কুতুবদিয়াপাড়ায় কোরবানি পশুর মাংস থেকে বঞ্চিত হচ্ছে ৪০ পরিবার - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১ ১৩ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বুধবার

বিষয় :

প্রকাশ :  ২০২১-০৭-২০ ০৬:৫০:১২

কুতুবদিয়াপাড়ায় কোরবানি পশুর মাংস থেকে বঞ্চিত হচ্ছে ৪০ পরিবার

কোরবানি পশুর মাংস বঞ্চিত হচ্ছে ৪০ পরিবার
Spread the love

সংবাদদাতা  : কক্সবাজার শহরের পশ্চিম কুতুবদিয়া পাড়া এলাকায় কুরবানীর এই ঈদে হতদরিদ্র ৪০ পরিবার মাংস হতে বঞ্চিত হচ্ছে ৪০ পরিবার। এতে পরিবার সমুহে অসহায়ত্ব বিরাজ করছে।পৃথিবীর সব মুসলমানদের মতো আশায় থাকে কুরবানি আসলেই চাহিদা পূরণ করে খাবে গরুর মাংস। কোরবানির ঈদের অপেক্ষায় থাকে এসব অভাবি মানুষ।কিন্তু এই সব পরিবারের ভাগ্যে জুটেনা কুরবানীর মাংস।

সুত্রে জানা যায়, কক্সবাজার পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ডের পশ্চিম কুতুবদিয়া পাড়া এলাকায় ৪০ টি পরিবারে ঈদ আনন্দ নেই। বিত্তবানদের এবং কথিত সমাজপতিদের অবহেলায় হতদরিদ্র এই পরিবারগুলোর মাঝে এক টুকরো কুরবানীর মাংস‌ও জুটেনা।উল্টো কুরবানীর ঈদের দিন হতদরিদ্র দের সমাজ থেকে বিতাড়িত করেন এমন অভিযোগ রয়েছে। কুরবানীর ঈদে মাংস খেতে পারবোনা মাংসের সুগন্ধি পাবো । বড় লোকেরা বা যাদের টাকা পয়সা আছে তারা কুরবানী দেয়। তাদের বাড়ি থেকে রান্না করা মাংসের সুগন্ধি পাই। মাংস পাইনা।

এক কেজি মাংস দেওয়ার ভয়ে ঈদের দিন সমাজ থেকে বিতাড়িত করেন বড়লোক সমাজপতিরা। এই কথা বলছেন, কক্সবাজার পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ডের পশ্চিম কুতুবদিয়া পাড়ার বাসিন্দা মোহাম্মদ ফরিদ। একই এলাকার এনামুল হক জানান, কুরবানীর ঈদ আসলে সমাজ থেকে ডাক আসে ।পরে বৈঠক করে ৪০০/৫০০টাকা করে নেয় তাদের কাছ থেকে। যারা টাকা দিতে পারেনা, তাদেরকে সমাজ থেকে বের করে দেয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক‌ই এলাকার আর এক ব্যক্তি জানান, তাদের সমাজে ৩০০ পরিবার আছে । প্রত্যেক পরিবার থেকে ৩০০টাকা করে উত্তোলন করে কুরবানী উপলক্ষে, কিন্তু ওই টাকার আর খবর থাকেনা। টাকা ছাড়া কোন অসহায় মানুষকে মাংস দেয়না ওইসব সমাজপতিরা। এভাবেই এই এলাকার অনেক মানুষ কুরবানীর মাংস খেতে পারেনা।

আরো সংবাদ