জীবনের চেয়ে সমুদ্রস্নানের মূল্যই বেশি কক্সবাজারে! - কক্সবাজার কন্ঠ

সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪ ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ :  ২০২৩-১০-২৪ ০৯:৫৪:১৬

জীবনের চেয়ে সমুদ্রস্নানের মূল্যই বেশি কক্সবাজারে!

রাজনৈতিক অস্থিরতায় পর্যটন খাতে ধস ক্ষতি হাজার কোটি টাকা

কক্সবাজার : বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় হামুন এর প্রভাবে কক্সবাজারে টানা বৃষ্টি হচ্ছে। উত্তাল হয়ে উঠেছে সমুদ্র। এর মধ্যেও সাগরতীরে দেখা যাচ্ছে পর্যটকদের আনাগোনা। সাগরে না নামতে মাইকিং করা হচ্ছে। কিন্তু মানছেন না কেউই। যেন জীবনের চেয়ে সমুদ্র স্নানের মূল্যই বেশি!

ঘূর্ণিঝড় হামুনের প্রভাবে গেল সোমবার বিকাল থেকে কক্সবাজার ও উপকূলীয় শুরু হয়েছে বৃষ্টি। এ অবস্থা আজও (মঙ্গলবার) অব্যাহত রয়েছে। বুধবার (২৫ অক্টোবর) কক্সবাজার সমুদ্র উপকূলসহ সারা দেশে ভারী বৃষ্টির আশঙ্কা করছে কক্সবাজার আবহাওয়া অফিস। এই অবস্থায় কক্সবাজার উপকূলকে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

কক্সবাজার আবহাওয়া অফিস জানায়, সোমবার বিকাল থেকে মঙ্গলবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ৫১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। তার মধ্যে মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে ৯টা পর্যন্ত রেকর্ড হয়েছে ১৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত।

মঙ্গলবার (২৪ অক্টোবর) সকালে সমুদ্র সৈকতে সরেজমিনে দেখা গেছে, সাগর স্বাভাবিক পরিস্থিতির চেয়ে কিছুটা উত্তাল। এর মধ্যে পর্যটকদের দেখা মিলছে। তারা সাগরে নামে গোসল করছেন। এ অবস্থা ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচনায় সৈকতের পয়েন্টে পয়েন্টে জেলা প্রশাসন ও ট্যুরিস্ট পুলিশের পক্ষে চালানো হচ্ছে প্রচারণা। বলা হচ্ছে, এ পরিস্থিতিতে সাগরে নামা নিরাপদ নয়। তাদের উঠে আসতে অনুরোধ জানানো হচ্ছে। কিন্তু কে শোনে কার কথা!

সৈকতে নিয়োজিত কর্মী বেলাল হোসেন জানান, পর্যটকরা কোনো অনুরোধ মানছেন না। বার বার বলার পরও সাগরে নেমে গোসল করছেন অনেকে। বেশি অনুরোধ করলে তারা উল্টো রেগে যাচ্ছেন। যদিও লাইফ গার্ডকর্মীরা সতর্কতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছেন।

এদিকে, ঘূর্ণিঝড়ের সার্বিক প্রস্তুতি নিয়ে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মঙ্গলবার সকাল ১১টায় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মুহম্মদ শাহীন ইমরান জানান, ঘূর্ণিঝড় হামুনের প্রস্তুতি সভায় পূর্ণিমাকালীন সময়ে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সম্ভাব্য জলোচ্ছ্বাস থেকে নিচু এলাকার জানমাল রক্ষায় গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। সে সঙ্গে কুতুবদিয়া, মহেশখালী, সেন্টমার্টিন দ্বীপ, টেকনাফ, পেকুয়া, চকরিয়া, উখিয়া, কক্সবাজার সদর ও রামু উপজেলার আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে নিচু এলাকার বাসিন্দাদের সরিয়ে আনতে বলা হয়েছে।

সভায় জানানো হয় প্রশাসনের নিদের্শনা না মেনে সেন্টমার্টিনে অবস্থানরত আড়াই শতাধিক পর্যটককে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। একই সঙ্গে সেন্টমার্টিনসহ কক্সবাজারে অবস্থানরত পর্যটকরা যেন সাগরে গোসল করতে না নামেন, তার জন্য প্রচারণা চালানোর পাশাপাশি বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এ পরিস্থিতিতে মঙ্গলবার বিকালে সৈকতে অনুষ্ঠিত হচ্ছে শারদীয় দুর্গাপূজার প্রতিমা বিসর্জন। সমুদ্র সৈকতকে ঘিরে বিকেলে ৪ লাখের বেশি মানুষের সমাগম হবে। উত্তাল এ পরিস্থিতিতে সাগরে প্রতিমা বিসর্জনের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছেন ট্যুরিস্ট পুলিশের কক্সবাজার জোনের পুলিশ সুপার মো. জিল্লুর রহমান।

আরো সংবাদ