সূর্যাস্তের মধ্যদিয়ে বিদায় নিল ২০২২ - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২২শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২২-১২-৩১ ১৩:২৯:৩৫

সূর্যাস্তের মধ্যদিয়ে বিদায় নিল ২০২২

কক্সবাজারে লাখো পর্যটক দেখলো বছরের শেষ সূর্যাস্ত

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার : বছরের শেষ দুই দিনই সাপ্তাহিক ছুটি পড়েছে। এই ছুটিতে প্রিয়জনদের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি ও শেষ সূর্যাস্ত দেখতে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারে ছুটে এসেছে লাখো পর্যটক। প্রতিবছর ইংরেজি নতুন বছরকে বরণ ও পুরোনো বছরকে বিদায় দিতে সৈকতপাড়ে দেশের নানা প্রান্ত থেকে মানুষ ছুটে আসে।

তবে এ বছর সমুদ্র সৈকতে থার্টি ফার্স্ট নাইট উপলক্ষে কনসার্ট বা বালিয়াড়িতে অনুষ্ঠান না থাকায় পর্যটকের উপড়ে পড়া ভিড় থাকছে না বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। অবশ্যই তারকা মানের হোটেলগুলোতে পর্যটকদের জন্য নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন রয়েছে। কেবল গত সপ্তাহের বড়দিনসহ তিন দিনের ছুটিতে বেশি পর্যটক কক্সবাজার ভ্রমণে এসেছিলো। অন্যদিকে, পর্যটকদের নিরাপত্তায় সতর্ক অবস্থায় রয়েছে ট্যুরিস্ট পুলিশ, লাইফ গার্ডের সদস্যরা।

ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজার অঞ্চলের সহকারী পুলিশ সুপার চৌধুরী মিজানুজ্জামান বলেন, পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তায় বাড়তি টহল ও নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। এদিকে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মাসুম বিল্লাহ জানান, পর্যটক হয়রানী রোধে নানামূখী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। শহরের প্রবেশদ্বার কলাতলীতে খোলা হয়েছে তথ্য সেবা কেন্দ্র। যাতে পর্যটকরা সহজে ভ্রমন সংক্রান্ত তথ্য সহজে পেতে পারে।

অপরদিক পর্যটক হয়রানী রোধে প্রশাসনের একাধিক টিম কাজ করছে। হয়রানীর অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথে নেওয়া হচ্ছে ব্যবস্থা। এদিকে ভ্রমনে আসা পর্যটকরা জানান, নতুন বছর যেন ভালো কাটুক সকলের, সে আশা তাদের।

হোটেল ব্যবসায়ীরা বলছেন, ইংরেজি নতুন বছরকে বরণ ও পুরোনো বছরকে বিদায় উপলক্ষে কক্সবাজারে অন্তত দুই লাখের বেশী পর্যটক সমাগম হয়েছে।

কিন্তু গত ৫ থেকে ৬ বছর ধরে নিরাপত্তার অজুহাতে উন্মুক্ত পর্যায়ে কোনো ধরণের অনুষ্ঠানের আয়োজন নেই। এতে থার্টি ফাস্ট নাইট উপলক্ষে পর্যটক আগমনে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। প্রতিবছর হোটেল-মোটেলে ৮০ থেকে ৯০ শতাংশ আগাম বুকিং হলেও এবছর কিছুটা কম। এরপরও থার্টি ফার্স্ট নাইট উপলক্ষে ইতোমধ্যে বিপুল সংখ্যক পর্যটক এসেছে। তবে থার্টি ফাস্ট নাইট উপলক্ষে উন্মুক্ত পর্যায়ে কোনো না থাকলেও তারকামানের হোটেল-মোটেলগুলোতে সাজসজ্জার পাশাপাশি রয়েছে কনসার্ট, গালা ডিনার ও রুম বুকিংয়ে বিশেষ ছাড়াসহ নানা আয়োজন।

পর্যটন ব্যবসায়ীরা বলছেন, পর্যটকদের একটি বড় অংশ কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের পাশাপাশি দেশের একমাত্র প্রবালসমৃদ্ধ দ্বীপ সেন্ট মার্টিনে ভ্রমণের জন্য আসে। এ বছর টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌ-রুটে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচলে অনুমতি না পাওয়ায় পর্যটকের ভিড় তুলনামূলক কম।

হোটেল মোটেল সুত্র জানিয়েছেন, থার্টি ফার্স্ট নাইট উপলক্ষে তাদের হোটেলে স্পেশাল বুফে ডিনার এবং কালচারাল অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। তারকা মানের হোটেল মোটেল গুলোতে বিভিন্ন ব্যান্ড সংগীতের আয়োজন করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

পর্যটন উদ্যোক্তা জয়নাল আবেদীন বলেন, এবার নতুন বছরে পর্যটকের চাপ কম। কক্সবাজার শহরের হোটেল-মোটেল জোনের কলাতলী ও মেরিন ড্রাইভ সড়কে পাঁচ শতাধিক হোটেল-মোটেল, কটেজ ও রিসোর্ট রয়েছে। এতে কম সংখ্যক পর্যটক রুম বুকিং দিয়েছেন।

কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভ রোডের হোটেল-মোটেল, কটেজ ও রিসোর্ট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মুকিম খান বলেন, নতুন বছরকে বরণ ও পুরোনো বছরকে বিদায় জানাতে সমুদ্র সৈকতে পর্যটকদের বাড়তি চাপ থাকতো। কিন্তু, এ বছর থার্টি ফার্স্ট নাইটে সৈকতে কনসার্ট বা বড় কোনো অনুষ্ঠান না থাকায় পর্যটক আসার ক্ষেত্রে প্রভাব পড়ছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আবু সুফিয়ান জানান, সৈকতের উন্মুক্ত স্থানে কোনো অনুষ্ঠানের আয়োজন করা যাবে না। তবে হোটেলের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করা যাবে।

এদিকে শনিবার (৩১ ডিসেম্বর) কক্সবাজার শহরের লাবণী, সুগন্ধা ও কলাতলী পয়েন্টে ঘুরে দেখা গেছে, কয়েক হাজার পর্যটক সমুদ্রে সৈকতে স্নান ও আনন্দ-উচ্ছ্বাসে মজেছে। বিভিন্ন বয়সের পর্যটকদের কেউ টায়ার টিউবে গা ভাসাচ্ছে, কেউ জলযান নিয়ে সাগর দাপিয়ে বেড়াচ্ছে, কেউ আবার ঘোড়া ও বিচ বাইকে উঠে সৈকত দর্শনে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে।

আবার অনেকেই মেরিন ড্রাইভ ধরে দরিয়ানগর, হিমছড়ি, ইনানী, পাটুয়ারটেক, টেকনাফ সৈকত, সেন্টমার্টিন, মহেশখালী আদিনাথ মন্দির, রামু বৌদ্ধপল্লি, চকরিয়ার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক, নিভৃতে নিসর্গসহ বিভিন্নস্থানে ছুটছে।

উল্লেখ্য, কক্সবাজারের ৫ শতাধিক হোটেল-মোটেলে পর্যটক ধারণ ক্ষমতা রয়েছে অন্তত ২ লাখের বেশী পর্যটক।

আরো সংবাদ