কুতুবদিয়ায় সিন্ডিকেট করে জমি দখলের অভিযোগ - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২ ১২ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২২-০১-১১ ২০:৪২:৫৭

কুতুবদিয়ায় সিন্ডিকেট করে জমি দখলের অভিযোগ

কুতুবদিয়ায় জমি দখলের অভিযোগ
Spread the love

বার্তা পরিবেশক  : দ্বীপ উপজেলা কুতুবদিয়ার আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নে প্রশাসনের সহযোগিতায় ব্যক্তি মালিকানাধীন জমি দখলের অভিযোগ ওঠেছে। উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় স্থানীয় চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম, বিএনপি নেতা ও ইউপি সদস্য শাহাবুদ্দিন, আওয়ামী লীগ নেতা মোঃ ইসমাইল এবং কুতুবদিয়া সদর ভূমি অফিসের তহশীলদার মোঃ রিদুয়ান সিন্ডিকেট করে এই দখল কার্যক্রম চালিয়েছে বলে ভুক্তভোগির অভিযোগ।

জানাগেছে, আমমোক্তারনামামূলে আলী আকবর ডেইলের বাসিন্দা জনৈক ছাবের আহমদ ইউনিয়নটির তবলের চর এলাকায় প্রায় ২৭ একর জমির দায়িত্বপ্রাপ্ত ছিলেন। লবণ মাঠ হওয়ায় জমির বর্গা মূল্যও ছিলো বেশি। বর্গাচাষীদের কাছ থেকে নিয়মিত টাকা নিয়ে সেই টাকা জমির মূল মালিকদের হাতে নিয়মিত পৌঁছেও দিতেন তিনি। এভাবে দীর্ঘ সময় পার করলেও জমির মালিকানা কিংবা দখল নিয়ে কোন সমস্যা হয়নি।

একপর্যায়ে জমির মূল মালিক কুতুবদিয়া উপজেলার বাইরে থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর সেই জমির উপর লুলোপ দৃষ্টি পড়ে উপজেলা প্রশাসনের অসাধু কর্মকর্তাসহ স্থানীয় দখলবাজদের। পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীরের আলমসহ বিএনপি নেতা শাহাবুদ্দিন উক্ত জমি দখলে নেয়ার চেষ্টা চালায়। একপর্যায়ে ২০২১ সালের ১ ডিসেম্বর আমমোক্তার ছাবের আহমদকে বিতাড়িত করে জমি দখলে নেয় অবৈধ দখলবাজরা। পরে তা বর্গাচাষীদের হাতে তুলে দেন।

এদিকে উল্লেখিত বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে জানান ক্ষতিগ্রস্ত ছাবের আহমদ। তিনি আরো জানান, ২০২০ খ্রিস্টাব্দের ২ সেপ্টেম্বর আদালত কর্তৃক অর্পিত সম্পত্তির মামলা অবমুক্ত করে ডিক্রি জারি করা হয়। এরপর জমির খাজনা নিয়মিতকরণের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত ছাবের আহমদ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) বরাবর আবেদন করেন। বিষয়টি জেলা প্রশাসককেও অবহিত করা হয়েছিলো। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) বিষয়টি রেকর্ডপত্র এবং সরেজমিন যাচাই করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সহকারি কমিশনার (ভূমি), কুতুবদিয়াকে নির্দেশ প্রদান করেন। কিন্তু সেই আইনগত ব্যবস্থা আর গ্রহণ করা হয়নি। উল্টো জমির আমমোক্তারকেই করা হয়েছে উচ্ছেদ।

জমি দখলে ক্ষতিগ্রস্ত আমমোক্তার ছাবের আহমদ আরো জানান, দীর্ঘসময় ধরে জমির দায়িত্বপ্রাপ্ত হলেও কোন সমস্যার সম্মুখীন হয়নি। হঠাৎ করেই জমিগুলো দখল করে ফেলা হলো। দখলের সময় লুট করা হয় প্রায় ৪ হাজার মণ লবণ। বিষয়টির প্রতিকার চেয়ে জেলা প্রশাসক মহোদয়কে লিখিতভাবে আবেদন করেছেন বলেও জানান ভুক্তভোগি ছাবের আহমদ।

আরো সংবাদ