ঘূর্ণিঝড় মোখা : সেন্টমার্টিন ছাড়ছে মানুষ - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪ ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সোমবার

প্রকাশ :  ২০২৩-০৫-১২ ১৩:৪৯:৩৩

ঘূর্ণিঝড় মোখা : সেন্টমার্টিন ছাড়ছে মানুষ

জসিম সিদ্দিকী, কক্সবাজার : ঘূর্ণিঝড় ‘মোখা’ শক্তিশালী হয়ে কক্সবাজারের দিকে এগিয়ে আসছে। বর্তমানে এই ঘুর্ণিঝড়ের গন্তব্য কক্সবাজার। এটি কক্সবাজারের টেকনাফের সেন্টমার্টিন্স দ্বীপসহ মিয়ানমারের উপকূল এবং এর আশেপাশের উপর দিয়ে বয়ে যাবে। এমনটাই জানিয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তর। শুক্রবার (১২ মে) সকাল থেকে দ্বীপ ছেড়ে কাঠের ট্রলারে করে মানুষ টেকনাফের বিভিন্ন আতœীয়ের বাসায় আশ্রয় নিয়েছে।

এ নিয়ে সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান জানান, ঘূর্ণিঝড়ের সতর্কতা সংকেত জারি হওয়ার পর দ্বীপের চারদিকে মাইকিং করা হয়েছে। এছাড়াও তিনি মানুষদের আতংকিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় মোকার আতংকে ইতোমধ্যে দ্বীপ ছেড়েছে অন্তত ৪ হাজার মানুষ। ১০ হাজারের মানুষের এই দ্বীপে যারা এখন অবস্থান করছেন তাদের নিরাপদে থাকার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকতার পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছে।

সেন্টমার্টিনের স্থানীয় বাসিন্দা আজিজ জানান, এর আগে ঘূর্ণিঝড় সিডরে হঠাৎ সেন্টমার্টিনের চারদিক থেকে বিশালভাবে পানি ফুলে উঠে মানুষের ঘরবাড়ি ক্ষতি হয়। সেই আতঙ্কে এবার ঘূর্ণিঝড় মোখাতেও এর চেয়ে বেশি ক্ষতি হতে পারে বলে অনেক নারী-পুরুষ সেন্টমার্টিন ত্যাগ করছেন।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা কামরুজ্জামান জানান, সেন্টমার্টিন দ্বীপকে বাড়তি গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, দুর্যোগ মোকাবিলায় দ্বীপে নৌবাহিনীও প্রস্তুত রয়েছে। পাশাপাশি দ্বীপে বিজিবি, পুলিশ, কোস্টগার্ড সদস্যরা সতর্ক অবস্থানে আছেন বলেও তিনি জানান। পাশাপাশি সেন্টমার্টিন দ্বীপে যে সকল হোটেল রয়েছে সব হোটেলেই স্থানীয়দের থাকার ব্যবস্থাও করা হয়েছে।

এদিকে, কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের সী সেফ লাইফ গার্ড সংস্থার সিনিয়র লাইফ গার্ড কর্মী আবদুস সালাম জানিয়েছেন, ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত জারির পর থেকে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের নিদের্শনা মতে কাউকে পানিতে নামতে দেয়া হচ্ছে না। সাগর স্বাভাবিক পরিস্থিতির চেয়ে ক্রমাগত উত্তাল হতে শুরু করেছে। তা আরও বাড়তে পারে। সার্বিক নিরাপত্তা সৈকতে দায়িত্ব পালন করছেন তারা। তাদের সাথে বীচ কর্মী ও ট্যুরিস্ট পুলিশ রয়েছে।

এদিকে, ঘূর্ণিঝড় ‘মোখা’র প্রভাবে কক্সবাজারের আকাশে কখনও মেঘ, কখনও বৃষ্টি, আবার কখনও রোদের খেলা চলছে। গতকাল শুক্রবার বেলা ২ টা ৪০ মিনিট থেকে ৩ টা ১০ মিনিট পর্যন্ত মাঝারি বৃষ্টি হয়েছিল। এরপর আকাশ কালো মেঘে ঢাকা থাকাকালিন গুড়ি গুড়ি বৃষ্টিপাতও হয়েছে কিছুক্ষণ। কিন্তু বিকাল ৪ টার পর থেকে হালকা রোদের দেখা মিলেছে।

আরো সংবাদ