কক্সবাজার বিমানবন্দর : যতো অভিযোগ প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৪-০১-১৪ ১৩:৩৮:৩০

কক্সবাজার বিমানবন্দর : যতো অভিযোগ প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে

কক্সবাজার বিমান বন্দর : যতো অভিযোগ প্রধান প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে

কক্সবাজার : কক্সবাজারে বিমান বন্দর স¤প্রসারণ প্রকল্পের চলমান কাজে ও বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্পে নিয়োজিত ঠিকাদার আবদুল হামিদ প্রায় শত কোটি টাকার অনিয়মকে ঢাকা দিতে নতুন মিশনে নেমেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। প্রধান প্রকৌশলীকে আরও এক বছর বহাল রাখতে গোপন বৈঠকে বসার খবরে পর্যটন শহর কক্সবাজারে চলছে তোলপাড়।

জানাগেছে, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের প্রধান প্রকৌশলী আবদুল মালেককে ইতোপূর্বে চুক্তিভিত্তিক এক বছর মেয়াদ বাড়ানো হয়েছিল। ২২ জানুয়ারিতে ওই মেয়াদ সমাপ্ত হবে। এ জন্য সিভিল এভিয়েশনের প্রভাবশালী ওই ঠিকাদার মোটা অঙ্কের টাকার যোগান দিচ্ছে। এতে তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আমিনুল হাসিব ও কক্সবাজার বিমান বন্দর নির্মাণ প্রকল্প পরিচালক ইউনুচ ভূইয়া সহযোগিতা দিচ্ছে বলে বিভিন্ন সূত্র দাবী করছে।

সূত্রে প্রকাশ, সিভিল এভিয়েশনের প্রধান প্রকৌশলীর সঙ্গে আঁতাত করে প্রভাবশালী ঠিকাদার আবদুল হামিদ বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ ভাগিয়ে নেন। এরইমধ্যে কক্সবাজার বিমান বন্দর প্রকল্পের আওতার বাহিরে প্রায় ৮০ কোটি টাকার কাজ করছেন এই ঠিকাদার। এসব কাজে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতি হয়েছে বলে জনশ্রæতি আছে।

বেসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রণালয়ের একটি টিম ডিসেম্বর থেকে কক্সবাজারে অবস্থান করেছেন। এই টিমের সদস্যদের ম্যানেজ করে প্রধান প্রকৌশলীর চুক্তির মেয়াদ আরও এক বছর বাড়ানোর জন্য দফায় দফায় কক্সবাজারে বৈঠক হয়েছে বলে সূত্রটি নিশ্চিত করেছে।

প্রধান প্রকৌশলীর চাকরির মেয়াদ ২০২১ সালে শেষ হয়। কিন্তু অবসরে না গিয়ে এক বছরের জন্য চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ নেন তিনি। ২০২৪ সালের ২২ জানুয়ারি এক বছরের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। আরও এক বছর মেয়াদ বাড়ানোর জন্য এই সিন্ডিকেট মোটা অঙ্কের টাকার মিশন নিয়ে তোড়জোড় শুরু করেছে।

ইতোমধ্যে বেসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রণালয়ের একটি টিম কক্সবাজারে অবস্থান করে বিমান বন্দর স¤প্রসারণ কাজের অগ্রগতিও পরির্শন করেছেন। এরই মাঝে প্রধান প্রকৌশলীর চুক্তিভিত্তিক মেয়াদ আরও এক বছর বাড়ানোর মিশনের খবর ছড়িয়ে পড়ায় কক্সবাজারে সর্বত্র তোলপাড় চলছে।

ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক ৩য় টার্মিনালে ইলেক্ট্রিক্যাল কাজে নিয়োজিত ঠিকাদাররাও তার মেয়াদ বৃদ্ধিতে অর্থ যোগান দিচ্ছে বলে সূত্রে জানা গেছে। এ খবর জানতে পেরে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন কক্সবাজারবাসী।

প্রধান প্রকৌশলী বিভিন্ন সময় কক্সবাজারে উন্নয়ন প্রকল্প পরিদর্শনের নামে বিভিন্ন সময় ভ্রমণে এসে সরকারি রেস্ট হাউসে না উঠে কলাতলি তারকা মানের হোটেলে রাত যাপন করতেন বলে জানিয়েছেন একটি সংস্থা। ওই তারকা মানের হোটেলে তার সঙ্গে গোপন বৈঠক করত বিভিন্ন ঠিকাদার। সেখান থেকেই পরিকল্পনা করা হতো দেশের বিভিন্ন স্থানে উন্নয়ন কাজ ভাগ ভাটোয়ারার মিশন।

সিভিল এভিয়েশন সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, প্রধান প্রকৌশলী আবদুল মালেক অবসরে গেলে কক্সবাজারসহ সারাদেশে কোটি কোটি টাকার দুর্নীতির ঘটনা প্রকাশ পাবে বলে আশঙ্কা করছেন ওই সিন্ডিকেট। সিভিল এভিয়েশনের চেয়ারম্যানকে ভাগে আনতে তার ভায়রাকে কক্সবাজারে ২০ কোটি টাকার কাজ দিয়েছে এই প্রধান প্রকৌশলী।

এ কাজ সমাপ্ত করে নতুন বছরের জন্য আরও কোটি কোটি টাকার কাজও পাইয়ে দেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছেন বলে সূত্রে প্রকাশ। এদিকে, সিভিল এভিয়েশনের প্রধান প্রকৌশলীর অর্থের বিনিময়ে জুনিয়র প্রকৌশলীদের পদোন্নতি দিয়েছেন। এতে করে অভিজ্ঞ ও অনেক সিনিয়র প্রকৌশলী পদোন্নতি না পেয়ে এখনো হতাশ। এমনকি বিসিএস না হয়েও অনেককে প্রকৌশলীর পদোন্নতি দিয়ে বড় বড় প্রকল্পে বসিয়ে তিনি বিপুল অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন।

আরো সংবাদ