কক্সবাজার এলএ শাখা থেকে যায়নি দুর্নীতির ভূত - কক্সবাজার কন্ঠ

মঙ্গলবার, ৯ আগস্ট ২০২২ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মঙ্গলবার

প্রকাশ :  ২০২২-০৭-০২ ১১:৪৫:৫৪

কক্সবাজার এলএ শাখা থেকে যায়নি দুর্নীতির ভূত

কয়েক কোটি টাকার জাল নোট বাজারে !
শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক : কক্সবাজার এলএ শাখা থেকে এখনও নিমূল করা সম্ভব হয়নি দুর্নীতির ভূত। ভূমি অধিগ্রহণের টাকা তুলতে গেলেই সাধারণ মানুষকে পদে পদে হয়রানির শিকার হতে হয়। এর মূল কারিগর হিসেবে কাজ করে থাকে সার্ভেয়াররা। বর্তমান সময়েও এলএ শাখা থেকে দুর্নীতির ভূত তাড়ানো সম্ভব হয়নি। গেল ১ জুলাই যার প্রমাণ মেললো।

ঢাকা হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ঘুষের ২৩ লাখ টাকা নিয়ে ধরা খেলো সার্ভেয়ার আতিক। সকাল সাড়ে ১০ টায় নগদ টাকাসহ তাকে আটক করেন বিমানবন্দরের নিরাপত্তাকর্মীরা।

দুদক সম্মিলিত কক্সবাজার কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মনিরুল ইসলাম আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেছেন, কক্সবাজার এলএ শাখায় কর্মরত সার্ভেয়ার আতিককে ২৩ লাখ টাকা সহ আটক করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে টাকাগুলোর উৎস সম্পর্কে সদুত্তর দিতে পারেনি।

এদিকে, সার্ভেয়ার আতিকের আটক হওয়ার পর গণমাধ্যমগুলোর পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদের সঙ্গে বিভিন্নভাবে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। তবে, তিনি কারো ফোন রিসিভ করেননি।

তবে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আমিন আল পারভেজ বলেছেন, সার্ভেয়ার আতিকুর এই টাকার বৈধ কোনো উৎস দেখাতে পারেননি। এই টাকা নিয়ে তিনি উড়োজাহাজে ঢাকায় যাচ্ছিলেন। কার কাছে যাচ্ছিলেন, এতো টাকা তিনি কোথায় পেলেন, এসব বিষয় তদন্তে বেরিয়ে আসবে।

জানাগেছে, গেল ১ জুলাই সকাল পৌনে ১০ টায় ইউএস বাংলার একটি বিমানে করে ঢাকার উদ্দেশ্যে কক্সবাজার ত্যাগ করে সার্ভেয়ার আতিক। বিমানটি ঢাকায় অবতরণের কিছুক্ষণ পর অর্থাৎ সাড়ে ১০ টার দিকে তাকে বিমানবন্দরের নিরাপত্তাকর্মীরা আটক করেন।

এদিকে, আতিকের আটকের সংবাদ প্রচারিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে কক্সবাজারে শোরগোল পড়ে যায়। ভূমি অধিগ্রহণের ফাইল আটকে রেখে কমিশনের নামে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার বিষয়টি মুখে মুখে হয়ে যায়। এ কাজে এলএ শাখার আরও কয়েকজন কর্মচারি এবং সার্ভেয়ারের নামও প্রকাশ হতে থাকে।

নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানিয়েছে, প্রতি সপ্তাহেই মোটা অংকের নগদ টাকা নিয়ে সার্ভেয়ার আতিক ঢাকায় যেতেন। মাঝে মাঝে তাকে সপ্তাহে কয়েকবার ঢাকা যেতেও দেখা গেছে। তবে, কার কাছে টাকাগুলো নিয়ে যেতো তা এখনও স্পষ্ট নয়।

শনিবার (২ জুলাই) দুপুরে আটক সার্ভেয়ার আতিককে আদালতের মাধ্যমে কক্সবাজার জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার সদর থানার ওসি (তদন্ত) সেলিম উদ্দিন।

উল্লেখ্য, ৩ লাখ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭৫টি মেগাপ্রকল্পসহ কয়েকটি প্রকল্পের জন্য প্রায় ২০ হাজার একর জমি অধিগ্রহণ করছে সরকার।

ইতোমধ্যে বেশ কিছু জমির অধিগ্রহণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। অধিগ্রহণের প্রাথমিক পর্যায়ে জরিপের কাজ করেন সার্ভেয়ারা। ফলে গোঁড়া থেকেই শুরু হয় ব্যাপক দুর্নীতি।

ইতঃপূর্বে ২০২০ খ্রিস্টাব্দের ১৯ ফেব্রুয়ারি প্রায় কোটি টাকাসহ সার্ভেয়ার ওয়াসিম ও ফেরদৌসকে আটক করে র‌্যাব। তারা দীর্ঘদিন ধরে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের এলএ শাখায় মহেশখালীর কয়লা বিদ্যুত প্রকল্প ও রেলের ভূমি অধিগ্রহণে কোটি কোটি টাকার চেক জালিয়াতি ও ঘুষ লেনদেনে জড়িত ছিলো।


শেয়ার করুন

আরো সংবাদ