঈদের বাজারে যেতে চাইছেন না সাধারণ মানুষ। পরিবর্তে ডিজিটাল মাধ্যম ব্যবহার করেই কেনা-কাটা সারছেন তাঁরা।

তবে, ডিজিটাল মাধ্যমের মধ্যে বিভিন্ন ব্যাংকের কার্ড ব্যবহারের হার কম। পরিবর্তে বিকাশ, নগদ’র মতো মোবাইল ব্যাংকিং সার্ভিসগুলো ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়েছে কয়েকগুণ। এতে ক্রেতাদের ব্যয় কিছুটা বেড়েছে। তবে, স্বস্তি নিয়েই ঈদের বাজার করে ঘরে ফিরতে পারছেন তাঁরা।
স্থানীয় কয়েকজন বিক্রেতাও স্বীকার করেছেন, গত কয়েক বছরের তুলনায় চলতি বছর ডিজিটাল মাধ্যমে কেনাকাটার হার বেশি। তবে, এখনো নগদ টাকা দিয়েই অধিকাংশ মানুষ ঈদের বাজার সারছেন। এরজন্য জেলার নিরক্ষরতাই প্রধান কারণ বলেও জানালেন তাঁরা।

পবিত্র ঈদুল ফিতর সামনে রেখে মানুষের থাকে নানা পরিকল্পনা। কেনাকাটায় তৈরি হয় বাড়তি চাহিদা। এ জন্য আলাদা করে করা হয় বাজেট। এ উৎসবকে ঘিরে বিপণী বিতানগুলোতে থাকে সাজ সাজ রব। ক্রেতাদের চাহিদার কথা মাথায় রেখে হরেক রকমের পণ্যে দেয়া হয় হরেক রকম অফার। এবারও এর ব্যতিক্রম কিছু হয়নি।

রমজান ও ঈদকে কেন্দ্র করে মূল্যছাড় এবং আকর্ষণীয় অফারের ছড়াছড়ি চলছে বিপণিবিতানগুলোতে। নিরাপদ করতে ডেবিড-ক্রেডিট কার্ডে ব্যাংকগুলো দিচ্ছে আকর্ষণীয় সব অফার। শপিংয়ের বিল কার্ডে পরিশোধ করলেই মিলছে গিফটসহ নগদ মূল্যছাড়। কার্ডের মতো মোবাইল ব্যাংকিং সেবাগুলোও দিচ্ছে ক্যাশব্যাক অফার।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে কক্সবাজারের স্থানীয় দৈনিক গণসংযোগের বার্তা প্রধান, সাংবাদিক শহীদুল্লাহ্ কায়সার বলেন, সাধারণ নাগরিকরা বর্তমানে অনেক সচেতন। অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সাথে আর্থিক লেনদেনকারী ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মগুলোর কর্পোরেট চুক্তি রয়েছে। চুক্তির শর্তানুযায়ী ক্রেতারা বিভিন্ন পণ্যের উপর ছাড় পেয়ে থাকেন। হয়তো এই কারণেই ডিজিটাল মাধ্যমে লেনদেন বাড়ছে।

কক্সবাজার ব্যবসায়ী সমিতির নেতা আমিনুল ইসলাম জানান, অর্থনীতিতে ডিজিটাল লেনদেন যত বাড়বে, অপরাধলব্ধ অর্থের ব্যবহার তত কমে আসবে। এর ফলে অবৈধ অর্থ উপার্জনের প্রবণতাও কমবে। আর ডিজিটাল লেনদেন হলে সহজেই ধরা পড়বে অবৈধ লেনদেন।

কক্সবাজার মডেল হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক কে এম রমজান আলী জানান, মোবাইল ব্যাংকিংয়ের আওতায় সরকারি নানা বিল প্রদান, পরিবার-পরিজনকে টাকা পাঠানো, কেনাকাটা, বেতন-ভাতা, মোবাইল রিচার্জ বাবদ লেনদেন করছেন গ্রাহকরা। এই মাধ্যম দিনদিন আরও বাড়বে বলে বিশ্বাস করি।

কক্সবাজারে বাড়ছে ডিজিটাল মাধ্যমে কেনাকাটা

জানাগেছে, বাংলাদেশে মোবাইলের মাধ্যমে আর্থিক সেবার যাত্রা শুরু হয় ২০১১ সালের মার্চে। বর্তমানে ১৩টি ব্যাংক এই সেবা দিচ্ছে। মোবাইল ব্যাংকিং এখন শুধু টাকা পাঠানোর মাধ্যম নয় বরং ব্যবহৃত হচ্ছে সব ধরনের ছোট ছোট লেনদেনে। বিশেষ করে সরকারি বিভিন্ন বিল পরিশোধ, স্কুলের বেতন পরিশোধ, কেনাকাটা, সরকারি ভাতা গ্রহণ, টিকিট ক্রয়, বিমার প্রিমিয়াম পরিশোধ, মোবাইল রিচার্জ ও অনুদান প্রদানের অন্যতম মাধ্যম এমএফএস।

মোবাইল ব্যাংকিংয়ে টাকা জমা করতে এজেন্ট পর্যন্ত পৌঁছাতে হচ্ছে না। ব্যাংক বা কার্ড থেকে টাকা আনা যাচ্ছে এসব হিসাবে। আবার এসব হিসাব থেকে ব্যাংকেও টাকা জমা করা যাচ্ছে, ক্রেডিট কার্ড বা সঞ্চয়ী আমানতের কিস্তিও জমা দেওয়া যাচ্ছে।

আর্থিক খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, অর্থনীতিতে নগদ লেনদেন যত কমবে, অবৈধ অর্থের ব্যবহারও সেই হারে কমে আসবে। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে মানুষ প্রযুক্তি ব্যবহারের দিকেই বেশি ঝুঁকবে। অদূর ভবিষ্যতে নগদ লেনদেন নেমে আসবে প্রায় শূণ্যের কোঠায়।

আরো সংবাদ