জেলা প্রশাসনের এলএ শাখায় ফের সক্রিয় সেই মিজান !  - কক্সবাজার কন্ঠ

রোববার, ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২২শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রবিবার

প্রকাশ :  ২০২২-১১-২৬ ১৪:২৮:৩৬

জেলা প্রশাসনের এলএ শাখায় ফের সক্রিয় সেই মিজান ! 

জেলা প্রশাসনের এলএ শাখায় ফের সক্রিয় সেই মিজান !

নিজস্ব  প্রতিবেদক :  কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখার সার্ভেয়ার আতিকুল ইসলাম ঘুষের টাকাসহ ঢাকায় আটকের পর গা ঢাকা দিয়েছিলেন তার ক্যাশিয়ার ও এলএ শাখার মিজান। কিন্তু এখন আবারও এলএ শাখায় সক্রিয় হয়ে দালালি শুরু করেছে । ভার্সন ত্রি মডেলের দামী মোটর সাইকেল হাঁকিয়ে এসে প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এলএ শাখায় ঘুরাফিরা ও বিভিন্ন কাগজপত্র ঘেটে বেড়ায় সে। সবচেয়ে বড় কথা হল, ক্ষতিপূরনের টাকা তুলে দেয়ার দালালিতে ভূমি অধিগ্রহণ শাখায় আবারও ফাইল নিয়ে খুবই ব্যস্ত সময় কাটচ্ছেন বলে নিজেই দাবী করেছে !

বরখাস্ত ও কারাগারে থাকা সার্ভেয়ার আতিকুলের কমিশন বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত দালাল চক্রের অন্যতম এ মিজান। সে ঈদগাঁও উপজেলার ইসলামাবাদ ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের পাঁহাশিয়াখালী গ্রামের জাফর আলমের ছেলে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ৩/৪ বছর আগেও কোর্ট বিল্ডিং এলাকায় একটি ফটোস্ট্যাট এর দোকানে চাকরি করত মিজান। সেখান থেকে ক্রমান্বয়ে ভূমি অধিগ্রহণ শাখার দালালিতে জড়িয়ে পড়ে । ক্ষতিপূরনের চেক পাইয়ে দেয়ার নাম করে অনেকের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে ।

আবার ক্ষতিপূরণ প্রত্যাশীদের থেকে জমি জমার গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র নিয়ে গায়েব করার অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে। সার্ভেয়ার আতিক আটক হওয়ার পর আতিকের অঘোষিত ক্যাশিয়ার হিসাবে মিজানের নাম বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে কিছুদিন আত্নগোপনে থাকে দালাল মিজান।। কিন্তু বর্তমানে ফের এলএ শাখায় দালালি করছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

এদিকে অভিযোগের বিষয়ে মিজান জানায়, দীর্ঘদিন ধরে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখায় কমিশন ভিত্তিক জমির ফাইল নিয়ে কাজ করছে । কারাগারে থাকা সার্ভেয়ার আতিকুল ইসলামের সাথে তার সর্ম্পক ছিলো কিন্তু আতিকের কোনো টাকা তার কাছে নেই। দুর্নীতি দমন কমিশন তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে বলে সে নিজেই স্বীকার করেছে। সে অন্যান্য অভিযোগ সত্য নয় বলেও জানায়।

সূত্রে প্রকাশ, সম্প্রতি আতিকের স্বজনরা কক্সবাজার এসে মিজানের সাথে যোগাযোগ করলে মিজান রহস্যজনক কারনে তাদের সাথে দেখাও করেননি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সূত্র জানায়, কমিশন বাণিজ্য করে আদায় করা আতিকের কোটি কোটি টাকা মেরে দিয়েছে মিজান। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দালালদের মধ্যে মিশ্রপ্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

অনেকেই বলছে, সার্ভেয়ার আতিকের বিপুল পরিমাণ টাকা  মিজানের কাছে জমা ছিলো। এতো বড় কেলেংকারির পরও মিজান কিভাবে এলও শাখায় দালালি করে তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে চলছে আলোচনা সমালোচনা। তারা বলছে তার অদৃশ্য শক্তির সন্ধান কোথায় তা তাদের জানা নেই।

খোদ এলএ শাখার কয়েকজন কর্মচারি জানান, জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ শাখায় মিজান প্রতিদিন জমির ফাইল নিয়ে আসেন। তারা এ বিষয়ে আর কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

উল্লেখ্য, ১ জুলাই কক্সবাজার থেকে ব্যাগে ভরে ২৩ লাখ ৬৩ হাজার ৯০০ টাকা নিয়ে ঢাকায় পাড়ি দিতে গিয়ে আটক হন সার্ভেয়ার আতিকুর রহমান। কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্র বন্দরের একাংশ গড়ে উঠছে ধলঘাটা ইউনিয়নে। এ সময় আতিক গড়ে তোলে শক্তিশালী দালাল চক্র। বন্দরের জন্য অধিগ্রহণকৃত ৩১৫ একর জমির একরপ্রতি ক্ষতিপূরণের টাকা নির্ধারণ করা হয় ৫৫ লাখ টাকা করে।

কিন্তু ক্ষতিপূরণের চেক নিতে গিয়ে জমির মালিকদের দালালের মাধ্যমে সার্ভেয়ারকে কমিশন দিতে হতো ২০-৩০ শতাংশ করে। তখন কমিশন বাণিজ্যের কথা এলএ অফিসসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে জানিয়েও প্রতিকার পাননি বলে দাবি করেন ক্ষতিগ্রস্হরা। আতিকের পক্ষ থেকে মিজান এসব টাকা আদায় করত বলে জানা গেছে। মিজান আবার এলএ শাখায় সক্রিয় হওয়ায় ভুক্তভোগীদের মধ্যে আতংক বিরাজ করছে।

আরো সংবাদ