গোলাগুলি-সংঘর্ষ : সেবা কার্যক্রম সীমিত রেখেছে এনজিওরা - কক্সবাজার কন্ঠ

শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪ ১৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৩-০২-২৬ ১২:৫৯:০১

গোলাগুলি-সংঘর্ষ : সেবা কার্যক্রম সীমিত রেখেছে এনজিওরা

নিউজ ডেস্ক : কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে প্রায় খুনখারাবি, অপহরণ, ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে। পরিস্থিতি ক্রমে অবনতির দিকে যাওয়ায় রোহিঙ্গাদের পাশাপাশি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন শিবিরে কর্মরত বেসরকারি সংস্থার কর্মীরা। অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ের ঘটনা ক্যাম্পের বাইরে ছড়িয়ে পড়ায় স্থানীয় লোকজনও রীতিমতো আতঙ্কে আছেন।

পুলিশ ও রোহিঙ্গা নেতাদের তথ্যমতো, গত সাড়ে চার মাসে রোহিঙ্গা শিবিরে ২০টির বেশি সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনায় ২৬ রোহিঙ্গার মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ১৩ জন রোহিঙ্গা মাঝি, ৭ জন কথিত আরসা সন্ত্রাসী। অন্যরা সাধারণ রোহিঙ্গা। রোহিঙ্গা শিবিরে মাদক, অস্ত্র ও সোনার চোরাচালান নিয়ন্ত্রণ, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মিয়ানমারের সশস্ত্র গোষ্ঠী আরাকান স্যালভেশন আর্মি (আরসা) ও আরাকান রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশন (আরএসও) এবং রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নবী হোসেন বাহিনী ও মাস্টার মুন্না বাহিনীর মধ্যে এসব ঘটনা ঘটছে।

স¤প্রতি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আরসা ও নবী হোসেন বাহিনীর মধ্যে প্রায়ই মুখোমুখি সংঘর্ষে হতাহতের ঘটনা ঘটছে। আরসার উপস্থিতি ও তাদের সন্দেহজনক কার্যক্রমে নিরাপত্তা ঝুঁকি তৈরি হচ্ছে। প্রতিবেদনের তথ্যানুযায়ী, ২০২১ সালে আশ্রয়শিবিরে ২২টি হত্যাকাÐের ঘটনা ঘটলেও ২০২২ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩২টিতে। ২০২১ সালে অপহরণের ঘটনা ঘটেছে ১৭৩টি। ২০২২ সালে ঘটেছে ৮৬টি।

সাধারণ রোহিঙ্গারা বলছেন, শিবিরের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে হলে সেখানে মাদক, অস্ত্র চোরাচালান রোধ এবং রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তারে দ্রæত যৌথ অভিযান পরিচালনা করা জরুরি।

শিবিরগুলো পরিচালিত হয় সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের অধীন শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (আরআরআরসি) কার্যালয়ের আওতায়। আরআরআরসি মিজানুর রহমান জানান, রাতের বেলায় রোহিঙ্গা শিবিরে সন্ত্রাসীদের গোলাগুলি-সংঘর্ষের ঘটনায় সাধারণ রোহিঙ্গারা ঘুমাতে পারছেন না। দিনদুপুরেও খুনখারাবির ঘটনা ঘটছে। সেখানে কাজ করতে যাওয়া এনজিও-আই এনজিওর কর্মীরাও উদ্বিগ্ন। তাঁদের মধ্যে অনেকে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

আরআরআরসি মিজানুর রহমান জানান, শিবিরের শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষার জন্য আমরা পুলিশের ঊর্ধ্বতন মহলের সঙ্গে কথা বলছি। আমরা চাচ্ছি যৌথ অভিযান পরিচালনার মাধ্যমে শিবিরগুলোকে মাদক, অস্ত্র ও সন্ত্রাসমুক্ত রাখতে।

তিনি আরও জানান, রোহিঙ্গা শিবিরের চারদিকে দ্রæত কাঁটাতারের বেড়ার নির্মাণ কাজ শেষ করা, সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন, পর্যবেক্ষণ টাওয়ারের কার্যক্রম বৃদ্ধি ও গোয়েন্দা তৎপরতা বাড়ানোর তাগিদ দেয়া হচ্ছে।

কক্সবাজার সিএসও এনজিও ফোরামের কো-চেয়ারম্যান আবু মোর্শেদ চৌধুরী জানান, শিবিরের পরিস্থিতি দিন দিন অবনতির দিকে যাচ্ছে। অপহরণ, ধর্ষণ, খুনোখুনি বেড়ে চলেছে। সেখানে কর্মরত এনজিও-আইএনজিওর কর্মীরা স্বাভাবিকভাবে কাজ করতে পারছেন না। নিরাপত্তার কারণে বিকেল চারটার পরপর সবাইকে শিবির ত্যাগ করতে হচ্ছে। যৌথ অভিযানের মাধ্যমে সন্ত্রাসীদের তৎপরতা নির্মূল করা না হলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে।

একাধিক সূত্র জানিয়েছে, প্রায় প্রতিদিন রোহিঙ্গা শিবিরগুলোতে গোলাগুলি, সংঘর্ষ লেগে আছে। সর্বশেষ গেল ২৩ ফেব্রæয়ারি রাতে কুতুপালং শিবিরে (ক্যাম্প-৫) আরসা ও আরএসওর মধ্যে কয়েক ঘণ্টা ধরে গোলাগুলি ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন রোহিঙ্গা মাঝি (নেতা) সলিম উল্লাহ (৩৪)।

একই দিন দুপুরে উখিয়ার বালুখালীর ক্যাম্প-৮ এ আরসা ও আরএসও সন্ত্রাসীদের মধ্যে গোলাগুলিতে দুই রোহিঙ্গা শিশু গুলিবিদ্ধ হয়। উম্মে হাফসা নামের ১১ বছর বয়সী শিশুর কোমরে এবং আট বছর বয়সী আবুল ফয়েজের ডান পায়ে গুলি লাগে। তাদের চিকিৎসা চলছে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে।

উখিয়ার কুতুপালং শিবিরের রোহিঙ্গা নেতা জালাল আহমদ জানান, মিয়ানমারের দুটি সশস্ত্র গোষ্ঠী এবং আটটি রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী বাহিনীর কারণে সাধারণ রোহিঙ্গারা শান্তিতে থাকতে পারছে না। দিনের বেলায় এপিবিএন ক্যাম্পে টহল দিলেও সন্ধ্যার পর রোহিঙ্গা শিবির অরক্ষিত হয়ে পড়ে। তখন সন্ত্রাসীদের রাজত্ব শুরু হয়। গভীর রাত পর্যন্ত চলে গোলাগুলি-সংঘর্ষ, অপহরণ ও খুনোখুনির ঘটনা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েক রোহিঙ্গা নেতা বলেন, শিবিরে মাদক চোরাচালানের অন্যতম হোতা রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী নবী হোসেন। তাঁর বাহিনীর কয়েক শ সদস্য ইয়াবা, আইস ও সোনার কারবার নিয়ন্ত্রণ করে। শুরুর দিকে আরসার সঙ্গে মিলেমিশে মাদক চোরাচালান করতেন। দেড় বছর আগে রোহিঙ্গাদের শীর্ষ নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যাকাÐের পর আরসা থেকে বেরিয়ে মাদক চোরাচালান নিয়ন্ত্রণ শুরু করে নবী হোসেন। দল ভারী করতে নবী হোসেন কাছে টানেন আরএসওকে। এখন আরএসও এবং নবী হোসেন বাহিনী মিলে শিবির থেকে আরসাকে উৎখাত করতে মরিয়া।

আশ্রয়শিবিরগুলোতে এপিবিএনের সদস্যরা সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত টহল ও চৌকিতে তল্লাশি পরিচালনা করে থাকেন। মাদক, অস্ত্র উদ্ধার ও অপরাধীদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রাখেন। কিন্তু সন্ধ্যার পর নিরাপত্তার অভাবে শিবিরের দুর্গম পাহাড়ের সরু অলিগলিতে টহল পরিচালনা সম্ভব হয় না বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

উখিয়া ও টেকনাফের ৩৩টি শিবিরে নিবন্ধিত রোহিঙ্গার সংখ্যা সাড়ে ১২ লাখ। এর মধ্যে ৮ লাখ এসেছে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে দেশটির সেনাবাহিনীর নিপীড়নের মুখে। শিবিরগুলোর আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত আছেন আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) পৃথক তিনটি ব্যাটালিয়নের ২ হাজার ৩০০ সদস্য।

১৪ এপিবিএন অধিনায়ক ও পুলিশের অতিরিক্ত উপমহাপরিদর্শক ছৈয়দ হারুনুর রশিদ বলেন, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে রোহিঙ্গা শিবিরে মিয়ানমারের দুটি সশস্ত্র গোষ্ঠীসহ কয়েকটি রোহিঙ্গা ডাকাত বাহিনীর সন্ত্রাসীরা খুনোখুনিতে জড়িয়ে পড়েছে। উদ্দেশ্য হলো রোহিঙ্গা শিবিরে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করা। গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি এবং সাঁড়াশি অভিযানের মাধ্যমে সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার অভিযান চালাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

এদিকে, রোহিঙ্গা শিবিরে সাড়ে পাঁচ বছর ধরে স্বাস্থ্য, খাদ্য, শিক্ষা, আবাসনসহ নানা মানবিক সেবায় কাজ করছেন দেশ-বিদেশের শতাধিক সংস্থার ২০ হাজারের বেশি কর্মী। শিবিরে খুনোখুনি, অপহরণের ঘটনা, আরসাসহ রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীর হুমকিতে ২০টির বেশি এনজিও রোহিঙ্গা শিবিরে তাঁদের সেবা কার্যক্রম সীমিত রেখেছে। আরও কয়েকটি এনজিও কাজ গুটিয়ে নিচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একটি বেসরকারি সংস্থার নির্বাহী পরিচালক জানান, ১১টি রোহিঙ্গা শিবিরে অন্তত সাত হাজার রোহিঙ্গা শিশুকে পাঠদান করেন। কিন্তু প্রতিনিয়ত গোলাগুলি ও খুনোখুনির ঘটনায় শিশুরা শিক্ষা কেন্দ্রে আসতে সাহস পাচ্ছে না। শিক্ষকেরাও অনিরাপদ বোধ করছেন।

উখিয়ার পালংখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরী বলেন, রোহিঙ্গা শিবিরের ভেতরে ৪০ হাজারের মতো দোকানপাট রয়েছে। অধিকাংশ দোকানপাটের মালিক রোহিঙ্গারা। সেখানেই চলে মাদকের বেচাবিক্রি। রোহিঙ্গাদের ক্যাম্পের ভেতরে রাখা না গেলে সন্ত্রাসী কর্মকাÐ ও মাদক চোরাচালান নিয়ন্ত্রণ কোনোভাবে সম্ভব নয়।

কক্সবাজারের শ্রমবাজার রোহিঙ্গাদের দখলে দাবি করে কক্সবাজার সোসাইটির সভাপতি কমরেড গিয়াস উদ্দিন জানান, কাজের সন্ধানে ক্যাম্প ছেড়ে প্রতিদিন কয়েক হাজার রোহিঙ্গা দেশের বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে পড়ছে। অনেকে পাসপোর্ট বানিয়ে বিদেশে পাড়ি জমাচ্ছেন। দ্রæত এসব নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে জননিরাপত্তা হুমকিতে পড়বে।

মাদকের টাকায় রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা ভারী অস্ত্র ও গোলাবারুদ কিনছে বলে অভিযোগ করেছেন টেকনাফ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল আলম। তিনি জানান, ক্যাম্প থেকে বেরিয়ে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা প্রায় টেকনাফের কৃষকদের অপহরণ করে পাহাড়ে নিয়ে বর্বর কায়দায় নির্যাতন ও মুক্তিপণ আদায় করছে। এসব নির্মূলে যৌথ অভিযান খুবই জরুরি।

আরো সংবাদ