কক্সবাজার কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট অফিসে দুর্নীতি - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর ২০২২ ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০২২-১১-১৯ ১৩:০৩:০৬

কক্সবাজার কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট অফিসে দুর্নীতি

কক্সবাজার কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট অফিসে দুর্নীতি
সংবাদটি শেয়ার করুন

জসিম সিদ্দিকী : কক্সবাজার কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট অফিসের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। হোটেল-রেস্টুরেন্টগুলোর মালিকদের কাছ থেকে আদায় করা ভ্যাটের হাজার কোটি টাকা মিলেমিশে লোপাট করা হচ্ছে। হোটেল-রেস্টুরেন্টগুলো মাসিক চুক্তি অনুযায়ী ভ্যাট কর্মকর্তাদের ঘুষ দিয়ে নামমাত্র ভ্যাট প্রদান করে যাচ্ছে বলে অভিযোগ দীর্ঘদিনের।

সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা বলছেন, পর্যটন নগরী কক্সবাজার হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আদায়ের ক্ষেত্র। কিন্তু অসাধু ব্যবস্থাপনার কারণে রাষ্ট্রের নামে জনগণ থেকে আহরিত রাজস্ব সঠিকভাবে কোষাগারে যায়না। ফলে কক্সবাজার ঝুঁপড়িই থাকছে। কিন্তু বাটোয়ারায় রাজস্ব লুন্ঠনে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হচ্ছে কেউ কেউ। এসব বিষয় সচরাচর সবাই এড়িয়ে যায় বলে ঘটনা আড়ালেই থেকে যায়।

ভুক্তভোগীরা বলেন, উক্ত অফিসে কর্মরত কর্তাদের হুমকি-ধমকির কারণে আমরা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে টিকিয়ে রাখার জন্য তারা যা বলেন তা জ্বী স্যার বা হুজুর বলে করে যাচ্ছি। তাদের কথার উপর দ্বিমত পোষণ করলে বিভিন্ন ধরনের হয়রানিসহ প্রতিষ্ঠানের ডকুমেন্ট, পিসি জব্দ করে নিয়ে এসে লাখ লাখ টাকায় তাদের সাথে দফারফা করে ছাড়িয়ে আনতে হয়। আমরা আছি এক মহা যন্ত্রণায়। এ যন্ত্রণা থেকে মুক্তি দিতে পারে সরকার, অর্থ মন্ত্রণালয়, এনবিআর ও দুদকের হস্তক্ষেপের ফলে। তখন ব্যবসায়ীরা তাদের মতো সিন্ডিকেট ঘুষখোরদের লাঞ্ছনা ও বঞ্চনা থেকে রেহাই পাবে।

ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করে বলেন, কাস্টমস কর্তৃপক্ষের প্রিভেন্টিভ টিম সিন্ডিকেট করে কিছু অসৎ ব্যবসায়ীদেরকে সাথে নিয়ে সরকারের রাজস্বকে গিলে খাওয়ার কু-মানসে অবৈধভাবে অধিক পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে।
সূত্রে জানা যায়, কক্সবাজার পর্যটন নগরীতে কটেজ এবং আবাসিক হোটেলসহ অন্তত ৫০০ টির অধিক প্রতিষ্ঠান রয়েছে। কিন্তু ভ্যাট প্রদান করেন মাত্র শতাধিক প্রতিষ্ঠান। ভ্যাট কর্মকর্তাদের চরম দুর্নীতির কারণে অবশিষ্ট প্রতিষ্ঠান সমূহ থেকে মাসোহারা নিয়ে তাদেরকে ভ্যাট নিবন্ধন ব্যাতিরেকে ব্যবসা পরিচালনা করার সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়ে চলছে। একই অবস্থা চলছে রেস্টুরেন্টগুলোতেও। অবশিষ্ট প্রতিষ্ঠান সমূহ দু’তিন মাস পরপর নামমাত্র ভ্যাট প্রদান করে থাকেন। তাদের ভ্যাট প্রদান মাত্র ১ থেকে ৫ হাজার টাকা। তাও সরকারের নিয়ম বহির্ভুত।

এসব রেস্টুরেন্ট থেকে মাসোহারা নিয়ে প্রতিমাসে ভ্যাট প্রদানে বাধ্য করে না। বলতে গেলে তাদের সাথে আতাঁত করে ব্যবসা কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে ব্যবসায়ীরা।

সূত্র আরও জানা যায়, কলাতলীর হোটেল-মোটেল জোনসহ বিভিন্ন এলাকায় অনিবন্ধিত ২ শতাধিক প্রতিষ্ঠান রয়েছে। (যারা ভ্যাটের আওতায় অন্তর্ভুক্ত নয়)। আর বাকি প্রতিষ্ঠানগুলোকে রাজস্ব ফাঁকি দেয়ার অভিপ্রায়ে এখনও ভ্যাট নিবন্ধন করেননি দুর্নীতিবাজ সিন্ডিকেটধারী কর্মকর্তারা।

এছাড়া বাসটার্মিনাল থেকে শহরের ঝাউতলার গ্রীনলাইনের কাউন্টার পর্যন্ত অসংখ্য ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান রয়েছে। তার মধ্যে ৪০ থেকে ৫০টি প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানির ডিলার হিসেবে পরিচিত। তাদের মধ্যে রয়েছে মার্কস দুধ, ইলেকট্রনিক্স ডিস্ট্রিবিউটর, স্যানিটারি আইটেমস ডিস্ট্রিবিউটর, বিভিন্ন কোম্পানির রঙের ডিস্ট্রিবিউটর, মোটর সাইকেলের শো-রুম, সিমেন্ট কোম্পানি এবং নানা ধরনের প্রতিষ্ঠান। ঐ সকল প্রতিষ্ঠান ২০১৮-২০১৯ সাল পর্যন্ত প্যাকেজ ভ্যাট প্রদান করতো। কিন্তু সরকার ২০১৯-২০ প্যাকেজ ভ্যাট বন্ধ করে দেওয়ায় তারা কোনও ভ্যাট প্রদান করেনি। সরকারকে রাজস্ব না দিয়ে রাজার হালে তারা ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনা করে আসছে। শুধুমাত্র দুর্নীতিবাজ ও ঘুষখোর সিন্ডিকেটের মাসোহারা বাণিজ্যের কারণে।

এদিকে ভ্যাটের হাজার কোটি টাকা লোপাটের সত্যতা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। বুধবার (১৬ নভেম্বর) একটি গণমাধ্যমে ভ্যাটের হাজার কোটি টাকা মিলেমিশে লোপাট শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। প্রতিবেদনটি বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চের নজরে আনেন সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইসরাত জাহান শান্তনা।

বিষয়টি আমলে নিয়ে রাষ্ট্রপক্ষকে এবং দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক) প্রতিবেদনের সত্যতা অনুসন্ধান করতে বলেছেন আদালত। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক এ তথ্য নিশ্চিত করেন। আদালতে দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী এমএ আজিজ খান।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক জানান, হাইকোর্ট রাষ্ট্র ও দুদককে খবর নিতে মৌখিক নির্দেশ দিয়েছেন। এ বিষয়ে আগামী ২০ নভেম্বর সংশ্লিষ্টদের আদালতে অগ্রগতি জানাতে হবে।

এ বিষয়ে আরও জানতে কক্সবাজার কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট অফিসের রাজস্ব কর্মকর্তা হারুন অর রশীদের সাথে কথা হলে তিনি জানান, এ ব্যাপারে তথ্য দেওয়া আইনগত বাধা রয়েছে। উপ-পরিচালক মোহাম্মদ আল আমিন স্যার জরুরী কাজে ঢাকায় অবস্থান করছেন; তিনি আসলে এ নিয়ে কথা বলা যেতে পারে।

এদিকে কাস্টমস কর্মকর্তাদের সিন্ডিকেটের কারণে সরকার হারাচ্ছে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব। এ ব্যাপারে সরকার, অর্থমন্ত্রণালয়, এনবিআর, দুদকসহ সকলকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে তদন্ত সাপেক্ষে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করে পর্যটন রাজধানীর ব্যবসায়ীদের ব্যবসা পরিচালনা করার সুযোগ দেওয়ার জন্য আকুল আবেদন জানিয়েছেন ভুক্তভোগী ব্যবসায়ীরা।


সংবাদটি শেয়ার করুন
 
     
  
      

আরো সংবাদ