কানের দুলে হৃদয় দোলে-জলি রহমান - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪ ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সোমবার

প্রকাশ :  ২০২৩-০৯-০৮ ১৯:৪০:৩৮

কানের দুলে হৃদয় দোলে-জলি রহমান

কানের দুলে হৃদয় দোলে-জলি রহমান

জলি রহমান : কানের দুল ছোট্ট একটি গহনা অথচ নারীর মুখের সৌন্দর্য বর্ধনে এর গুরুত্ব অনেক। যেকোনো সাজ ফুটিয়ে তোলার অন্যতম অনুষঙ্গ এই কানের দুল। এটি এমন একটি গহনা যা নারীর কাছে যুগ যুগ ধরে পছন্দের শীর্ষে। আদিকাল থেকে কিশোরী, বৃদ্ধা সবারই কানে ছোট-বড় সোনার রিং পড়ার বেশ প্রচলন ছিল। কিন্তু সময় পরিক্রমায় পুরনো মডেলের দুলগুলোর জায়গা দখল করেছে নানান রকম আধুনিক ডিজাইনের দুল। গোলাকার থেকে শুরু করে ঝোলানো, লম্বা ও বড় রিংয়ের মতো কানের দুলের জনপ্রিয়তা বেড়েই চলছে। প্রায় দেড় যুগ আগে থেকেই বড় আকৃতির কানের দুলের ব্যবহার শুরু হয়। নানা রঙ ও আকৃতির কাঁধ ছোঁয়ানো দুলগুলো বেশি দেখা যায় ফ্যাশনাবল নারীদের কানে।

বহুকাল আগে থেকেই স্বর্ণ, রুপা, লোহা, তামা দিয়ে কানের দুল তৈরি হচ্ছে। যা ঘুরে-ফিরে আসবে সবসময়ই। তবে এসবের সঙ্গে আরও কিছু ম্যাটারিয়াল যুক্ত হয়ে গহনাটিতে এনেছে বৈচিত্র্য। বর্তমানে মেটাল, বিডস, পিতল, বাঁশ, কাঠ, হাড়গোড়, মাটি, সুতা, ধাতু, পালক, নারিকেলের মালা, ঝিনুক, শামুকের খোলাসহ বিচিত্র সব উপকরণ দিয়ে তৈরি করা হয়ে থাকে কানের দুল। আজকাল স্বর্ণের চেয়ে রুপা ও অন্যান্য উপাদানে তৈরি কানের দুলই জনপ্রিয়। বেণি, খোঁপা, খোলা চুল অর্থাৎ চুলের সাজ যাই হোক না কেন, সব রকম সাজের সঙ্গেই কানের দুল আনে পরিপূর্ণতা। ফ্যাশনের একাল-সেকাল পর্যালোচনা করলে দেখা যাবে, কানের ছোট্ট টপস থেকে শুরু করে ঝুমকা, পাশা সবই ঘুরেফিরে হাল ফ্যাশনে নানান সময় জায়গা করে নেয়।

অনুষ্ঠানে যেসব দুল পড়া হয় : গায়ে হলুদ থেকে বিয়ে বা যেকোনো অনুষ্ঠানে পরার জন্য ঝুমকা বা ঝুলানো দুল বেশি ব্যবহৃত হয়। মুক্তার ঝুমকা, টেরাকোটা ঝুমকা, কাশ্মীরি ঝুমকা, মুলতানি ঝুমকা, হুপ ঝুমকা এসবের মধ্যে পছন্দ অনুযায়ী বাছাই করতে পারেন জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের জন্য। কান থেকে কাঁধ অবধি নেমে যাওয়া একটু ডিম্বাকৃতির ঝুমকার ন্যায় ইয়ার রিংগুলো বেশ স্টাইলিশ। তবে ঐতিহ্যবাহী কানপাশার চল চলে গেলেও এখনো প্রায়ই দেখা যায় উৎসব-পার্বণে। সলিড গোল্ড বা গোল্ডে মিনার কাজ করা কানপাশা ছাড়াও রয়েছে ডায়মন্ড, ইমিটেশন, কাঠ, মুক্তা এসব ম্যাটারিয়াল দিয়েও তৈরি করা হয়। তবে কনের সাজে পূর্ণতা আনে কানটানা দুল। এক্ষেত্রে সাধারণত স্বর্ণের তৈরি কানটানা ব্যবহৃত হয়। আজকাল পুতির কম্বিনেশন, অক্সিডাইস, ইমিটেশন এবং সিটি গোল্ডের কানটানাও বেশ চলছে। পার্টি সাজে গার্জয়াস লুক পেতেও এই দুল পরতে পারেন।

সচরাচার ব্যবহারের জন্য : কর্মক্ষেত্রে ছিমছাম লুক পেতে বেছে নিন ছোট্র টপস। যা ওয়েস্টার্ন বা ক্যাজুয়াল সাজের সঙ্গেও বেশ মানানসই। তবে অনেকের স্কীনে এলার্জির সমস্যা থাকে। তারা স্বর্ণ ছাড়া অন্য কোন গহনা বেশিক্ষণ পড়তে পারেন না। এই সমস্যা থাকলে গোল্ডের তৈরি নানা ডিজাইনের কানের দুল থেকে সামর্থ্য অনুযায়ী ক্রয় করুন পছন্দের গহনাটি। বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেক বিক্রয়ের পেজ রয়েছে, কর্মময় ব্যস্ততা থাকলে সেখান থেকেও কিনতে পারেন। অনেকে কানে ছিদ্র করতে চান না, তারা পরুণ টিপ কানের দুল। এটি পরলে বোঝার উপায় থাকে না কানে ছিদ্র আছে কিনা। আজকাল মার্কেটে নানা ডিজাইনের টিপ কানের দুল কিনতে পাওয়া যায়। আবার অনেকে একই কানে একাধিক ছিদ্র করেন। তাদের প্রয়োজনীয়তার কথা ভেবেই ডিজাইনাররা তৈরি করেছেন বিভিন্ন ডিজাইনের কানের দুল। যা নাকফুল থেকে কিছুটা বড় ও আকর্ষণীয়।

একজোড়া কানের দুলহীন নারীর মুখচ্ছবিতে মলিনতার তীব্র ছায়া ফুটে ওঠে। তাই এর চাহিদা যুগ যুগ ধরে সমান্তরালভাবে চলছে। হাল ফ্যাশনে নিত্যনতুন উপাদানে তৈরি কানের দুল যোগ হচ্ছে এই তালিকায়। শাড়ি হোক বা সালোয়ার কামিজ রঙের সঙ্গে মিল রেখে কানের দুল না পরলে সাজ পূর্ণতা পায় না। এই প্রয়োজনীয়তার জন্যই এখন সকল মার্কেটেই এক্সেসরিজ কর্নার রয়েছে যেখানে পাওয়া যায় নান্দনিক ডিজাইনের দুল। আবার ফ্যাশন হাউসগুলোতেও বিভিন্ন উপাদানে তৈরি গহনা বিক্রয়ের আলাদা স্টোর থাকে। তাই নিজেকে আকর্ষণীয় রাখতে সাধ ও সাধ্যের সঙ্গে মিল রেখে ক্রয় করুন আপনার পছন্দনীয় কানের দুল।

আরো সংবাদ