কক্সবাজার মেডিকেল কলেজে চলছে অব্যবস্থাপনা আর দুর্নীতি - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ২০ জুন ২০২১ ৬ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৫-২৯ ১৪:১৩:০৪

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজে চলছে অব্যবস্থাপনা আর দুর্নীতি

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজে চলছে অব্যবস্থাপনা আর দুর্নীতি
Spread the love

কক্সবাজার কন্ঠ ডেস্ক :  কক্সবাজার সরকারি মেডিকেল কলেজের বিরুদ্ধে আবারও অব্যবস্থাপনা ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। চলমান মহামারি করোনাকে পুঁজি করে চরম অব্যবস্থাপনায় চলছে সরকারি এ কলেজের কার্যক্রম। প্রয়োজন না থাকার সত্বেও বিপুল পরিমাণ ফার্নিচার ক্রয় করেছে কলেজ কর্তৃপক্ষ। সরকারি খাতায় ওই ফার্নিচারের বাজার মূল্যের চেয়ে কয়েক গুন বেশি দাম দেখানো হয়েছে। অথচ ক্রয়কৃত এ ফার্নিচার এখন ব্যবহার হচ্ছে বাথরুমে! অন্যদিকে নষ্ট হচ্ছে বেশির ভাগ আসবাবপত্র। এভাবে দুর্নীতিবাজরা সরকারি টাকা লুটপাট করেছে। ঘটনাটি টপ অফ কক্সবাজারে পরিণত হয়েছিলো। এখন সেখানে যুক্ত হয়েছে অব্যবস্থাপনা। এ ব্যাপারে উদ্ধতন কর্তৃপক্ষের নজরধারি কামনা করেছেন কক্সবাজারবাসী।

গেল ২৪ মে বেলা ১১ টা থেকে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের বিভিন্ন ফ্লোরে গিয়ে দেখা গেছে, বেশির ভাগ রুম তালা দেয়া। পুরো ভবনে মাত্র ২/৩টি রুমে শিক্ষক কর্মচারীদের স্বাক্ষাত পাওয়া গেলেও বেশির ভাগ ক্লাস রুম, পরীক্ষাগার, লাইব্রেরী রুমসহ দাপ্তরিক সমস্ত রুম ছিল তালা দেয়া। তবে বেশির ভাগ রুমের সামনে এবং বড় হল রুমে এলোমেলোভাবে পড়ে আছে চেয়ার, টেবিল, সোফাসহ প্রয়োজনীয় ফার্নিচার।

এছাড়া বেশ কয়েকটি রুমে দীর্ঘদিন ব্যবহার ছাড়াই পড়ে আছে কিছু সরঞ্জাম। তবে অবাক করার বিষয় হলো, বাথরুমে বসানো হয়েছে চেয়ার। তাও ভুল করে একটি বাথরুমে নয় দুটি বাথরুমে চেয়ার বসানো দেখা গেছে। এছাড়া উপরের তলায় ব্যবহার না করেই নষ্ট হচ্ছে বেশির ভাগ ফার্নিচার। পরে এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মচারী বলেন, এগুলো ২০১৭-২০১৮ সালে ক্রয় করা ফার্নিচার। যা এখনও পর্যন্ত ব্যবহার করা হয়নি। যে গুলো নিয়ে পরে দুর্নীতি দমন কমিশন ৩৭ কোটি ৫০ লাখ টাকার অনিয়মের অভিযোগে মামলা দায়ের করেছিল। তিনি বলেন, এখানে এক সময় কয়েক শত কোটি টাকার অনিয়ম দুর্নীতি হয়েছে যা এখনও চলছে। কক্সবাজার মেডিকেল কলেজে একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট আছে যা এখনও বহাল তবিয়তে আছে। তবে সেই দুর্নীতি মামলা এখনও পর্যন্ত তদন্তাধীন আছে।

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের এক অধ্যাপক জানান, এখন করোনকালীন সময়, তাই বেশির ভাগ ক্লাস হয় অনলাইনে, আর পরীক্ষাও হয় কিছু নিয়ম মত। তাই অনেকে এখন কলেজে আসেনা। আর অনিয়ম দুর্নীতির বিষয়ে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ২০১৯ সাল ছিল আমার জীবনের সব চেয়ে ভয়ংকর দিন। সে সময় আমার জীবনের কঠিন সময় গেছে। কোন কিছু না করে আমাদের দুদকে ডাকা হয়েছিল সেটা বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে এসেছিল তখন লজ্জায় ছেলেমেয়েদের সামনেও দাঁড়াতে পারিনি। নীরবে অনেক কেঁদেছি। আমরা কিছুই জানিনা। তৎকালীন সময়ে অধ্যক্ষ আমাদের বিভিন্ন কমিটিতে দায়িত্ব দিয়েছি বলে কাগজে স্বাক্ষর নিয়েছে। সেই স্বাক্ষরেই আমার জন্য কাল হয়ে দাঁড়িয়েছিল। সত্যি কথা হচ্ছে, এখানে যে এতো বিপুল টাকার অনিয়ম দুর্নীতি হয়েছে সেটা আমরা জানতাম না। পরে খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছি এখানে আমাদের ব্যবহার করে অন্তত অর্ধশত কোটি টাকার দুর্নীতি হয়েছে। আমার প্রশ্ন হচ্ছে বাজারে একটি চেয়ার যদি ৩ হাজার টাকা হয়, সেটা কিভাবে মেডিকেল কলেজের জন্য ১৩ হাজার টাকা হয়। আর আমার যদি প্রয়োজন না হয় তাহলে আমার কি দরকার ছিল তিন গুন বেশি অতিরিক্ত মালামাল ক্রয় করার ? এখানে একটি পক্ষের লাভ ছিল বলেই এসব কাজ করা হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কারও নাম বলবো না, এখনও মেডিকেল কলেজে সেই সিন্ডিকেটের প্রভাব আছে তাদের লোকও আছে। এছাড়া এখনও ভালো করে খোঁজ নিলে আরও অনিয়ম দুর্নীতির খবর পাওয়া যাবে।

এ ব্যাপারে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. অনুপম বড়ুয়া বলেন, আমি যোগদান করার পর থেকে নিয়ম অনুযায়ী সব কিছু পরিচালনা করা হচ্ছে। তাছাড়া গত প্রায় ২ বছর ধরে করোনা পরীক্ষা বা এসব নিয়েই আছি। যতটুকু পারি কক্সবাজারের মানুষকে সেবা দিচ্ছি। আর পূর্বের দুর্নীতি মামলা নিয়ে আমার মন্তব্য করার কিছুই নেই। সেটা দুদক তদন্ত করছে উনারা দেখবে সেখানে যা হয় তা হবে।

উল্লেখ্য, দুদকের অনুসন্ধান প্রতিবেদনে বলা হয়, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দুর্নীতির বরপুত্র আবজালের স্ত্রী রুবিনা খানমের মালিকানাধীন রহমান ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল ২০১৬-১৭ ও ২০১৭-১৮ অর্থবছরে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজে যন্ত্রপাতি ও অন্যান্য সরঞ্জাম সরবরাহ করে প্রায় ৩৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছে। ভাউচারে সরবরাহকৃত প্রতিটি পণ্যের মূল্য বাজার মূল্যের চেয়ে অস্বাভাবিক হারে বেশি দেখানো হয়েছে।

পরে তা দীর্ঘ তদন্ত করে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজে কেনাকাটায় দুর্নীতির অভিযোগে আবজালসহ কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মো. রেজাউল করিম, অধ্যাপক ডা. সুবাস চন্দ্র সাহা, অধ্যাপক ডা. মো. আবদুর রশিদ, জেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা সুকোমল বড়ূয়া, এসএএস সুপার সুরজিত রায় দাশ, জেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার কার্যালয়ের পংকজ কুমার বৈদ্য, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের হিসাবরক্ষক হুররমা আকতার খুকী ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক উচ্চমান সহকারী মো. খায়রুল আলমের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে দুদক। সূত্র- কক্স-৭১

আরো সংবাদ