ঘূর্ণিঝড় মোখা’র তান্ডবে সেন্টমার্টিন লন্ডভন্ড - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০২৩-০৫-১৪ ১৪:১৬:০৭

ঘূর্ণিঝড় মোখা’র তান্ডবে সেন্টমার্টিন লন্ডভন্ড

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার : বঙ্গোপসাগরে অবস্থিত দেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিনে অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় মোখা তাÐব চালিয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ে দ্বীপের দক্ষিণপাড়া, পশ্চিমপাড়া, উত্তরপাড়া, মাঝপাড়া, কোনারপাড়া, গলাচিপার হাজারো বাড়িঘর ভেঙে গেছে। রোববার (১৪ মে) দুপুর থেকে ঘূর্ণিঝড় মোখার তাÐব শুরু হয়ে সন্ধ্যা পর্যন্ত প্রবল ঝড়ো হাওয়ার পাশাপাশি ভারি বৃষ্টি হচ্ছে। এছাড়ও কক্সবাজারের বিভিন্ন উপজেলায় প্রায় ১০ হাজার কাঁচা ঘরবাড়ির আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান জানান, অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড় মোখার তাÐবে লন্ডভন্ড হয়েছে সেন্টমার্টিন দ্বীপের ঘরবাড়ি ও গাছপালাসহ বহু স্থাপনা। দুপুরে মোখা উপকূল অতিক্রম শুরু করার পর প্রাথমিক আঘাতে সেন্টমার্টিনের বিভিন্ন স্থানে প্রচুর বাড়িঘর ও বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙে যায়। এ সময় ১১ জন নারী পুরুষ আহত হয়েছে। আহতদের বিভিন্ন স্বাস্থ্য কেন্দ্র চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ক্ষতি হয়েছে মহেশখালীর এলএনজি টার্মিনালের। বিকেলে ঘূর্ণিঝড়টির কেন্দ্র সেন্টমার্টিন অতিক্রম করে মিয়ানমারের ওপর অবস্থান করছে। সেন্টমার্টিনে বাতাসের সর্বোচ্চ ঘূর্ণন গতি রেকর্ড করা হয়েছে ঘন্টায় ১৪৭ কিলোমিটার। ঝড়ের কেন্দ্র অতিক্রম করে গেলেও ঘূর্ণিঝড় মোখার প্রভাবে সেন্টমার্টিনে এখনো ঘণ্টায় ১২০ থেকে ১৩০ কিলোমিটার গতিতে বাতাসের ঘূর্ণন চলছে।

কক্সবাজার ও চট্টগ্রামের উপকূলীয় অঞ্চলে পাঁচ থেকে সাত ফুট উঁচু জলোচ্ছ্বাস হতে পারে বলে আবহাওয়া অফিস থেকে জানানো হয়েছে। এরফলে পার্বত্য অঞ্চলে ভূমিধ্বসের শঙ্কার কথা জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

মোখার তাÐবের বিষয়ে কথা হয় সেন্টমার্টিন দ্বীপের বাসিন্দা আব্দুল মালেকের (৩৫) সঙ্গে। তিনি বলেন, গাছপালাসহ টিনের ঘর ও কাঠের স্থাপনা ভেঙে গেছে। বেশিরভাগ স্থাপনায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

তিনি বলেন, সেন্টমার্টিন দ্বীপে প্রায় তিন হাজার কুকুর আছে বলে জানায় স্থানীয় প্রশাসন। এছাড়াও গবাদিপশুসহ অন্যান্য প্রাণীর অবস্থা সম্পর্কেও এখনও নির্দিষ্ট করে কিছু বলতে পারছেন না কেউ।

সবশেষ বুলেটিনে আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, সেন্টমার্টিনের ওপর দিয়ে তীব্র ঝড়ো হাওয়া বয়ে যাচ্ছে। যার গতিবেগ ঘণ্টায় ১০০ কিলোমিটারের বেশি, তবে বৃষ্টির পরিমাণ কম ছিলো। এদিকে ভূ-ভাগ অতিক্রম করার পরও ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত ভারি বর্ষণের শঙ্কা রয়েছে উপকূলে। ঝুঁকি আছে জলোচ্ছ্বাস এবং পাহাড় ধসেরও।

সেন্টমার্টিনের স্থানীয় বাসিন্দা জয়নাল আবেদীন বলেন, বাতাসের গতি তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে। সমুদ্রের পানিও বাতাসে উড়িয়ে নিচ্ছে। সৈকতের ভেজা মাটি তুলে নিচ্ছে। মানুষের ঘর বাড়ির টিন, ছাউনি, কাঠ, বাঁশ উড়িয়ে নিচ্ছে। বড় বড় গাছ ও নারিকেল গাছ দুমড়ে মুচড়ে পড়ছে। দোকানপাট ভেঙ্গে উড়ে গেছে। পুরো সেন্টমার্টিনে বৃষ্টির পানি ও বাতাসের তীব্রতায় কিছুই দেখা যাচ্ছে না। সব ধোঁয়াশা হয়ে আছে।

এদিকে উপকূল অতিক্রমরত অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘মোখা’ উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর এবং সামান্য দুর্বল হয়েছে। সন্ধ্যা নাগাদ উপকূল অতিক্রম সম্পন্ন ও ক্রমান্বয়ে দুর্বল হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। বিকেলে আবহাওয়া অধিদফতরের ২১ নম্বর বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

আবহাওয়াবিদ খোন্দকার হাফিজুর রহমান জানিয়েছেন, এখনো কক্সবাজার সমুদ্র বন্দরকে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত (পুনঃ) ১০ (দশ) নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। চট্টগ্রাম ও পায়রা সমুদ্রবন্দরসমূহকে ৮ (আট) নম্বর মহাবিপদ সংকেত (পুনঃ) ৮ (আট) নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। মোংলা সমুদ্রবন্দরকে ৪ (চার) নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত (পুনঃ) ৪ (চার) নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

কক্সবাজারে জেলা প্রশাসক মুহম্মদ শাহীন ইমরান জানান, সেন্টমার্টিনে ১২শ ঘরবাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংসপ্রাপ্ত হয়েছে। কক্সবাজারের বিভিন্ন উপজেলায় ১০ হাজার কাঁচা ঘরবাড়ির আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এ বিষয়ে আরও খোঁজ খবর নেওয়া হচ্ছে বলে জানান ডিসি।

আরো সংবাদ