কক্সবাজার এলএ শাখার সার্ভেয়ার সাইফুলের সিন্ডিকেট কান্ড ! - কক্সবাজার কন্ঠ

বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০২২ ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বৃহস্পতিবার

প্রকাশ :  ২০২২-১১-২৪ ০৪:১১:০০

কক্সবাজার এলএ শাখার সার্ভেয়ার সাইফুলের সিন্ডিকেট কান্ড !

কক্সবাজার এলএ শাখার সার্ভেয়ার সাইফুলের সিন্ডিকেট কান্ড !
সংবাদটি শেয়ার করুন

বার্তা পরিবেশক : কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখার সার্ভেয়ার সাইফুলের বিরুদ্ধে আবারও নানা অভিযোগ উঠেছে। যদিও কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের রাজস্ব শাখা অনিয়ম আর দুর্নীতি বন্ধে নানা কৌশল অবলম্ভন করলেও সাইফুলদের কারনে বরাবরই এলএ শাখার দুর্নীতির দুর্গন্ধ রয়ে যায়। যার কারনে প্রতিনিয়ত ভূমির মালিকেরা হয়রানি শিকার হচ্ছে।

জানাগেছে, তাপবিদ্যুৎ প্রকল্পের জন্য কোল পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানী বাংলাদেশ লিমিটেড কক্সবাজারের মহেশখালীর মাতারবাড়ি হতে ১৪০০ একর জমি অধিগ্রহণ করে। ওই অধিগ্রহণকৃত জমির ফাইল দেখভাল করার জন্য দায়িত্ব পেয়েছিলেন জনৈক আসিবুল হাসান। সে সুবাদে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের এলএ শাখায় যাওয়া আসা করতেন আসিবুল। প্রকল্পটির কাজ শেষ হয়ে গেলেও ৩ নাম্বার সেকশনের সার্ভেয়ার সাইফুলের সাথে এখনও আসিবের কমিশন বাণিজ্য রয়েছে বলে ভূক্তভোগিদের মাঝে অভিযোগ উঠেছে।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগি মহেশখালী উপজেলার ঝাঁপুয়ার বাসিন্দা গিয়াস উদ্দিন, কায়সারুল হক ও মিনহাজুল ইসলামসহ অনেকে বলেন, সার্ভেয়ার সাইফুলের সব লেনদেন করছেন আসিবুল হাসান। তিনি মাঠে ময়দানে সার্ভেয়ারের আপন মানুষ সেজে জমির মালিকদেরকে নানাভাবে হয়রানি চালিয়ে আসছে। শুধু তাই নয়; সার্ভেয়ার সাইফুলের কাছে কেউ ফাইল নিয়ে কথা বললে তিনি আসিবুলকে দেখিয়ে দেন। পাশাপাশি টাকা উত্তোলন করে দেওয়ার অজুহাতে অতিরিক্ত কমিশন দাবী করেন। এ বিষয়টি ভূক্তভোগিরা সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অবগত করেছেন বলেও দাবী করেছেন।

জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ সূত্র থেকে জানাগেছে, কোল পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানী বাংলাদেশ লিমিটেড মাতারবাড়ি থেকে ১৪০০ একর অধিগ্রহণকৃত জমির ফাইল দেখভাল করতেন আসিবুল। সে সুবাদে তিনি এলএ শাখায় যাওয়া আসা করতেন। প্রকল্পটির কাজ শেষ হয়ে গেলেও ৩ নাম্বার সেকশনের সার্ভেয়ার সাইফুলের সাথে আসিবের কমিশন বাণিজ্য চলমান রয়েছে বলে ভূক্তভোগিদের মাঝে মিশ্রপ্রতিক্রিয়া দেখা যায়। যার কারনে আসিবকে এলএ শাখায় না যেতে বলা হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থাও প্রক্রিয়াধীন বলে সূত্রটি দাবী করেন।

তবে অভিযোগের বিষয়ে আসিবুল হাসান প্রতিবেদককে জানান, আমি এক সময় কোল পাওয়ারে চাকরি করতাম। এজন্য আমাকে এলএ অফিসে যাওয়া আসা করতে হতো। বর্তমানে আমার চাকরি নেই; সুতরাং এলএ শাখায়ও আর যায়নি। তিনি আরও জানান, সার্ভেয়ার সাইফুল ইসলামের সাথে আমার পরিচয় রয়েছে কিন্তু অন্যকোনো লেনদেন নেই।
অভিযোগের বিষয়ে জানতে মোবাইল ফোনে সার্ভেয়ার সাইফুল ইসলামের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ হলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় বক্তব্য দেওয়া সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে কক্সবাজার সোসাইটির সভাপতি কমরেড গিয়াস উদ্দিন বলেন, ভূমি অধিগ্রহণ শাখা হতে দুর্নীতির ভূত তাড়ানো সহজ নয়। সার্ভেয়ার সাইফুল ইসলামের মতো আরও কতো কর্মচারি কতো কিছু করছে। কক্সবাজার ভূমি অধিগ্রহণ শাখাকে দুর্নীতি মুক্ত করার জন্য জেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদের প্রতি তিনি আহবান জানান।

সূত্র : দৈনিক আজকের দেশবিদেশ।


সংবাদটি শেয়ার করুন
 
 0   
  
      

আরো সংবাদ