জলকেলিতে মাতল তরুণ-তরুণীরা - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ১৯ মে ২০২৪ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রবিবার

প্রকাশ :  ২০২৪-০৪-১৬ ০৮:০৬:১২

জলকেলিতে মাতল তরুণ-তরুণীরা

জলকেলিতে মাতল তরুণ-তরুণীরা

বান্দরবান প্রতিনিধি : বান্দরবানে মারমা জনগোষ্ঠীর প্রধান সামাজিক উৎসব সাংগ্রাইয়ে পানি খেলায় মেতেছে মারমা তরুণ-তরুণীরা। প্রচলিত আছে মৈত্রী পানি বর্ষণ বা জলকেলির মাধ্যমে মারমা তরুণ তরুণীরা ভাবের আদান প্রদান করে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়।

সোমবার বিকালে সাংগ্রাই উৎসবের তৃতীয় দিনে বান্দরবান সদরে স্থানীয় রাজারমাঠে তরুণ-তরুণীদের জল ছিটিয়ে মৈত্রী পানি বর্ষণ বা জলকেলি প্রতিযোগিতার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বীর বাহাদুর উশৈসিং।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে বান্দরবান পৌরসভা মেয়র মো. সামসুল ইসলাম, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য কেএসমং মারমা, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউটের পরিচালক মংহ্নচিং মারমা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে জলকেলি বা মৈত্রী পানি বর্ষণ প্রতিযোগিতায় বান্দরবান সদর ও রোয়াংছড়ি উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের পাহাড়ি মারমা জনগোষ্ঠীর তরুণ-তরুণীরা কয়েকটি ভাগে বিভক্ত হয়ে দলবদ্ধ ভাবে জলকেলি বা মৈত্রী পানি বর্ষণ খেলায় মেতে উঠে। এছাড়াও রাজারমাঠসহ পাহাড়ি পল্লিগুলোতে জলকেলিতে মেতে উঠে শিশু-কিশোররাও।

অপরদিকে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং তৈলাক্ত বাঁশ আরোহণের আয়োজন চলে। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে মারমা শিল্পী গোষ্ঠী এবং ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউটের শিল্পীরা নাচে-গানে উৎসব মাতিয়ে তোলেন।

বান্দরবানে রাতব্যাপী উজানিপাড়া, জাদীপাড়াসহ পাহাড়ি পল্লিগুলোতে চলে হরেক রকমের পিঠা তৈরির প্রতিযোগিতা। রাতে বানানো পিঠা পাড়া প্রতিবেশী আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে বাড়িতে বিতরণ করে তরুণ-তরুণীরা।

এদিকে গত রোববার উৎসবের দ্বিতীয় দিন সাঙ্গু নদীর চড়ে ধর্মীয়ভাবে বৌদ্ধমূর্তি স্নান অনুষ্ঠানে মিলিত হয় পাহাড়ের মারমা সম্প্রদায়সহ বিভিন্ন সম্প্রদায়ের হাজারো নারীপুরুষ। তার আগে কেন্দ্রীয় বৌদ্ধ বিহার থেকে বৌদ্ধ ভিক্ষু, শ্রমণ এবং বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী নারী পুরুষেরা খালি পায়ে হেঁটে সাঙ্গু নদী চড়ে মিলিত হয় বৌদ্ধমূর্তির স্নান অনুষ্ঠানে। কষ্টিপাথরের কয়েকশ বছরের পুরনোয় বৌদ্ধমূর্তিতে পবিত্র জল ঢালা হয় পূর্ণের আশায়। সবশেষে বিশ্ববাসীর মঙ্গল কামনায় প্রার্থনা অংশ নেয় শতশত নারী পুরুষ, তরুণ তরুণী, কিশোর কিশোরীরা।

উৎসব উদযাপন কমিটির সভাপতি মংমংশৈ মারমা জানান, সাংগ্রাই উৎসবকে ঘিরে ৪ দিন বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠানমালার আয়োজন চলছে। উৎসবের তৃতীয় দিন মৈত্রী পানি বর্ষণ বা জলকেলি প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, পিঠা তৈরির প্রতিযোগিতা চলেছে। মঙ্গলবারও সাংগ্রাই উৎসবের মূল অনুষ্ঠানমালা চলবে জেলা সদরে। তবে পাহাড়ি পল্লিগুলোতে উৎসব চলবে আরও কয়েক দিন। বর্ষবরণ এবং বর্ষবিদায় অনুষ্ঠানকে মারমা সম্প্রদায় প্রধান সামাজিক উৎসব সাংগ্রাই নামে পালন করে আসছে বহু বছর ধরে।

আরো সংবাদ