কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে তৈরী হচ্ছে সুড়ঙ্গ সড়ক! - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১৬ মে ২০২১ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৩-১২ ১৮:১৮:০৫

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে তৈরী হচ্ছে সুড়ঙ্গ সড়ক!

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে তৈরী হচ্ছে সুড়ঙ্গ সড়ক!

নিজস্ব প্রতিবেদক :  সুড়ঙ্গের আদলে ১২ ফুট উচ্চতায় কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের তীর ঘেঁষে তৈরি হবে ১২ কিলোমিটারের দৃষ্টিনন্দন সড়ক। সুড়ঙ্গের ভেতরে থাকবে শপিংমল, উন্নতমানের রেস্তোরাঁ, কফিশপ, মালামাল রাখার লকার, ওয়াশরুম, চেয়ারে বসে কাচের জানালা নিয়ে সমুদ্র দেখাসহ বিনোদনের জগতের আধুনিক সব সুযোগ-সুবিধা।

সড়কের পশ্চিম পাশে বা সমুদ্রের দিকে থাকবে বাইসাইকেল ও পায়ে হাঁটার পৃথক সড়ক। থাকবে সমুদ্রতলের প্রাণিজগতের রহস্য দেখার অ্যাকুয়ারিয়াম, সড়কের মোড়ে মোড়ে দাঁড়িয়ে থাকবে দৃষ্টিনন্দন ভাস্কর্য। থাকবে বিনোদন পার্ক, সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য লালনের মুক্তমঞ্চ, বিদেশি পর্যটকদের অবকাশ যাপনে পৃথক ব্যবস্থা। দিনের চেয়ে রাতের আলো ঝলমল সড়কটি পর্যটকদের বিমোহিত করবে।

এনিয়ে পানি উন্নয়ন বোড কক্সবাজারের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রবীর কুমার গোস্বামী জানান, ২০৫১ কোটি টাকার সড়ক প্রকল্পটি অনুমোদনের জন্য গত বছরের ডিসেম্বরে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছিল। গত ৪ জানুয়ারি মন্ত্রণালয়ে যাচাই-বাছাই কমিটির সভায় প্রকল্পটি অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এখন জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটিতে (একনেক) উত্থাপনের জন্য প্রকল্পটি পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে আছে। এটি বাস্তবায়নে সময় লাগবে ৪ বছর। আগামী ২০২৪ সালের জুন মাসে এ প্রকল্পের কাজ শেষ করার কথা রয়েছে।

নকশা থেকে দেখা গেছে, সড়কের মধ্যে ৪ দশমিক ৮ কিলোমিটার হবে মাল্টিফাংশনাল। এর মধ্যে কলাতলী থেকে লাবণী পয়েন্ট পর্যন্ত থাকবে ২ দশমিক ৮ কিলোমিটার এবং ডায়াবেটিক হাসপাতাল পয়েন্ট থেকে নাজিরারটেক পর্যন্ত হবে ২ কিলোমিটার, যেখানে থাকবে শপিংমল, দোকানপাট, ওয়াশরুম, লকার, কফিশপ, রেস্তোরাঁ প্রভৃতি। সড়কটি রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকবে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, কক্সবাজার পৌরসভা, জেলা প্রশাসন, বন, পর্যটন, পরিবেশ ও বিদ্যুৎ বিভাগের।
কক্সবাজার চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি আবু মোর্শেদ চৌধুরী বলেন, বহুমুখী সড়ক প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে কক্সবাজার সৈকতের চেহারা পাল্টে যাবে। দেশি-বিদেশি পর্যটকের আগমন বেড়ে যাবে কয়েকগুণ, তখন রাজস্ব আয়ও বাড়বে। প্রসার ঘটবে পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসা-বাণিজ্যের।

এদিকে বাকঁখালী নদী এবং কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের বালিয়াড়ীর উপর দিয়ে প্রতিবেশ সংকটাপন্ন এলাকায় শহর রক্ষা বাঁধ নির্মাণের নামে পরিবেশ বিধ্বংসী কার্যক্রমের নিন্দা জানিয়েছেন কক্সবাজারের স্থানীয় ২১টি পরিবেশবাদী ও সামাজিক সংগঠন। ১৫ ফেব্রুয়ারী এক বিবৃতির মাধ্যমে জানান, কোনো ধরণের পরিবেশ সমীক্ষা ছাড়াই উদ্যোগ নেয়া পরিবেশ বিধ্বংসী এ প্রকল্প থেকে সরে আসার জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানিয়েছেন এসব সংগঠন।

বিবৃতিতে বলা হয়, কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত ও বাকঁখালী নদীর ভাঙনকে পুঁজি করে পর্যটন এবং পরিবেশ বান্ধব প্রতিরক্ষা বাঁধ নাম দিয়ে সৈকতের মূল পয়েন্ট কলাতলী থেকে নাজিরারটেক পর্যন্ত বালিয়াড়ীর উপর প্রতিবেশ সংকটাপন্ন এলাকায় (ইসিএ) এবং বাকঁখালী নদীর উপর দিয়ে যে শহর রক্ষা বাঁধ নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড তাতে কোন ধরনের পরিবেশ সমীক্ষা করা হয়নি।

পাশাপাশি কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত ও বাকঁখালী নদীর সীমানা নির্ধারণের একটি নির্দেশনাও রয়েছে হাইকোর্টের। উচ্চ আদালতের নির্দেশনাকে তোয়াক্ষা না করে পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত ও জেলার বৃহৎ নদী বাকঁখালীর উপর দিয়ে রাস্তাটি নির্মাণ করা হলে একদিকে সৈকতের সৌন্দর্য, জীববৈচিত্র্য নষ্ট হবে অন্যদিকে বাকখালী নদীর অবৈধ দখলদাররা আরও দখলে বিশেষ সুবিধা নেবে। শুধু তাই নয়, দেশের প্রচলিত আইনেরও ব্যত্যয় ঘটবে।

 

আরো সংবাদ