কক্সবাজার আঞ্চলিত পাসপোর্ট অফিসে দুর্নীতি - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১ ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সোমবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০১৫-০৮-০২ ০৯:৩৩:২৯

কক্সবাজার আঞ্চলিত পাসপোর্ট অফিসে দুর্নীতি

Spread the love

 

 

কক্সবাজার  কন্ঠ ডেস্ক:  কক্সবাজার আঞ্চলিত পাসপোর্ট অফিসে দুর্নীতি কোনভাবেই থামছেনা। ‘ঘুষ’ না দিলে আবেদন গ্রহণ করা হয়না। এই ভুল সেই ভুল, কত অভিযোগ। সারাদিন দাঁড়িয়ে রেখে বেলা তিনটার পর ফেরত দেয়া হয় আবেদন ফরম।

অবার কোন কারণে ফরম নিলেও তিনটার পর ফেরত দেয়া হয়। দাবী করা হয় টাকা।

তবে আগে প্রকাশ্যে লেনদেন হলেও এখন চলছে খুব কৌশলে। বিশেষ সংকেতেই জমা নেয়া হচ্ছে আবেদন ফরম। মোট কথা, খামাখাই টাকা চায়। ঘুষের টাকা ছাড়াই কর্তা বাবুরা কিছুই চিনেন না। টাকা দিলে ‘সাত খুন মাফ।!

এ জন্য অনেকেই বলেন, ‘বাইরে ফিটফাট ভিতরে টাকার হাট।!

দুর্নীতির স্টাইল-১

রামু উপজেলার কাউয়ারখোপ উখিয়ারঘোনা এলাকার সজল বড়–য়া। ৩০ জুলাই বৃহস্পতিবার কক্সবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট কার্যালয়ে পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে আসেন। নির্ধারিত আবেদন ফরমের সাথে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রও সংযুক্ত করেন। কাউন্টারে গিয়ে যথারীতি নিজ হাতেই আবেদন ফরমটি জমা করেন। এরপর ফিংগার প্রিন্টের অপেক্ষা। দুপুর পেরিয়ে বেলা তিনটা। তারপরও তার কাছ থেকে ফিংগার প্রিন্ট নেয়া হয়নি। আরো অপেক্ষা, অবশেষে তিনটার পরে ফরমটি ফেরত দেয়া হয়। বলা হয়, কাগজপত্র সব দেয়া হয়নি।

অথচ আবেদন ফরমের সাথে সব কাগজপত্র সংযুক্ত করা আছে। ফরমের ওপরে ‘ওকে’ চিহ্নও দেয়া আছে।

সজল বড়–য়া বলেন, আমার কাছে ১২০০ টাকা দাবী করা হয়। দাবী পুরণ না করায় ফরম ফেরত দেয়। এতে অন্য কোন সমস্যা নেই।

দুর্নীতির স্টাইল-২

একই অভিযোগ পেকুয়া থেকে আসা মুহাম্মদ হেফাজতুর রহমান নামের এক ব্যক্তির।

তিনি বলেন, সকালে আবেদন জমা নেয়া হয়। দুপুর গড়িয়ে বিকেল। এরপরও আমাকে ফিংগারের জন্য ডাকেনি। তিনটার পর ‘জন্মনিবন্ধন’ অনলাইনে নেই বলে তা ফেরত দেয়া হয়। অথচ জন্মনিবন্ধনসহ সকল কাগজই ঠিকঠাক দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, কি আর করার! দূর থেকে এসেছি। বাধ্য হয়ে এক আনসারের মাধ্যমে নগদ ১২০০ টাকা দিই। টাকা পেয়ে আর দেরী করেনি। অল্প সময়েই ফিংগার প্রিন্ট নেয়া হয়। বিষয়টি আমি জেলা প্রশাসককে অভিযোগ আকারে লিখিত জানিয়েছি।

দুর্নীতির স্টাইল-৩

অভিযোগ করেন চকরিয়ার মালুমঘাট থেকে আসা নুরুল আমিন নামে এক ব্যক্তি।

তিনি বলেন, আমি কৃষকের সন্তান। অনেক কষ্টে টাকা জোগাড় করে পাসপোর্ট করতে আসি। ফরম জমা দেয়ার জন্য সকালে লাইনে দাঁড়াই। কিন্তু কোন কারণ ছাড়া আমার আবেদন ফরম জমা নেয়নি। বিষয়টি এক সংবাদকর্মীকে জানাই। পরে ওই সংবাদকর্মীর মাধ্যমে আবেদনটি জমা করি। কিন্তু সংবাদকর্মী চলে যাওয়ার পরে আমার আবেদনটি ফেরত দেয়া হয়। বলা হয় ভুল আছে।

আমি বাধ্য হয়ে তাদের দাবী মতে ১২০০ টাকা দিয়ে ফরম জমা করি। তারপর আমার ফিংগার প্রিন্ট নেয়া হয়। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসককে আমি লিখিত অভিযোগ করেছি।

দুর্নীতির স্টাইল-৪

একই অভিযোগ পেকুয়া থেকে আসা মো. আক্তার হোসেনসহ অনেক আবেদনকারীর। যারা প্রতিনিয়তই পাসপোর্ট অফিসে এসে হয়রানীর শিকার হন।

তাদের দাবী, সরকারের কোষাগারে টাকা জমা দেয়ার পরও কি কারণে পাসপোর্ট আবেদন জমা নেয়া হয়না তা খতিয়ে দেখা হোক।

দীর্ঘদিনের অভিযোগ,

কক্সবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে হয়রানী ও দূর্নীতি থেমে নেই। আবেদন ফরম জমা নিয়ে প্রতিদিন ঘটছে বাকবিতন্ডা। ব্যাংকে নির্দষ্ট পরিমাণ টাকা ও আবেদনের সাথে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দেয়ার পরও অতিরিক্ত দেড় হাজার থেকে দুই হাজার দিতে হয় কর্তাবাবুদের। এসব কাজে জড়িত রয়েছে চিহ্নিত কয়েকজন আনসার।

কক্সবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উপ-সহকারী পরিচালক শওকত কামাল ও উচ্চমান সহকারী আবু হানিফ মোস্তফা কামালের সমন্বয়ে গড়ে ওঠেছে শক্তিশালী সিন্ডিকেট। পাসপোর্ট অফিসে আবেদন ফরম জমা করতে এসে হয়রানীর ঘটনা এখন ওপেন সিক্রেট।

একটি পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, দৈনিক বৈধ ও অবৈধ নতুন সাধারণ বা জরুরী অথবা হালনাগাদ করার পাসপোর্ট ফরম জমা পড়ে শতাধিক। এ হিসেবে সরকারী ছুটির দিন বাদে প্রতি মাসে ২০ কর্ম দিবসে অন্তত ৪০ লাখ টাকা অবৈধ উপায়ে আদায় করা হয় কক্সবাজার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে।

জনগণের পকেট কেটে নেয়া টাকায় অফিসাররা বনেছেন গাড়ী-বাড়ীর মালিক। করছেন আরেম-আয়েশী জীবন। দম্ভ করে বলেন, ‘আমাকে ঠেকায় কে?’

শুধু তাই নয়, উপ-সহকারী পরিচালক শওকত কামাল ও উচ্চমান সহকারী আবু হানিফ মোস্তফা কামালের বিরুদ্ধে রোহিঙ্গাদের পাসপোর্টর আবেদন ফরম গ্রহণের অভিযোগ রয়েছে। মোটা অংকের টাকা নিয়েই চুক্তি ভিত্তিক ভুয়া আইডি কার্ড, জন্ম নিবন্ধন সনদ ও চেয়ারম্যান সনদ সম্বলিত আবেদন ফরম জমা করতে সর্বনিম্ন ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করার একাধিক তথ্য প্রমাণ সহ অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বৈধ হোক আর অবৈধ হোক ফরম জমা করতে গেলেই ১৫শ থেকে দুই হাজার টাকা বিনা রশিদে জমা দিতে হচ্ছে সেখানে।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত উপ-সহকারী পরিচালক শওকত কামাল ও উচ্চমান সহকারী আবু হানিফ মোস্তফা কামালের বক্তব্য জানতে ফোন দেয়া হয়। কিন্তু ফোন ধরেননি। এ কারণে তাদের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

আরো সংবাদ