জালিয়া পালংয়ে ভিজিডি’র চাল বিতরণ নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১ ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২১-০৪-২৫ ০৯:৪৫:২০

জালিয়া পালংয়ে ভিজিডি’র চাল বিতরণ নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া

জালিয়া পালংয়ে ভিজিডি’র চাল বিতরণ নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া
Spread the love

নিজস্ব প্রতিনিধি : কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার জালিয়া পালং ইউনিয়নে ভিজিডি’র চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেজবুকে। জনৈক এমএ বশর নামে একটি ফেজবুক আইডি থেকে রোববার (২৫ এপ্রিল) সকালে ছবিসহ একটি পোষ্ট দেয়া হয়। ওই পোষ্টটি পাঠকদের সুবিধার্থে হুবুহু তুলে দেয়া হলো।
আজ (স্বাস্থ্যবিধি) মেনে জালিয়া পালং ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ড়ের ৫৩০ জন পরিবারে ৩ বস্তা ( ৯০ কেজি) করে ভি জি ডির চাউল বিতরণ করা হয়।
এই পোষ্ট দেয়ার পর নিচে কমেন্ট বক্সে স্থানীয় বিভিন্ন শ্রেণীর পেশার মানুষ কমেন্ট করতে শুরু করেন। এতে বিব্রতকর অবস্থায় উত্তর দিতে থাকেন জনৈক এমএ বশর।
কমেন্টগুলো তুলে ধরা হলো : এইচএম বোরহান উদ্দিন লিখেছেন, চাউল পাওয়ার জন্য টিকেট নিতে গিয়ে যারা ১/২ হাজার টাকা নিয়েছে তাদের কি অবস্থা হবে পরকালে আল্লাহ সবাইকে ঘুষ মুক্ত দায়িত্ব পালন করার তাওফিক দান করুক আমিন।

এমডি শামশু লিখেছেন, আলহামদুলিল্লাহ,,, তবে অভিযোগ আছে যে ২০০০/২৫০০ আড়াই হাজার করে যেই টাকা গুলো কে/কারা নিয়েছে সেই টাকা গুলো যেন আর নেওয়া না হয়,,

শাহরিয়া ময়না লিখেছেন, তিন হাজার চার হাজার টাকা নিচ তোমরা চাল দেওয়ার জন্য তোমাদের উচিত ঘরে ঘরে পোচে দেওয়া

নুরুল ইসলাম লিখেছেন, আসসালামুয়ালাইকুম সত্যি কথাটা হচ্ছে যে ফরম গুলো যাদের কাছ থেকে সাধারণ মানুষরা গ্রহণ করেছে তারাই একটা ফরমের জন্য দুই থেকে তিন হাজার টাকা নিয়েছে অনেকে আমাদের এলাকায় যে হত দরিদ্র মানুষ বসবাস করে তাদের মাঝে দেওয়া প্রয়োজন ছিল বড়লোক রায় গ্রহন করেছে কিন্তু যারা ফরমের জন্য টাকা দিতে পারে নাই তারা ওই সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়ে গেছে ।

এ ধরণের আরও অনেকেই কমেন্ট করেছেন তারমধ্যে কয়েকটি কমেন্ট তুলে ধরা হয়েছে। তবে এসব কমেন্টের উত্তর হিসেবে জনৈক এমএ বশর লিখেছেন সরকার পরিষদকে নির্দ্দেশনা দিয়েছিল, গত বারে যারা ভিজিডির উপকার ভুগী ছিল, ১০ টাকা মূল্যের চাউল পায় এবং যাদের বয়স ২০ বছরের নীচে ও ৫০ বছরের উপরে,, তাদের নাম বাদ দেওয়ার জন্য। তাই এত গুলি উপকার ভুগী পেতে অনেক পরিশ্রম হয়েছে।

তিনি আরও লিখেছেন যদি ৭,৮,৯ নং ওয়ার্ড়ের একজন লোকও সামনে বলতে পারে, বশরকে ১০০ টাকা দিয়েছি, ১ লক্ক টাকা জরিমানা দিব এবং জনসমুদ্রে ক্কমা চাইব। ইনশা আল্লাহ ৫ বছর কোন বেহালাল টাকা রোজগার করতে চাই নাই। কেহ আমাদের নাম বিক্রি করলে, তা হতে দুরে থাকার অনুরুধ করি। বড় কথা হল আল্লাহকে ভয় করতে হবে। বিস্তারিত আসছে….

 

আরো সংবাদ