জব্দ করা বালু আদালতের নির্দেশে বনে মিশিয়ে দিয়েছে বনবিভাগ - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১৯ মে ২০২৪ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৪-০৫-০৯ ১২:৪২:২৭

জব্দ করা বালু আদালতের নির্দেশে বনে মিশিয়ে দিয়েছে বনবিভাগ

জব্দ করা বালু আদালতের নির্দেশে বনে মিশিয়ে দিয়েছে বনবিভাগ

নিজস্ব  প্রতিবেদক :  কক্সবাজারের পেকুয়ায় মধুখালী এলাকায় হারবাং রিজার্ভ মৌজার সংরক্ষিত বনে বনবিভাগের জব্দ করা বালু আদালতের নির্দেশে বনে মিশিয়ে দিয়েছে  দক্ষিণ বনবিভাগ। বুধবার (৮ মে) ভোর থেকে এ অভিযান শুরু করে কক্সবাজার দক্ষিণ বনবিভাগ। প্রথম দিনে বনবিভাগের কর্মকর্তা ও সুফল উপকারভোগীসহ তিন শতাধিক লোক অভিযানে অংশগ্রহণ করে। গতকাল সকাল থেকে বৃহস্পতিবার (৯ মে) মধ্যরাত পর্যন্ত এ অভিযান চলে। তবে চার লাখ ঘনফুট বালু পুরোপুরি মিশিয়ে দিতে আরও ২/৩ দিন সময় লাগবে বলে জানিয়েছে দপ্তরটি।

 

বনবিভাগ সূত্র জানায়, ৪ থেকে ৫ বছর আগে অবৈধভাবে উত্তোলন করে তিনটি বালির পাহাড় তৈরি করেছিল বালি দস্যুরা। ২০২৩ সালের ২৫ মে ওই বালি জব্দ করে ইউ. ডি. আর ১৭ নং মামলা দায়ের করেন টৈইটং বনবিট কর্মকর্তা জমির উদ্দীন। চলতি বছরে বালি দস্যুরা ওই বালি নিলামের নামে বনভূমি থেকে বের করে আনার অপচেষ্টা চালায়। ফলে আদালতের শরণাপন্ন হয় বনবিভাগ। গত ৩১ মার্চ এসব বালু প্রকৃতির সাথে মিশে দেওয়ার জন্য আদালতের কাছে আবেদন করেন বারবাকিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা হাবিবুল হক। আদালাত এ আবেদনের প্রেক্ষিতে ৮ এপ্রিলের মধ্যে বালির পরিমাপ ও অবস্থান নিশ্চিত করার জন্য পেকুয়া নির্বাহী কর্মকর্তাকে নির্দেশনা প্রদান করেন। ধার্য তারিখে ইউএনও প্রতিবেদন না দেওয়ায় ও কোন সময় প্রার্থনা না করায় রেঞ্জ কর্মকর্তা আরেকটি আবেদন করেন। এর ফলে আদালত এসব বালু বনের নিচু স্থানে ভরাট করে গাছ রোপন করে ভিডিও চিত্রসহ প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।

আদালতের নির্দেশে চট্রগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগ সহকারী বন সংরক্ষক দেলোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। দু’টি হুইল লোডার  দিয়ে বালুর পাহাড় প্রকৃতির সাথে মিশিয়ে দেওয়ার দৃশ্য প্রকৃতি স্বাধীন হওয়ার মত। এ দৃশ্য দেখে বনবিভাগকে ধন্যবাদ জানান এলাকাবাসী। অন্যদিকে বনদস্যুদের কবল থেকে বনভূমি মূক্ত ও জব্দ করা বালু প্রকৃতিতে মিশিয়ে দেওয়ায় বন্যপ্রাণী ও পরিবেশ রক্ষা পেয়েছে বলে মনে করছেন স্থানীয় পরিবেশবাদীরা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বনবিভাগের জনৈক কর্মকর্তা জানান, স্থানীয় প্রশাসনকে ভুল বুঝিয়ে বনের এসব সম্পদ কৌশলে লুটের চেষ্টা করেছে বালুদস্যুরা। এতে সরকারি দুটি দপ্তরের মধ্যে ভুল বুঝাবুঝির সৃষ্টি হয়। যা এখন স্বাভাবিক হয়েছে।

আরো সংবাদ