খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার বিষয়ে শীঘ্রই অভিমত : আইনমন্ত্রী - কক্সবাজার কন্ঠ

বুধবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২২ ১২ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-১২-২১ ১৯:১০:৪০

খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার বিষয়ে শীঘ্রই অভিমত : আইনমন্ত্রী

খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার বিষয়ে শীঘ্রই অভিমত : আইনমন্ত্রী
Spread the love

নিউজ  ডেস্ক :   খালেদা জিয়া বিদেশ যেতে পারবেন কি পারবেন না, আইন মন্ত্রণালয় থেকে খুব দ্রুতই এই সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তবে আইনে নেই এমন কিছু করা হবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি। মঙ্গলবার (২১ ডিসেম্বর) রাজধানীর লেকশোর হোটেলে ‘মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা ও মানবিক মূল্যবোধ’ শীর্ষক রচনা প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

খালেদা জিয়ার আবেদনটি নিষ্পত্তিতে দীর্ঘসময় ব্যয় হওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, সুপ্রিম কোর্ট থেকে বিএনপি সমর্থিত ১৫ জন আইনজীবী এসেছিলেন। তাদের বক্তব্যের মধ্যে কোথাও আইনি কোন সাপোর্ট আছে কি-না, সেটা দেখেছি। কিন্তু কোন সাপোর্ট আমি পাইনি। তাদের বক্তব্য কোন আদালত সাপোর্ট করেননি। বরং আমি যে বক্তব্য দিয়েছি, সেটা সংসদেও বলেছিলাম, অনেক রায়ে সেটারই সাপোর্ট আছে। খুব শীঘ্রই আইন মন্ত্রণালয়ের অভিমত দিয়ে দেবো।

খালেদা জিয়াকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য পাঠানোর ক্ষেত্রে মানবিক হওয়ার সুযোগ আছে কি-না জানতে চাইলে আনিসুল হক বলেন, আমাকে আইনের মধ্যে থেকেই দেখতে হবে। সরকার যখন কোন পদক্ষেপ নেয়, তারা আরবিট্রারি পদক্ষেপ নিতে পারে না। তাই সরকারকে আইনি পদক্ষেপ নিতে হয়। এর আগে প্রধানমন্ত্রীর যে মানবিক বিবেচনায় তাকে মুক্তি দেয়া হয়েছিল, তাও কিন্তু ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারার বিধান মতে।

আইনমন্ত্রী বলেন, যখন ব্রিটিশ হাইকমিশনারের সঙ্গে দেখা হয়, তখন আমি খালেদা জিয়ার বিদেশ চিকিৎসা নিয়ে ভুলের বিষয়টি হাইলাইট করেছি এবং পরিষ্কারভাবে আইনের ব্যাখ্যা দিয়েছি। খালেদা জিয়ার পরিস্থিতি ও তিনি যে মুক্ত, আইনিভাবে তার যে অবস্থান, আমি সেটা তাদের বুঝিয়েছি। আমার সঙ্গে কয়েকদিন আগেই আলোচনা হয়েছে এবং তারা বলেছে এই জায়গায়টা তারা কারেকশন করবে।

যুক্তরাষ্ট্র র‌্যাব কর্মকর্তাদের ওপর যে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে সে বিষয়ে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক কোন চিঠি পাঠাবেন কি-না জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, বিষয়টি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় খতিয়ে দেখছে। বাংলাদেশ আনুষ্ঠানিকভাবে কোন চিঠি দিচ্ছে কি-না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে পরে জানানো হবে।

আপনি বলেছেন সরকার পরিচালনা করতে গেলে কখনও কখনও মানবাধিকার কমিশনের সঙ্গে দ্বন্দ্ব হওয়াটা স্বাভাবিক, আপনারা আপনাদের কাজ করবেন এর জবাবে তিনি বলেন, এটা হতেই পারে। সারা বিশ্বে যে মানবাধিকার কমিশন আছে। সেটি হচ্ছে মানবাধিকার রক্ষার ওয়াচটপ। যখন তারা কোন সরকারের কাছে প্রশ্ন করবেন তখন সে সরকারেরও একটা বক্তব্য থাকবে। মানবাধিকার কমিশনেরও একটা বক্তব্য থাকবে। আমি সেই বক্তব্যের বৈপরীত্য এবং দ্বন্দ্বের কথাই উল্লেখ করেছি।

এর আগে রচনা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মন্ত্রী বলেন, দুর্ভাগ্য যে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট থেকে ১৯৯৬ সালের ৩০ মার্চ পর্যন্ত আমরা মানবাধিকারকে ভূলুণ্ঠিত করতে দেখেছি। সেই দুঃখজনক অভিজ্ঞতার বহিঃপ্রকাশ হচ্ছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন আইন-২০০৯। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই আইন প্রণয়ন করে মানবাধিকার রক্ষার জন্য জাতীয় মানবাধিকার কমিশন গঠন করেন। আমাদের দেশে মূলত মানবাধিকার রক্ষার চর্চা শুরু হয় সেই থেকে। তারপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের আন্তরিক সহযোগিতায় এই কমিশনের অগ্রযাত্রা ঘটতে থাকে। মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা ও মানবাধিকার রক্ষার ব্যাপারে দেশ অনেকটা অগ্রসর হয়েছে। কিন্তু আরও অনেক দূর আমাদের যেতে হবে।

আইনমন্ত্রী পরামর্শ দেন, ওই সময়ে মানবাধিকার ভূলুন্ঠিত করার যে মানসিকতা তৈরি করা হয়েছিল সেই মানসিকতার পরিবর্তন আনতে হলে মানবাধিকার কমিশনকে আরও সুসংগঠিত ও সোচ্চার হতে হবে। ২০০৯ থেকে আজ পর্যন্ত এই ১৩ বছরের অগ্রযাত্রা ধরে রাখতে হবে। বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে এখন উন্নয়নশীল দেশ হয়েছে। আমরা বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে পরিচিত হয়েছি। তাই আমাদের গুরু দায়িত্ব এই উন্নয়নের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে মানবাধিকারের বিকাশ ঘটানো।

বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের উভয় বিভাগ মানবাধিকার রক্ষার জন্য পাবলিক ইন্টারেস্ট লিটিগেশনের মাধ্যমে অনেক পদক্ষেপ নিয়েছেন এবং নেয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন- এ বিষয়ে আনিসুল হক আশান্বিত হয়েছেন বলে জানান।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান নাছিমা বেগমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, কমিশনের সার্বক্ষণিক সদস্য ড. কামাল উদ্দিন আহমেদ, ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার মো. খলিলুর রহমান, কমিশনের সচিব নারায়ণ চন্দ্র সরকার প্রমুখ বক্তৃতা করেন। অনুষ্ঠানে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীর মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

আরো সংবাদ