চকরিয়ায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে নারী নিহত - কক্সবাজার কন্ঠ

শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শুক্রবার

প্রকাশ :  ২০২৩-০৩-০৪ ০৭:২৩:৫৬

চকরিয়ায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে নারী নিহত

চকরিয়ায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে নারী নিহত

নিজস্ব  প্রতিবেদক :   কক্সবাজারের চকরিয়ায় তুচ্ছ ঘটনার জেরে দুই পরিবারের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষে এক নারী নিহত এবং আটজন আহত হয়েছে। শুক্রবার (৩ মার্চ) সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় চকরিয়া উপজেলার সুরাজপুর-মানিকপুর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের পাহাড়তলী এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানান, চকরিয়া থানার ওসি চন্দন কুমার চক্রবর্তী। নিহত কুলছুমা বেগম (৪০) চকরিয়ার সুরাজপুর-মানিকপুর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের পাহাড়তলী এলাকার নুর মোহাম্মদের স্ত্রী। স্থানীয়দের বরাতে ওসি চন্দন বলেন, চকরিয়ার সুরাজপুর-মানিকপুর ইউনিয়নের পাহাড়তলী এলাকার বাসিন্দা নুর মোহাম্মদ ও মো. জকরিয়া পরস্পর প্রতিবেশী। গেল শুক্রবার বিকালে জকরিয়ার একটি পোষ্য একটি ছাগল নুর মোহাম্মদ মালিকাধীন ক্ষেতের বেশকিছু বাদাম গাছ খেয়ে ফেলে। এ নিয়ে দুই পরিবাবের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষে এক নারী নিহত এবং অনন্ত ৮ জন আহত হয়েছে। ওসি জানান, ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে।

অভিযুক্তদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আজিমুল হক আজিম বলেন, বিকালে জকরিয়ার পোষ্য একটি ছাগল নুর মোহাম্মদের ক্ষেতের বেশকিছু বাদাম গাছ খেয়ে ফেলে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে নুর মোহাম্মদের স্ত্রী কুলছুমা বেগম ছাগলটি বেঁধে রাখে। পরে জকরিয়ার স্ত্রী ছাগলটি ফেরত চাইলেও দেননি। এ নিয়ে সন্ধ্যায় স্থানীয় ইউপি সদস্য উভয়পক্ষের লোকজনের মধ্যে শালিসের মাধ্যমে বিরোধ মিমাংসা করেন। পরে ছাগলটি ফেরত দেওয়া হয়। শালিসের পর উভয়পক্ষের লোকজন নিজেদের বাড়ীতে ফিরে যায়। পরে ঘটনার জেরে কুলছুমার সঙ্গে জকরিয়ার স্ত্রীর মধ্যে তর্কাতর্কির ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে দুই পরিবারের পুরুষ সদস্যরাসহ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোটার আঘাতে উভয়পক্ষের অনন্ত ৯ জন আহত হয়। স্থানীয় এ ইউপি সদস্য বলেন, ঘটনায় আহতদের উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। এসময় কর্তব্যরত চিকিৎসক গুরুতর আহত ৫ জনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। স্বজনরা জানিয়েছে, চমেকে নেওয়ার পথে কুলছুমা বেগমের মৃত্যু হয়েছে।

নিহতের লাশ চকরিয়া পৌঁছার পর ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানান ওসি চন্দন কুমার চক্রবর্তী।

আরো সংবাদ