কঠোর লকডাউনেই পদোন্নতির বৈঠক নিয়ে প্রশ্ন - কক্সবাজার কন্ঠ

মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১ ১২ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মঙ্গলবার

প্রকাশ :  ২০২১-০৭-০৬ ২২:৫৩:৪৩

কঠোর লকডাউনেই পদোন্নতির বৈঠক নিয়ে প্রশ্ন

কঠোর লকডাউনেই পদোন্নতির বৈঠক নিয়ে প্রশ্ন
Spread the love

                                     এসএসবির বৈঠক আজ : কঠোর লকডাউনেই পদোন্নতির বৈঠক নিয়ে প্রশ্ন

@ নিউজ ডেস্ক :  কঠোর লকডাউনের মধ্যেই অতিরিক্ত সচিব পদে পদোন্নতির জন্য সুপিরিয়র সিলেকশন বোর্ডের (এসএসবি) বৈঠক বসতে যাচ্ছে আজ বুধবার। দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সরকার যেখানে হিমশিম অবস্থায়, জরুরি কাজ করেই কূল পাচ্ছে না, সেখানে পদোন্নতির মতো নিয়মিত একটি বৈঠক কঠোর লকডাউনের মধ্যে বসা নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুলছন। সচিবালয়ের একাধিক উচ্চপর্যায়ের সূত্র থেকে বৈঠকের বিষয়টি জানা গেছে। বিসিএস ১৩তম ব্যাচের কর্মকর্তাদের পদোন্নতির বিষয় ঘিরে এই বৈঠক বসতে যাচ্ছে বলে জানা গেছে।

আজ বুধবার সকালে মন্ত্রিপরিষদসচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলামের সভাপতিত্বে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। প্রশাসনে বর্তমানে প্রয়োজনের চেয়ে কয়েক গুণ বেশি অতিরিক্ত সচিব আছেন।

অর্থাৎ এই সময়ে এ পদে পদোন্নতি জরুরি বিষয় নয়। এর পরও কঠোর লকডাউনের মধ্যেই পদোন্নতির এই বৈঠকের আয়োজন নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। বিসিএস ১৩তম ব্যাচের প্রথম দফায় পদোন্নতি হয়েছে গত বছরের ২৬ সেপ্টেম্বর। একটি ব্যাচের একাধিক দফায় পদোন্নতি বিবেচনায় নেওয়ায় নিচের দিকে বেশ কয়েকটি ব্যাচ পিছিয়ে পড়ার আশঙ্কা আছে।

উপসচিব ও যুগ্ম সচিব পর্যায়ের একাধিক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে  জানান, নিয়ম অনুযায়ী একটি ব্যাচের পদোন্নতি হয়ে গেলে পরবর্তী ব্যাচের পদোন্নতির প্রক্রিয়া শুরু হয়। আর আগের ব্যাচের কর্মকর্তাদের যোগ্য কেউ বাদ পড়লে (লেফট আউট) নতুন ব্যাচের সঙ্গে যোগ করে পদোন্নতি দেওয়া হয়। কিন্তু ১৩তম ব্যাচের প্রথমবার পদোন্নতির পর এবার দ্বিতীয়বারের মতো আবারও এককভাবে তাদের পদোন্নতির বিষয়টি বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে। তাই এ বিষয়টি পরবর্তী সব ব্যাচের পদোন্নতি পিছিয়ে দেবে। বিশেষ করে ১৫, ১৭, ১৮ ও ২০ ব্যাচের কর্মকর্তারা বয়সের দিক থেকে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। পদোন্নতির শর্ত অনুযায়ী ১৫ ব্যাচের যুগ্ম সচিব কর্মকর্তারা অনেক আগেই অতিরিক্ত সচিব হিসেবে পদোন্নতি পাওয়ার যোগ্যতা অর্জন করেছেন। তাঁদের কয়েকজন আগামী বছর অবসরে যাওয়ার বয়সে পৌঁছে যাবেন। ১৭ ও ১৮ ব্যাচের কর্মকর্তারাও এখন যুগ্ম সচিব। এদিকে ২০ ব্যাচের উপসচিব কর্মকর্তারাও যুগ্ম সচিব হিসেবে পদোন্নতির যোগ্যতা অর্জন করেছেন। ২০ ব্যাচের কর্মকর্তারা চাচ্ছেন, ১৫ ব্যাচের কর্মকর্তাদের অতিরিক্ত সচিব পদে পদোন্নতি হয়ে গেলে যুগ্ম সচিব পর্যায়ে বেশ কিছু পদ খালি হবে, তখন ২০ ব্যচের বেশিসংখ্যক কর্মকর্তার পদোন্নতি সম্ভব। তাই তাঁরা ১৫ ব্যাচের কর্মকর্তাদের পদোন্নতির প্রহর গুনছেন। কিন্তু এখন আবারও ১৩ ব্যাচের পদোন্নতির কার্যক্রম দেখে ২০ ব্যাচের কর্মকর্তারাও হতাশা প্রকাশ করছেন। একজন অতিরিক্ত সচিব বলেন, এই পদোন্নতি আমলাতন্ত্রের ভবিষ্যৎ ক্যারিয়ার প্ল্যানিংয়ের জন্যও সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়।

এ বিষয়ে মন্তব্য জানার চেষ্টায় মন্ত্রিপরিষদসচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলামকে গতকাল রাত ৯টার দিকে একাধিকবার ফোন দিলেও তাঁর মোবাইল নম্বর বন্ধ পাওয়া গেছে।

লকডাউনের মধ্যে অপ্রয়োজনীয় পদোন্নতির জন্য এসএসবি বৈঠক নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই। সচিব পর্যায়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, যদি এমন হতো যে সংশ্লিষ্ট পদগুলোতে কাজ করার মতো অফিসার নেই, দ্রুত পদোন্নতি দিয়ে সেই জায়গাগুলোর কাজের মান বজায় রাখতে হবে; তাহলে সমস্যা ছিল না। যেহেতু অতিরিক্ত সচিব পদোন্নতিপ্রাপ্ত অনেক কর্মকর্তা নিচের পদে কাজ করছেন, তাই এই অপ্রয়োজনীয় পদোন্নতির জন্য কঠোর লকডাউনের মধ্যে সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সময় ব্যয় করার কোনো কারণ দেখি না। সূত্র- কালের কন্ঠ।

আরো সংবাদ